১৮ অক্টোবর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

উবাচ

ক্ষিপ্ত রিজভী!

স্টাফ রিপোর্টার ॥ হঠাৎ করেই ক্ষেপে গেলেন তিনি। বড় বড় চোখ কপালে উঠল। কুচকে গেল ভ্রু। মহা ক্ষ্যাপা। নিজেদের অপরাধ ঢাকতে সরাসরি প্রধানমন্ত্রীকে দায়ী করে বসলেন সদ্য দায়িত্ব পাওয়া বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী আহমেদ। কারণ একটি মামলায় দলের ভারমুক্ত মহাসচিবকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। মহাসচিব বলে কথা। দলের মুখপাত্র। তাকে জেলে দেয়া হবে। সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব মুখে তালা দিয়ে থাকবেন। তা হতে পারে না। কাউকে দোষারোপ করবেন না! এটা কি সম্ভব। মোটেও না। তাই কাজের কাজটি করেছেন তিনি। হয়ত তার মতে সঠিক দায়িত্বই পালন করেছেন রিজভী।

বুধবার মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরকে কারাগারে পাঠানোর পর সংবাদ সম্মেলন করেন রিজভী। তিনি বলেন, বিএনপি মহাসচিবকে কারাগারে পাঠিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জঘন্য কাজ করেছেন! ফখরুলের গ্রেফতারের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে তিনি বলেন, সকল মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার করে মির্জা ফখরুলের নিঃশর্ত মুক্তি দিতে হবে। অন্যথায় আলাপ-আলোচনা করে কর্মসূচী ঘোষণা করা হবে।

রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে তাৎক্ষণিক সংবাদ সম্মেলনে তিনি আরও বলেন, এটা শুধু মির্জা ফখরুলকে জেলে পাঠানো নয়, পুরো বিএনপির ওপর নগ্ন হস্তক্ষেপ। নতুন মহাসচিব দায়িত্ব নিলে নতুন করে মেরুকরণ হবে। তাই তাকে জেলে পাঠানো হয়েছে। তাকে ফুল দিয়ে অভিনন্দন জানানোর জন্য নেতাকর্মীরা কার্যালয়ে অপেক্ষা করছিল সেই সুযোগটুকু দেয়া হয়নি।

দূর থেকে শুভেচ্ছা!

স্টাফ রিপোর্টার ॥ ভারে ভারে কেটেছে পাঁচ বছর। দীর্ঘ সময়ের ভারমুক্ত হওয়া সম্ভব হয়নি। না। এটি ওজনের কোন বিষয় নয়। রাজনৈতিক দলের পদ-পদবির কথা। অর্থাৎ ভারপ্রাপ্ত পদ। সম্প্রতি অনুষ্ঠিত হলো বিএনপির কেন্দ্রীয় কাউন্সিল। অধিবেশন শেষ। কেটেছে কয়েকদিন। তারপর ঘোষণা এলো দলের মহাসচিবের নাম। মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরকে করা হয় বিএনপির নতুন মহাসচিব। এর মধ্য দিয়ে দীর্ঘদিনের ভারের বোঝা থেকে মুক্ত হলেন তিনি। এতে দল ও মতের পার্থক্য থাকলেও রাজনৈতিক সহকর্মীরা খুশি হয়েছেন।

অন্য দলের নেতা হলেও ফখরুলকে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন অনেকে। জানিয়েছেন অভিনন্দন। তবে একটু ব্যতিক্রমী শুভেচ্ছা জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ও সড়ক পরিবহনমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। ফুলও কেনেননি তিনি। ফখরুলের সঙ্গে সাক্ষাতও করেননি। দূর থেকে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন। সফলতা কামনা করেছেন। এ নিয়ে রাজনীতির মাঠে মুখরোচক বেশ আলোচনা। অনেকেই বলছেন, দূর থেকে শুভেচ্ছা জানানো হলেও এটি ইতিবাচক। কেউ প্রশংসা করছেন। কেউবা হাস্যরস হিসেবে বিষয়টিকে দেখছেন।

বুধবার চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবে চট্টগ্রাম সাংবাদিক ইউনিয়নের দ্বিবার্ষিক সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্য দেয়ার সময় ওবায়দুল কাদের এ শুভেচ্ছা জানান। তিনি বলেন, বিএনপির নতুন মহাসচিবকে শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানাই। তারা সফলতা কামনা করি।

ডেপুটি স্পীকারের চ্যালেঞ্জ

স্টাফ রিপোর্টার ॥ জিয়াউর রহমানের স্বাধীনতার ঘোষণা নিয়ে চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিলেন জাতীয় সংসদের ডেপুটি স্পীকার এ্যাডভোকেট ফজলে রাব্বি। তবে তার এ চ্যালেঞ্জ জিয়াকে স্বাধীনতার ঘোষক দাবিদারদের পক্ষে নয়। ডেপুটি স্পীকার এ্যাডভোকেট ফজলে রাব্বি বলেছেন, স্বাধীনতার ঘোষণা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান দিয়েছেন। তবে বিএনপি-জামায়াত অপপ্রচার চালাচ্ছে জিয়াউর রহমান স্বাধীনতার ঘোষক।

কেবল তাই নয় ডেপুটি স্পীকার চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিয়ে বলেন, জিয়াউর রহমান স্বাধীনতার ঘোষক কেউ এর প্রমাণ দিতে পারলে তিনি রাজনীতি ছেড়ে দেবেন। বুধবার দুপুরে গাইবান্ধার সাঘাটা উপজেলার উদয়ন বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের ২৫ বছর পূর্তি অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। তিনি আরও বলেন, শেখ হাসিনার বিশেষ উদ্যোগ হলো ২০২১ সালের মধ্যে দেশকে মধ্যম আয়ের দেশে পরিণত করা। কিন্তু আমি আশা করছি দেশ যেভাবে এগিয়ে যাচ্ছে, তাতে ২০২১ সালের আগেই মধ্যম আয়ের দেশে পরিণত হবে। শুধু তাই নয়, ২০৪১ সালের আগেই এশিয়ার মধ্যে বাংলাদেশ হবে একটি উন্নত দেশ। বিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি শাহাদত হোসেনের সভাপতিত্বে আরও বক্তব্য রাখেন জেলা প্রশাসক মোঃ আব্দুস সামাদ, সাঘাটা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এএইচএম গোলাম শহীদ রঞ্জু, সাঘাটা উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) মোঃ সফিউজ্জামান ভূঁইয়া, ভাইস চেয়ারম্যান মহিবুল ইসলাম নয়ন, এলজিইডির নির্বাহী প্রকৌশলী মোঃ মাকছুদুল হক প্রমুখ।