১৫ নভেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

আমান গ্রুপ পেল অর্থনৈতিক অঞ্চল গড়ার লাইসেন্স

স্টাফ রিপোর্টার ॥ বেসরকারী অর্থনৈতিক অঞ্চল প্রতিষ্ঠার অংশ হিসেবে বেসরকারি প্রতিষ্ঠান আমান গ্রুপকে ‘আমান অর্থনৈতিক অঞ্চল’ প্রতিষ্ঠায় প্রভিশনাল প্রাক্-যোগ্যতাপত্র প্রদান করেছে বাংলাদেশ অর্থনৈতিক অঞ্চল কর্তৃপক্ষ (বেজা)।

সোমবার দুপুরে বিডিবিএল ভবনস্থ বেজার সভাকক্ষে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে আমান গ্রুপের চেয়ারম্যান ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক রফিকুল ইসলামের হাতে যোগ্যতাপত্র প্রদান করেন বেজার নির্বাহী চেয়ারম্যান (সচিব) পবন চৌধুরী।

অনুষ্ঠানে জানানো হয়, আমান অর্থনৈতিক অঞ্চলটি নারায়ণগঞ্জ জেলার সোনারগাঁও উপজেলার বৈড্ডা বাজার এলাকায় অবস্থিত, এর আয়তন প্রায় ৯০ একর। ইতোমধ্যে আমান অর্থনৈতিক অঞ্চল উন্নয়নের কার্যক্রম শুরু হয়েছে। ২০১৬ সালের ডিসেম্বরের মধ্যে এর উন্নয়নের সমস্ত কাজ সমাপ্ত হবে বলে দাবি করছে প্রতিষ্ঠানটি। বেসরকারী এই অর্থনৈতিক অঞ্চলে সিমেন্ট, প্যাকেজিং, শিপ ইয়ার্ড, ফুড ও ভেবারেজ, ইলেকট্রনিকস, স্টিল শিল্প ও আইটি সম্পর্কিত শিল্প প্রতিষ্ঠান স্থাপন করবে আমান গ্রুপ। প্রতিষ্ঠানের পক্ষে জানানো হয়, প্রতিষ্ঠিতব্য এ অঞ্চলে ইতোমধ্যে দেশী-বিদেশী স্বনামধন্য বিনোয়গকারীদের বিনিয়োগের আগ্রহ সৃষ্টি হয়েছে। প্রকল্প শেষে আনুমানিক ২০ হাজার লোকের কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি হবে বলেও আশা করছে প্রতিষ্ঠানটি। অনুষ্ঠানে বেজার নির্বাহী চেয়ারম্যান (সচিব) পবন চৌধুরী বলেন, উন্নয়নের অভিযাত্রায় সরকারী-বেসরকারী প্রতিষ্ঠান এক সঙ্গে কাজ করব, আর বর্তমানে সেটাই হচ্ছে। উন্নয়নশীল দেশে একযোগে কাজ করতে হয়। তবে উন্নয়নের ক্ষেত্রে কোন বিতর্ক সৃষ্টি না করাই উত্তম। বিনিয়োগের সুযোগ বা প্রবাহ সব সময় থাকে না। বর্তমান বাংলাদেশে বিনিয়োগের বিশেষ সুযোগ তৈরি হয়েছে। বিভিন্ন দেশে স্নায়বিক উত্তেজনার কারণে বিনিয়োগ প্রত্যাহার হচ্ছে, আর সেসব বিনিয়োগ বাংলাদেশে আসার সুযোগ রয়েছে।

তিনি আরও বলেন, শুধু স্নায়বিক উত্তেজনা নয়, কয়েকটি দেশে উৎপাদন ব্যয় বৃদ্ধি পেয়েছে। কম্বোডিয়ার মতো দেশেও মজুরি আমাদের তুলনায় দ্বিগুণ। অন্যান্য দেশে ব্যয় বৃদ্ধির কারণেও বাংলাদেশে বিনিয়োগ বৃদ্ধি পাবে। বৈদেশিক বিনিয়োগের যে নেতিবাচক পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছিল, তা থেকে উঠে আসার এখনই উত্তম সময়। অনুষ্ঠানে আমান গ্রুপের চেয়ারম্যান ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক রফিকুল ইসলাম প্রতিষ্ঠানটির সূচনালগ্নের স্মৃতিচারণ করেন।

সনদপত্র প্রদান অনুষ্ঠানে বেজার নির্বাহী সদস্য এস এম শওকত আলী, মোহাম্মদ অব্দুস সামাদ এবং সাপোর্ট টু ক্যাপাসিটি বিল্ডিং প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালক হারুনুর রশিদসহ উভয় প্রতিষ্ঠানের উর্ধতন কর্মকর্তাবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।