২১ অক্টোবর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

রাজশাহীতে দুই গ্রাম পুরুষশূন্য

  • যুবককে পিটিয়ে হত্যা

স্টাফ রিপোর্টার, রাজশাহী ॥ পবার বাকশৈইল মধ্যপাড়া গ্রামের চুরির কথিত অভিযোগে হাত-পা বেঁধে রাতভর পিটিয়ে হাসান আলী নামের এক যুবককে হত্যার ঘটনায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। মঙ্গলবার রাতে নিহত হাসান আলীর বাবা তবজুল বাদী হয়ে মামলাটি করেন। তবে মামলায় কারও নাম উল্লেখ করা হয়নি। এদিকে মামলা দায়েরের পর পুলিশী হয়রানির ভয়ে অনেকে গ্রাম ছেড়ে পালিয়েছে। আত্মগোপনে রয়েছেন স্থানীয় দুই গ্রামপুলিশও। স্থানীয়রা জানান, কথিত চুরির অভিযোগ তুলে স্থানীয় গ্রামপুলিশ হুমায়ন কবির ও কাইউম উদ্দিনসহ অন্তত ৩০-৪০ জনের একটি দল হাসান আলীর হাত-পা বেঁধে সোমবার রাতভর নির্যাতন ও পিটিয়ে হত্যা করে। স্থানীয় বাকশৈইল তরুণ সংঘ নামের একটি ক্লাব ঘরে হাসান আলীকে আটকে রেখে নির্যাতন করা হয়। হত্যাকা-ের পর ওই ক্লাব ঘরেই লাশ ফেলে রেখে পালিয়ে যায় দুই গ্রামপুলিশসহ ওই এলাকার পুরুষরা।

স্থানীয়রা জানায়, পবার দর্শনপাড়া ইউনিয়নের বাকশৈইল মধ্যপাড়া গ্রামের দেলজাদের পান-সিগারেট ও বিস্কুটের দোকানে সোমবার রাত দুইটার দিকে চুরির চেষ্টা করে দর্শনপাড়া চকিপাড়া গ্রামের তবজুল আলীর ছেলে হাসান আলী। স্থানীয় মনিরুল নামের এক যুবক হাসানকে ধরে ফেলে। পরে লোকজন ছুটে এসে হাসান আলীকে মারপিট করতে শুরু করে। খবর পেয়ে স্থানীয় গ্রামপুলিশ কাইউম উদ্দিন ও হুমায়ন কবির ঘটনাস্থলে আসেন। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, হাসান আলীকে দুই গ্রামপুলিশের হাতে তুলে দেয়ার পর তাকে পাশের ক্লাবে নিয়ে যাওয়া হয়। এরপর ক্লাবঘরের দরজা ভেতর থেকে আটকে দিয়ে ক্লাবে থাকা ক্রিকেটের ব্যাট দিয়ে হাসান আলীকে পেটানো হয়। এতে সকালে তার মৃত্যু হয়।

পাবনায় প্রকাশ্যে যুবলীগ কর্মীকে গুলি

নিজস্ব সংবাদদাতা, পাবনা, ১৭ ফেব্রুয়ারি ॥ মধ্য শহরের খান বাহাদুর শপিং মলের সামনে বুধবার দুপুরে শত শত মানুষের সামনে বন্দুকের গুলিতে ও ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে যুবলীগকর্র্মী নিবির ও মিল্টন নামে অপর একজনকে গুরুতর আহত করেছে সন্ত্রাসীরা। আহত নিবির সদর উপজেলার আরিফপুর মহল্লার সাইদুর রহমান খোকনের ছেলে এবং মিল্টন শহরের হাউসপাড়া মহল্লার আবুল হাশেমে ছেলে। পাবনা পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি তসলিম হাসান সুমন জানান, পূূর্বশত্রুতার জের ধরে ৭-৮ জনের একদল সন্ত্রাসী সশস্ত্র অবস্থায় দুপুর ১টার দিকে খান বাহাদুর শপিং মলের সামনে নিবিরকে লক্ষ্য করে বন্দুকের গুলি ছোড়ে। এ সময় রাস্তার উপর নিবির পড়ে গেলে চাইনিজ কুড়াল দিয়ে তাকে উপর্যুপরি কুপিয়ে আহত করে ফেলে রেখে যায়। তার সাথে থাকা মিল্টনকে সন্ত্রাসীরা মারধর করে আহত করে। স্থানীয়রা গুরুতর অবস্থায় নিবির ও মিল্টনকে দ্রুত উদ্ধার করে পাবনা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করে।