২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

‘এমএসএন’ জাদুতে বার্সার বিশাল জয়

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ দিন যত গড়াচ্ছে ‘এমএসএন’ ত্রয়ী যেন আরও ভয়ঙ্কর হয়ে উঠছে। প্রায় সব প্রতিপক্ষই উড়ে যাচ্ছে লিওনেল মেসি, লুইস সুয়ারেজ ও নেইমারের পারফর্মেন্সের জাদুতে। রবিবার রাতে স্প্যানিশ লা লিগার ম্যাচে আরেকবার এ দৃশ্যের মঞ্চায়ন হয়েছে।

ঘরের মাঠ ন্যুক্যাম্পে বার্সিলোনা ৬-১ গোলের বিশাল ব্যবধানে হারিয়েছে সেল্টা ডি ভিগোকে। কাতালানদের হয়ে দুর্দান্ত হ্যাটট্রিক করেন উরুগুইয়ান তারকা সুয়ারেজ। একটি করে গোল করেন লিওনেল মেসি, নেইমার ও ইভান রাকিটিচ। সেল্টার সান্ত¡নাসূচক গোলদাতা জন গুইডেট্টি। সাবলীল এই জয়ে পয়েন্ট তালিকার শীর্ষস্থান সুসংহত করেছে বর্তমান চ্যাম্পিয়ন বার্সিলোনা। ২৩ ম্যাচ শেষে তাদের ভা-ারে জমা ৫৭ পয়েন্ট। এক ম্যাচ বেশি খেলেও বার্সিলোনার চেয়ে তিন পয়েন্টের ব্যবধানে পিছিয়ে আছে এ্যাটলেটিকো মাদ্রিদ। আর ২৪ ম্যাচে ৫৩ পয়েন্ট নিয়ে তৃতীয় স্থানে আছে রিয়াল মাদ্রিদ। পরশু রাতে এ্যাটলেটিকো ১-০ গোলে হারিয়েছে স্বাগতিক গেটাফেকে। বুধবার স্পোর্টিং গিজনের বিপক্ষে জয় পেলে শিরোপা জয়ের দৌড়ে আরও এগিয়ে যাবে লুইস এনরিকের দল। গত বছরের সেপ্টেম্বরে প্রথম পর্বের ম্যাচটি ৪-১ গোলে জিতেছিল সেল্টা ভিগো। এবার তাই মধুর প্রতিশোধ নিতে সক্ষম হয়েছে বার্সা। প্রথম পর্বে হারের কারণেই পরশু রাতে সেল্টা সমীহ করে মাঠে নামে কাতালানরা। কিন্তু শুরু থেকেই একের পর গোল মিস হতে থাকে স্বাগতিকদের। এজন্য কাক্সিক্ষত গোলের জন্য প্রায় আধাঘণ্টা অপেক্ষা করতে হয়। ম্যাচের ২৮ মিনিটে মেসির অসাধারণ ফ্রিকিকে এগিয়ে যায় বার্সিলোনা। পাঁচবারের বর্ষসেরা তারকার শটটি শেষমুহূর্তে সামান্য বাঁক খেয়ে জালে জড়ায়। এবারের লা লিগায় পঞ্চমবারের মতো ফ্রিকিক থেকে লক্ষ্যভেদ করলেন আর্জেন্টাইন অধিনায়ক। লীগে তার মোট গোল হলো ১৩। এরপর আক্রমণ পাল্টা আক্রমণে জমে ওঠা লড়াইয়ে ৩৯ মিনিটে ডি বক্সে ঢুকে পড়া সুইডেনের স্ট্রাইকার জন গুইডেট্টিকে স্বাগতিক ডিফেন্ডার জর্ডি এ্যালবা ফাউল করলে পেনাল্টি পায় সেল্টা। স্পট কিক থেকে নিজেই দলকে সমতায় ফেরান গুইডেট্টি। ১-১ গোলে সমতাবস্থায় শেষ হয় প্রথমার্ধের খেলা। বিরতির পর একের পর এক আক্রমণ করে যাওয়ার সুফল বার্সিলোনা পায় ৫৯ মিনিটে। মেসির চিপ করে বাড়ানো বল ডি বক্সে পেয়ে প্রথম শটেই লক্ষ্যভেদ করেন সুয়ারেজ। ম্যাচের ৭৫ মিনিটে নিজের দ্বিতীয় গোল করে বার্সার জয় প্রায় নিশ্চিত করে ফেলেন সুয়ারেজ। গোলটির পুরো কৃতিত্বই নেইমারের, গোলরক্ষককে কাটিয়ে দুরূহ কোণ থেকে তার নেয়া শটে গোললাইনের সামনে থেকে আলতো ছোঁয়াতে জালে জড়ান সাবেক লিভারপুল তারকা।

ম্যাচের ৮১ মিনিটে ফুটবলের গ-ি ছাড়িয়ে মেসি-সুয়ারেজ গড়েন নতুন দৃষ্টান্ত। ফিফা ব্যালন ডি’অর জয়ীকে ডি বক্সের মধ্যে ডিফেন্ডার কাস্ট্রো ফেলে দিলে পেনাল্টি পায় বার্সিলোনা। স্পট কিক নিতে এগিয়ে আসেন মেসি নিজেই। দৌড়ে এসে শট নেয়ার আগমুহূর্তে থেমে যান, ছোট্ট একটা টোকা দেন, আর ছুটে এসে জোরালো শটে বল জালে জড়িয়ে হ্যাটট্রিকের আনন্দে ভাসেন সুয়ারেজ। চলতি বছর সুয়ারেজের এটি তৃতীয় হ্যাটট্রিক। সেই সঙ্গে এবারের লীগের গোলদাতাদের তালিকায় ২৩ গোল নিয়ে ফের শীর্ষে উঠে এসেছেন তিনি। দ্বিতীয় স্থানে থাকা রিয়াল মাদ্রিদের ক্রিশ্চিয়ানো রোনাল্ডোর গোলসংখ্যা ২১। ৮৪ মিনিটে সুয়ারেজের বাড়ানো বল নিয়ন্ত্রণে গোলরক্ষকের মাথার ওপর দিয়ে লক্ষ্যভেদ করেন ইভান রাকিটিচ। সবশেষে ম্যাচের শেষদিকে স্কোরশিটে নাম লেখান নেইমার। সুয়ারেজের বাড়ানো বল দারুণভাবে নিয়ন্ত্রণে নিয়ে ৯১ মিনিটে গোলরক্ষককে পরাস্ত করেন নেইমার। লীগে এটি ব্রাজিলিয়ান অধিনায়কের ১৭ নম্বর গোল।