২০ আগস্ট ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

ব্যক্তিগত হতাশা থেকে বিমান ছিনতাই ॥ ছিনতাইকারী দেখতে চেয়েছেন সাবেক স্ত্রীকে

ব্যক্তিগত হতাশা থেকে বিমান ছিনতাই ॥ ছিনতাইকারী দেখতে চেয়েছেন সাবেক স্ত্রীকে

ব্যক্তিগত হতাশা থেকে বিমান ছিনতাই ॥ ছিনতাইকারী দেখতে চেয়েছেন সাবেক স্ত্রীকে

অনলাইন রিপোর্টার ॥ মিসরের আলেকজান্দ্রিয়া থেকে কায়রোগামী 'ইজিপ্টএয়ারের' অভ্যন্তরীণ রুটের একটি যাত্রীবাহী বিমান ছিনতাই হয়েছে। বিমানটিকে সাইপ্রাসের লারনাকা বিমানবন্দরে অবতরণে বাধ্য করা হয়েছে। সিএনএন, বিবিসিসহ আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমের দেয়া তথ্যে জানা গেছে,

সাইপ্রাসে নিয়ে যাওয়ার পর অধিকাংশ যাত্রীকে ছেড়ে দিয়েছে ছিনতাইকারী, যিনি ‘ব্যক্তিগত সম্পর্কের হতাশা থেকে’ এই কাণ্ড ঘটিয়েছেন বলে কর্তৃপক্ষের ধারণা।

আন্তর্জাতিক গণমাধ্যম আরো জানিয়েছে, ওই ছিনতাইকারী তার সাবেক স্ত্রীর সঙ্গে কথা বলতে চেয়েছেন। সাইপ্রাসের নাগরিক সেই নারী ইতোমধ্যে লারনাকা বিমানবন্দরের উদ্দেশ্যে রওনা হয়েছেন। সাইপ্রাসের প্রেসিডেন্ট নিকোস আনাস্তাসিয়াদেস বিবিসিকে জানিয়েছেন, ‘এটা সন্ত্রাসবাদ জাতীয় কোনো ঘটনা নয়।’ মঙ্গলবার স্থানীয় সময় সকাল ৮টায় আলেকজান্দ্রিয়া থেকে রওনা হয়ে কায়রো যাওয়ার পথে ইজিপ্টএয়ারের অভ্যন্তরীণ রুটের ফ্লাইটটি ছিনতাই হয়।

এয়ারবাস এ৩২০ মডেলের ওই বিমানে ৮১ জন যাত্রী ছিলেন বলে বিবিসির খবর।

ছিনতাই হওয়ার পর ফ্লাইট এমএস ১৮১ কে সাইপ্রাসে নিয়ে দক্ষিণাঞ্চলীয় বন্দর শহর লারনাকার বিমানবন্দরে নামতে বাধ্য করা হয়।

ওই বিমানের পাইলট ওমর আল-জামালের বরাত দিয়ে মিশরের সিভিল এভিয়েশন কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, যাত্রীদের মধ্যে থেকেই একজন উঠে এসে বিস্ফোরক বেল্ট দেখিয়ে হুমকি দেয় এবং লারনাকায় নামতে বাধ্য করে। অবশ্য সেই ছিনতাইকারীর বেল্টে সত্যিই বিস্ফোরক আছে কি না- তা নিশ্চিত করতে পারেননি সাইপ্রাসের কর্মকর্তারা। সিভিল এভিয়েশন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে প্রাথমিক আলোচনার পর ক্রু ও চার বিদেশি যাত্রীকে রেখে ছিনতাইকারী বাকিদের ছেড়ে দেয় বলে জানায়।

এই পরিস্থিতিতে লারনাকা বিমানবন্দরে বিমান ওঠানামা বন্ধ করে দিয়ে সাইপ্রাসমুখী সব বিমানকে অন্য দিকে পাঠিয়ে দেওয়া হয় বলে বিবিসি জানিয়েছে।