২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

স্বাস্থ্য সেক্টরে তথ্য প্রযুক্তির ব্যবহার বেড়েছে ॥ নাসিম

স্টাফ রিপোর্টার ॥ সাধারণ মানুষের দোরগোড়ায় স্বাস্থ্যসেবা পৌঁছে দিতে ডিজিটাল স্বাস্থ্যসেবা কার্যক্রম কার্যকর ভূমিকা রাখছে বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম। তিনি বলেন, স্বাস্থ্য সেক্টরে তথ্য ও প্রযুক্তির সঠিক ব্যবহার অনেক বেড়েছে। পুরোদমে এগিয়ে চলছে স্বাস্থ্য খাতে ডিজিটাল বাংলাদেশ কার্যক্রম। মাঠপর্যায়ে বিতরণ করা হয়েছে ল্যাপটপ ও ট্যাবলেট কম্পিউটার। গ্রাম এলাকার প্রতিদিনের স্বাস্থ্যসেবা কার্যক্রমের সব পরিসংখ্যান তাৎক্ষণিকভাবে কেন্দ্রীয়ভাবে মনিটরিং করা সম্ভব হচ্ছে। মঙ্গলবার মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে স্বাস্থ্য অধিদফতরের ইলেক্ট্রনিক গভর্নমেন্ট পোর্টাল (ইজিপি) উদ্বোধনকালে স্বাস্থ্যমন্ত্রী এ কথা বলেন। এ সময় স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রী জাহিদ মালেক, স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডাঃ দীন মোঃ নুরুল হক, পরিবার পরিকল্পনা অধিদফতরের মহাপরিচালক মোহাম্মদ ওয়াহিদ হোসেন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

মোহাম্মদ নাসিম বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে সরকার বিভিন্ন খাতে ই-টেন্ডারিং চালু করছে। তার ধারাবাহিকতায় স্বাস্থ্য অধিদফতরে ইজিপি চালু করা হলো। এর মধ্য দিয়ে স্বাস্থ্য খাতের কার্যক্রমের দক্ষতা, গতিশীলতা আরও বাড়বে। পাশাপাশি স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা নিশ্চিত করা সম্ভব হবে। এ সময় স্বাস্থ্যমন্ত্রী সংশ্লিষ্ট সকলকে ই-টেন্ডারিং পক্রিয়াকে সহজলভ্য করতে সচেষ্ট হওয়ার নির্দেশ দেন।

আন্তর্জাতিক পুরস্কার পেলেন সারা হোসেন

কূটনৈতিক রিপোর্টার ॥ বিশিষ্ট আইনজীবী ও মানবাধিকার কর্মী ব্যারিস্টার সারা হোসেনকে ২০১৬ সালের আন্তর্জাতিক নারী সাহসিকতার পুরস্কারে ভূষিত করেছে যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র দফতর। মঙ্গলবার ওয়াশিংটনে সারা হোসেনের হাতে যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী জন কেরি পুরস্কার তুলে দেন। সারা হোসেন ছাড়াও এ বছর বিশ্বের ১৩ নারী ওই পুরস্কার পেয়েছেন।

ঢাকায় যুক্তরাষ্ট্র দূতাবাস মঙ্গলবার এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানায়, সারা হোসেন যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র দফতরের আন্তর্জাতিক নারী সাহসিকতার (ইন্টারন্যাশনাল উইমেন অব কারেজ এ্যাওয়ার্ডÑআইডব্লিউওসি) পুরস্কার নিতে যুক্তরাষ্ট্রে রয়েছেন। নিজের জীবনের ঝুঁকি নিয়েও শান্তি, ন্যায় বিচার, মানবাধিকার, লিঙ্গ সমতা এবং নারীর ক্ষমতায়নে অবদান রাখা নারীদের অসাধারণ সাহসিকতা ও নেতৃত্বের স্বীকৃতি হিসেবে প্রতিবছর এ পুরস্কার দেয়া হয়।

বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকদের কর্মসূচী প্রত্যাহার

বিশ্ববিদ্যালয় রিপোর্টার ॥ অষ্টম জাতীয় বেতন কাঠামোতে বৈষম্যদূরীকরণসহ অন্যান্য দাবিতে দীর্ঘ ১০ মাস ধরে চলমান পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকদের আন্দোলনের কর্মসূচী প্রত্যাহার করা হয়েছে। দাবি আদায় হওয়ায় আন্দোলন প্রত্যাহার করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশ পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি ফেডারেশনের মহাসচিব অধ্যাপক এ এস এম মাকসুদ কামাল। মঙ্গলবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক ক্লাবে অনুষ্ঠিত এক সংবাদ সম্মেলন থেকে এ ঘোষণা দেয়া হয়। এর আগে ৩৭টি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক নেতাদের মধ্যে একটি বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। সংবাদ সম্মেলনে ফেডারেশনের সভাপতি অধ্যাপক ফরিদ উদ্দিন আহমেদ, শিক্ষক নেতা এ জে এম শফিউল আলম ভূঁইয়াসহ বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন। এ সময় সংগঠনের মহাসচিব অধ্যাপক এএসএম মাকসুদ কামাল বলেন, বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকদের গ্রেড ৩ থেকে ১ এ যাওয়ার প্রধান যে দাবি ছিল সেটি বাস্তবায়নে এখন আর কোন প্রতিবন্ধকতা নেই।