২০ নভেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

ইউপি চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের একক প্রার্থী চূড়ান্ত হবে আজ

  • মনোনয়ন বোর্ডের বৈঠক

বিশেষ প্রতিনিধি ॥ প্রথম ধাপে অনুষ্ঠেয় ৭৩৯টির মধ্যে আড়াই শতাধিক ইউনিয়ন পরিষদে চেয়ারম্যন পদে একক প্রার্থিতা চূড়ান্ত করেছে কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগ। আজ বুধবার সন্ধ্যায় পুনরায় বৈঠকে বসে সব ইউনিয়ন পরিষদের দলীয় একক প্রার্থিতা চূড়ান্ত শেষে মনোনীত প্রার্থীদের অনুকূলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার স্বাক্ষরিত প্রতীক বরদ্দের চিঠি বিতরণ করা হবে।

মঙ্গলবার রাতে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের একক প্রার্থী বাছাইয়ের জন্য দলটির স্থানীয় সরকার/ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন মনোনয়ন বোর্ডের বৈঠকে এসব সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। রাত ৮টায় শুরু হয়ে রাত সোয়া ১১ টা পর্যন্ত এই বৈঠক চলে।

বৈঠক সূত্র জানায়, মনোনয়ন বোর্ডের সভায় আসন্ন ১০টি পৌরসভা নির্বাচনে মেয়র পদেও দলের একক প্রার্থিতা চূড়ান্ত করা হয়। বৈঠকে ইউনিয়ন পরিষদের এই বিশাল নির্বাচন যজ্ঞের মধ্যে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কাউন্সিল নির্ধারিত সময়েই হবে নাকি পিছিয়ে দেয়া হবে; এ ব্যাপারে মতামত জানতে চাইলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সাফ জানিয়ে দেন, আগামী ২৮ মার্চ নির্ধারিত সময়েই কেন্দ্রীয় কাউন্সিল হবে।

জানা গেছে, দলীয় সিদ্ধান্ত অমান্যকারীদের ব্যাপারে আওয়ামী লীগের কঠোর অবস্থানের কথা বৈঠকে পুনর্ব্যক্ত করা হয়। বৈঠকে দলের সিনিয়র নেতাদের মুখে কঠোর হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করে বলা হয়, দলের বৃহত্তর স্বার্থে ইউনিয়ন পরিষদে যাকেই প্রার্থী দেয়া হবে তার পক্ষে সবাইকে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করতে হবে। দলের সিদ্ধান্ত অমান্য করে কেউ বিদ্রোহী প্রার্থী হলে বা বিদ্রোহী প্রার্থীর পক্ষে কেউ কাজ করলে সে যত বড় নেতাই হোক কেন ছাড় পাবে না, তাদের বিরুদ্ধে কঠোর সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেয়া হবে।

প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে তার সরকারী বাসভবনে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে দলের একক প্রার্থী বাছাইয়ের জন্য দলটির স্থানীয় সরকার/ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন মনোনয়ন বোর্ডের বৈঠক শুরু হয়। বৈঠকে বোর্ডের সদস্য আমির হোসেন আমু, তোফায়েল আহমেদ, শেখ ফজলুল করিম সেলিম, ওবায়দুল কাদের, কাজী জাফর উল্লাহ, অধ্যাপক ড. আলাউদ্দিন আহমেদ, রাশেদুল আলম, মাহবুব-উল-আলম হানিফ, জাহাঙ্গীর কবির নানক, ড. আবদুর রাজ্জাক, লে. কর্নেল (অব) ফারুক খান, এ্যাডভোকেট আবদুল মান্নান খানসহ অন্য সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

বৈঠক সূত্রে জানা গেছে, ৭৩৯ ইউনিয়ন পরিষদের মধ্যে তিন শতাধিক ইউপিতে একক চেয়ারম্যান প্রার্থীর নাম প্রস্তাব করতে পারেনি তৃণমূল আওয়ামী লীগ। ভোট-সমঝোতা কোনটিতে কাজ না হওয়ায় বাধ্য হয়ে দায়িত্বপ্রাপ্ত তৃণমূল নেতারা এসব ইউপিতে মনোনয়নপ্রত্যার্শী সবার নাম প্রস্তাব করেছেন। বৈঠকে যেসব ইউনিয়ন পরিষদে দলের একাধিক প্রার্থীর নামের সুপারিশ এসেছে সেসব ইউপিতে তৃণমূলের সুপারিশের সঙ্গে গোপন জরিপের রিপোর্ট বিশ্লেষণ করে দলের একক প্রার্থিতা চূড়ান্ত করা হয়।

জানা গেছে, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে তৃণমূলের তিন স্তরের জরিপ রয়েছে। এসব জরিপ আর তৃণমূলের প্রস্তাব বিশ্লেষণ করে একক প্রার্থী চূড়ান্ত করছে কেন্দ্রীয় মনোনয়ন বোর্ড। গত ১০ ফেব্রুয়ারি ৫ দিনের মধ্যে একক ইউপি চেয়ারম্যান প্রার্থীর তালিকা কেন্দ্রে পাঠাতে তৃণমূলকে নির্দেশ দেয় কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগ। দলের জেলা, উপজেলা ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক এই ছয় জনকে নিয়ে তৃণমূল মনোনয়ন বোর্ড গঠন করার পর বর্ধিত সভার মাধ্যমে একক প্রার্থীর তালিকা পাঠানোর নির্দেশনা দেয়া হয়। তৃণমূলের দায়িত্বপ্রাপ্ত এসব নেতা অধিকাংশ জায়গায় ভোটের মাধ্যমে একক প্রার্থী চূড়ান্তের প্রক্রিয়া গ্রহণ করেন। তারপরও তিন শতাধিক স্থানে একক প্রার্থী পাঠাতে পারেনি তৃণমূল আওয়ামী লীগ।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, প্রায় তিন শতাধিক ইউনিয়নে তৃণমূলের প্রস্তাবে গড়ে প্রতিটিতে ৪/৫ জনের নাম এসেছে। একদিকে স্থানীয় এমপিদের হস্তক্ষেপ, অন্যদিকে গড়ে প্রতিটিতে ২ থেকে ৭ নেতা আওয়ামী লীগের প্রার্থী হওয়ায় একক প্রার্থী নির্ধারণে তৃণমূল নেতাদের হিমশিম খেতে হয়।