২২ অক্টোবর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

বিজেপি ক্ষমতায় এলে অসম চালাবে আরএসএস

  • দিফুরের জনসভায় রাহুল গান্ধী

বিজেপি অসমে ক্ষমতায় এলে সরকার চালানো হবে নাগপুরের রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সংঘতের (আরএসএস) প্রধান কার্যালয় বা প্রধানমন্ত্রীর দফতর থেকে। অতএব বিজেপিকে বর্জন করুন। ভারতের উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় রাজ্য অসমের দিফুরে মঙ্গলবার এক জনসভায় ভোটারদের কাছে এভাবেই আবেদন জানালেন কংগ্রেসের সহসভাপতি রাহুল গান্ধী। খবর আজকালের।

রাহুল বলেন, বিপদ শুধু সেখানেই নয়। কংগ্রেসের এতদিনের শাসনকালে যে শান্তির পরিবেশ গড়ে উঠেছে, তা নষ্ট করবে বিজেপি। ভাষা, সংস্কৃতির ওপরেও আক্রমণের আশঙ্কাও থাকবে। তিনি বলেন, প্রথমে তারা আপনাদের ভোট চাইবে। যদি জিতে যায়, তাহলে তারা এখান থেকে নয়, অসমের শাসন চালাবে নাহপুর অথবা প্রধানমন্ত্রীর দফতর থেকে। বিজেপির সঙ্গে সহিংসতাকে জড়িয়ে কংগ্রেস সহসভাপতি বলেন, বিজেপি যেখানেই যায়, সেখানেই মানুষে মানুষে সংঘাত বাধিয়ে দেয়ার চেষ্টা করে। হরিয়ানাতেই দেখুন। সেখানে কংগ্রেসের শাসনকালে শান্তি ছিল। বিজেপি সরকারে আসার কয়েক মাসের মধ্যে জাঠ ও অন্য সম্প্রদায়ের মধ্যে বিভাজন তৈরি হয়েছে। বিহার বিধানসভা নির্বাচনের আগে তারা হিংসা ছড়াতে চেয়ে ব্যর্থ হয়েছে। এখন বিজেপি অসমের শান্তিভঙ্গ করতে চাইছে। তারা অসমের কথা ভাবে না। তাদের একটাই উদ্দেশ্য, যেনতেন প্রকারণে আরএসএসের মতবাদ প্রতিষ্ঠা করা। কংগ্রেস জাতি, ধর্ম নির্বিশেষে সবাইকে নিয়ে চলতে পারে, এই দাবি করে রাহুল বলেন, বিজেপির জোর করে চাপিয়ে দেয়া মতবাদে দেশের বিভিন্ন প্রান্তের ভাষা, সংস্কৃতি, ইতিহাস, ঐতিহ্য বিলুপ্ত হয়ে যাবে। আরএসএস গোটা দেশে একটাই মত চাপিয়ে দিতে চাইছে। কিন্তু অসমের মতো নানা ধর্ম-ভাষা-সংস্কৃতির রাজ্যে তা বিপজ্জনক। অসমের মতো বৈচিত্র্যপূর্ণ রাজ্য শাসন করা খুব কঠিন। তার জন্য দরকার অভিজ্ঞতা আর মানুষের প্রতি ভালবাসা। তার মতে, ওই দুটোই বিজেপির নেই। তিনি বলেন, কথা না রাখায় বিহারের মানুষ প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে পরাস্ত করেছেন। অসমবাসীও তাই করবেন। মোদিকে পুঁজিপতিদের নেতা বলে মন্তব্য করে রাহুল প্রশ্ন তোলেন, ১৫ লাখের স্যুট পরে বড়লোকদের সঙ্গে সেলফি তোলা মোদি কখনও কৃষক বা গরিবের সঙ্গে কেন সেলফি তোলেন না?