২১ নভেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

ইন্টারনেট ব্রাউজে ৩৩০ কোটি টাকা সাশ্রয়

অর্থনৈতিক রিপোর্টার ॥ মোবাইলের জনপ্রিয় ওয়েব ব্রাউজার অপেরা মিনি বাংলাদেশের ইন্টারনেট ডাটা খরচের বিপুল অর্থ সাশ্রয় করেছে। বাংলাদেশী মুদ্রায় এর অর্থমূল্য প্রায় ৩.৩ বিলিয়ন টাকা। অর্থাৎ ৩৩০ কোটি টাকা। কমপ্রেশন টেকনোলজির মাধ্যমে সর্বোচ্চ ৯০ ভাগ ডাটার ব্যবহার কমিয়ে বিপুল এই অর্থের অপচয় রোধ করা হয়েছে। অপেরা নিজেদের প্রতিবেদনে এ তথ্য প্রকাশ করেছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়, ২০১৫ সালে দেশী ব্যবহারকারীদের প্রায় এক কোটি ১০ লাখ ৮৯ হাজার ২৬৩ গিগাবাইট বা ১০ টেরাবাইটের সমতুল্য ডাটার ব্যবহার হ্রাস করেছে। গড়ে ১ জিবি ৩০০ টাকা ধরে এর অর্থমূল্য দাঁড়ায় ৩.৩ বিলিয়ন টাকা।

প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, মোবাইল ফোনে এ্যাপটি ব্যবহারকারীদের গড়ে প্রতি দশটি ওয়েবপেইজ ভিউয়ের মধ্যে আটটিই ফেসবুকডটকম। ফেসবুকে যে ডাটা খরচ হচ্ছে তা মোট ডাটার ৬৫ ভাগ। জনপ্রিয় এই সামাজিক নেটওয়ার্কের পরই রয়েছে গুগলের অবস্থান। তারপর ক্রিকবাজডটকম। অপেরা জানায়, বাংলাদেশী ব্যবহারকারীদের অর্ধেকের বেশি স্মার্টফোন ব্যবহার করে। অপারেটিং সিস্টেমের (ওএস) এক পরিসংখ্যানে দেখা গেছে, ব্যবহারকারীদের ৫৩ ভাগ এ্যান্ড্রয়েড, ৪৫ ভাগ বেসিক, ২ ভাগ আইওএস এবং উইন্ডোজ ফোন ব্যবহার করে। এ্যান্ড্রয়েডের মধ্যে স্যামসাং ও সিম্ফনির গ্রাহকই বেশি। বেসিক ফোন ইউজারের মধ্যে নকিয়া এখনো জনপ্রিয়।

ইউজারের পছন্দের শীর্ষ ৫০টি ওয়েবসাইট পর্যালোচনায় দেখা গেছে, এদের ৪৪ ভাগই সংবাদভিত্তিক ওয়েবসাইট। অন্যান্য দেশের তুলনায় এই হার অনেক বেশি। দেশী সংবাদ জানার প্রবল এই আগ্রহ অপেরার অন্য যে কোন মার্কেটের তুলনায় উল্লেখযোগ্য। নিউজ সাইটের পরে বেশি ভিজিট করা হয় ডাউনলোড পোর্টাল (২১ ভাগ) এবং সোশ্যাল নেটওয়ার্কিং সাইট (১৪ ভাগ)।

অপেরার দণি এশিয়া এবং দণিপূর্ব এশিয়ার ভাইস প্রেসিডেন্ট সুনিল কামাথ বলেন, ‘বিশ্বের শীর্যস্থানীয় পাঁচটি মার্কেটের মধ্যে বাংলাদেশ অন্যতম। গত কয়েক বছর ধরে দেশটিতে মোবাইল ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর সংখ্যা দিন দিন বাড়ছে। নিঃসন্দেহে ফেসবুকের মতো সোশ্যাল নেটওয়ার্কিং সাইটের কারণে ব্যবহারকারী বাড়ছে। পাশাপাশি এ্যান্ড্রয়েড হ্যান্ডসেটের সহজলভ্যতা এবং লোকাল অপারেটরদের চেষ্টা এই হার বৃদ্ধিতে সাহায্য করছে। কামাথ আরও বলেন, ‘মোবাইল নেটওয়ার্কিং কন্ডিশন এবং ডিভাইসের মাধ্যমে অধিকাংশ ¯'ানে আরও বেশি সংখ্যক মানুষের কাছে ইন্টারনেটের পৌঁছে দেয়াই অপেরার মূল ল্য।’

নতুন মূসক আইন বাস্তবায়নে সচেতনতা বৃদ্ধির পরামর্শ

অর্থনৈতিক রিপোর্টার ॥ নতুন মূসক ও সম্পূরক শুল্ক আইন বাস্তবায়নে করদাতা ও ব্যবসায়ীদের সচেতনতা বাড়ানোসহ সাইবার সিকিউরিটি জোরদারের পরামর্শ দিয়েছেন অর্থ মন্ত্রণালয়ের বিভিন্ন বিভাগের সচিবরা। গত মঙ্গলবার ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউটে ভ্যাট অনলাইন প্রকল্প বাস্তবায়ন সংক্রান্ত এক সভায় এসব পরামর্শ দেন তারা। সভায় এনবিআর চেয়ারম্যান নজিবুর রহমান জানান, অর্থমন্ত্রীর নির্দেশনা অনুযায়ী নতুন ভ্যাট আইন বাস্তবায়নে স্বচ্ছ ব্যবস্থা চালুর পাশাপাশি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের প্রশিক্ষণ দেয়া হয়েছে। এ সময় তিনি ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে সংগৃহীত ভ্যাটের হিসাব সংরক্ষণের আহ্বান জানান।