১০ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

শাহজালালের নিরাপত্তায় বেবিচক রেডলাইন চুক্তি স্বাক্ষর

স্টাফ রিপোর্টার ॥ শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের নিরাপত্তা ব্যবস্থার উন্নয়নে যুক্তরাজ্যের রেডলাইন এ্যাভিয়েশন সিকিউরিটি লিমিটেডের সঙ্গে চুক্তি সই হয়েছে। অপর্যাপ্ত নিরাপত্তা ব্যবস্থাকে কারণ দেখিয়ে ঢাকা থেকে সরাসরি কার্গো ফ্লাইট যুক্তরাজ্য নিষেধাজ্ঞার মুখে পড়ার পর তা থেকে উত্তরণে এই কোম্পাটিকে কাজ দেয়া হলো।

সিভিল এ্যাভিয়েশন সদর দফতরে সোমবার বিকালে এ চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়। কোম্পানিটির সঙ্গে দুই বছর মেয়াদী এ চুক্তি সই হয়। এ সময় শাহজালাল বিমানবন্দরের ভারপ্রাপ্ত পরিচালক নুরুল ইসলাম এবং রেডলাইনের পক্ষে কোম্পানির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) পল ম্যাসন চুক্তিপত্রে সই করেন। এতে উপস্থিত ছিলেন বিমান পরিবহন ও পর্যটনমন্ত্রী রাশেদ খান মেনন এবং বেবিচকের পুরনো চেয়ারম্যান এম সানাউল হক ও নতুন চেয়ারম্যান এহসানুল গনি চৌধুরী।

এ সময় মন্ত্রী মেনন বলেন, আগামীকাল থেকে তারা (রেডলাইন) কাজ শুরু করবে। রেডলাইন বিমান বন্দরে তিন ধরনের কাজ করবে। তারা পরামর্শ দেবে, বিমানবন্দরের নিরাপত্তা পরিস্থিতি তদারক করবে এবং বিমানবন্দরে যে সব জনবল আছে তাদের পরিচালনা ও প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করবে।

জনকণ্ঠের এক প্রশ্নের জবাবে বলেন, বর্তমানে বিমানবন্দরে জরুরী পরিস্থিতি চলছে। খুব শীঘ্রই এ পরিস্থিতির উন্নতি ঘটলে দর্শনার্থীদের জন্য কনকর্স হল খুলে দেয়া হবে। তবে এবার যদি কনকর্স হল খোলাও হয় আগের মতো ঢালাওভাবে দর্শনাথী প্রবেশাধিকার পাবে না। একজন যাত্রীর জন্য একজন বয়স্ক লোক ও শিশু টিকেট কেটে কনকর্স হলে প্রবেশ করতে পারবে।

যুক্তরাজ্যের চাপের মুখে এ চুক্তি করা হচ্ছে কিনা প্রশ্ন করা হলে মন্ত্রী বলেন, বিমানবন্দরের প্রয়োজনে এ চুক্তির প্রয়োজন ছিল। নিরাপত্তার স্বার্থে এ কাজগুলো করতে হবে।

তিনি বলেন, আজ মঙ্গলবার থেকে এ চুক্তির বাস্তবায়ন শুরু হবে। রেডলাইনের মোট ২৯ জন জনবল বিমানবন্দরে মোতায়েন থাকবে।

এ চুক্তির ফলে কার্গো নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করা হবে কিনা প্রশ্ন করা হলে মেনন বলেন, আমরা আশা করছি। তবে এতে কিছুটা সময় লাগবে।

উল্লেখ্য, গত ৮ মার্চ শাহজালাল বিমানবন্দর থেকে বিমানের সরাসরি কার্গো ফ্লাইট বন্ধ করে দেয় য্ক্তুরাজ্য। এতে ব্যাপক বাণিজ্যিক ক্ষতির মুখে পড়ে এই সমস্যা সমাধানে উদ্যোগী হয় সরকার। এরপর যুক্তরাজ্য তাদের দেশের ৪টি পরামর্শ কোম্পানির নাম প্রস্তাব করে। রবিবার ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির বৈঠক ডেকে রেডলাইন এ্যাভিয়েশন সিকিউরিটিকে ৭৩ কোটি টাকায় নিরাপত্তা ব্যবস্থা উন্নয়নের কাজ দেয়ার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।