১০ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

হাসপাতালে কাতরাচ্ছে ৩য় শ্রেণীর ছাত্রী ॥ ধরা পড়েনি ধর্ষক

নিজস্ব সংবাদদাতা, মাদারীপুর, ১৫ ফেব্রুয়ারি ॥ ফরিদপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের বেডে মৃত্যু যšণায় কাতরাচ্ছে ধর্ষিতা ৩য় শ্রেণীর স্কুল ছাত্রী। এ দিকে ঘটনার ৬ দিন পেরিয়ে গেলেও ধর্ষককে গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ। অন্যদিকে ধর্ষকের পরিবার প্রভাবশালী হওয়ায় তাদের হুমকির মুখে আতঙ্কে রয়েছে ধর্ষিতার পরিবার। এলাকাবাসী প্রথমে এ জঘন্যতম ঘটনার বিচার দাবি করলেও এখন প্রভাবশালীদের কারণে তারা দর্শকের কাতারে দাঁড়িয়েছে। চিকিৎসক বলেছেন, তার যৌনাঙ্গের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে উন্নত চিকিৎসার প্রয়োজন।

মাদারীপুরের কালকিনি উপজেলার এনায়েতনগর ইউনিয়নের আলীপুর গ্রামের প্রতিবেশী দু’স্ত্রীর স্বামী ইউনুস সরদার বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় বাড়ির সামনের রাস্তা থেকে ৩য় শ্রেণীর ওই স্কুলছাত্রীকে মুখ চেপে তুলে নিয়ে যায় সরিষাক্ষেতে। এরপর সেখানে তাকে ধর্ষণ করে ফেলে পালিয়ে যায় ইউনুস সরদার। রক্তাক্ত অবস্থায় কোনমতে বাড়ি ফিরে অসুস্থ হয়ে পড়ে ওই স্কুলছাত্রী। শুক্রবার সকালে পরিবারের লোকজন তাকে মাদারীপুর সদর হাসপাতালে নিয়ে আসেন। এখানে অবস্থার অবনতি হলে বিকেলে ফরিদপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করে চিকিৎসক। ২০১১ সালে বাবা মারা যাওয়ার পর মেয়েটির মা মানুষের বাড়িতে দিনমজুর হিসেবে কাজ করে সংসার ও মেয়েটির পড়ালেখার খরচ চালাতো।

ধর্ষিতার মামা আজিজুল সরদার বলেন, ‘এমন নোংরা কাজ করে আবার হত্যার হুমকি দিচ্ছে ইউনুস ও তার পরিবার।’ একই এলাকার মুদি দোকানদার মিরাজ হোসেন বলেন, ‘নিষ্পাপ শিশুটির সঙ্গে যে ব্যবহার করা হয়েছে অভিযুক্ত লম্পট ইউনুসের দৃষ্টান্তুমূলক শাস্তি চাই। ওর ফাঁসি চাই, যা দেখে অন্য কেউ যেন এমন জঘন্য কাজ না করতে পারে।’

কালকিনি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা কৃপাসিন্দু বালা বলেন, ইউনুসকে প্রধান আসামি করে ধর্ষণ মামলা করেছে নির্যাতিত মেয়েটির মামা আজিজুল সরদার। ঘটনার পর থেকে ইউনুস ও তার পরিবারের লোকজন পলাতক রয়েছে। অভিযুক্তকে ধরতে অভিযান অব্যাহত রয়েছে।’