২০ অক্টোবর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

তনুর পরিবারকে ন্যায়বিচারের আশ্বাস দিলেন সেনাপ্রধান

তনুর পরিবারকে ন্যায়বিচারের আশ্বাস দিলেন সেনাপ্রধান

নিজস্ব সংবাদদাতা, কুমিল্লা, ৩১ মার্চ ॥ সোহাগী জাহান তনুর পরিবারকে ন্যায় বিচারের আশ্বাস দিলেন বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর প্রধান জেনারেল আবু বেলাল মোহাম্মদ শফিউল হক। বৃহস্পতিবার তিনি হেলিকপ্টারযোগে কুমিল্লা সেনানিবাসে আসেন এবং তনু হত্যাকা-ের ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। পরে তিনি তনুর পরিবারের বাসায় গিয়ে তাদের খোঁজখবর নেন। সেনাপ্রধান তনুর পরিবারকে হত্যাকা-ের বিষয়ে ন্যায় বিচার নিশ্চিত করতে যা যা করণীয় তা করা হবে বলে আশ্বস্ত করেন। এ সময় অন্যান্যের মধ্যে ছিলেন কুমিল্লা সেনানিবাসের জিওসি মেজর জেনারেল এনায়েত উল্লাহ, স্টেশন কমান্ডার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল কাজী শওকত আলমসহ পদস্থ কর্মকর্তাবৃন্দ। এসব কথা সাংবাদিকদের জানিয়েছেন তনুর বাবা কুমিল্লা ক্যান্টনমেন্ট বোর্ডের অফিস সহায়ক ইয়ার হোসেন।

হত্যাকারীদের বিচারের আওতায় আনতে হবে ॥ মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যান ড. মিজানুর রহমান বলেছেন, তনু হত্যাকারীরা যতই প্রভাবশালী হোক তাদের বিচারের আওতায় আনতে হবে। তনুর হত্যাকা-ে জড়িত অপরাধীকে চিহ্নিত করে বিচারের আওতায় নিয়ে আসতে হবে। দ্বিতীয়বার ময়নাতদন্ত হলে জনগণের প্রশ্ন দেখা দেয়। প্রথম রিপোর্ট এবং দ্বিতীয় রিপোর্ট যেন বাড়তি প্রশ্নের উদ্রেক না করে। এমন কিছু করা যাবে না যাতে তদন্ত কার্যক্রম ব্যাহত হয়। তিনি বলেন, যে মর্মান্তিক ঘটনাটি ঘটেছে, এর ফলে আমরা এবং তাদের (সেনাবাহিনী) নিয়ে বিভেদ প্রত্যাশিত হবে না। দেশবাসী দেখতে চায়, প্রকৃত অপরাধীকে শনাক্ত করা হয়েছে এবং ন্যায় বিচার প্রক্রিয়ার মাধ্যমে প্রচলিত বিদ্যমান আইনে তাদের দ- দেয়া হয়েছে। এর বাইরে অন্য যেকোনভাবে বিভেদ সৃষ্টির চেষ্টা বৃহত্তর জাতীয় স্বার্থে কাক্সিক্ষত নয়। তিনি বৃহস্পতিবার দুপুরে কুমিল্লা সার্কিট হাউজে এক প্রেস ব্রিফিংয়ে এসব কথা বলেন। এর আগে তিনি তনু হত্যাকা-ের ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন এবং তার বাবা-মাকে সমবেদনা জানিয়ে মামলার সুষ্ঠু তদন্তের আশ্বাস দেন।

তনুর দ্বিতীয় ময়নাতদন্ত সম্পর্কে ড. মিজান বলেন, এটা নিয়ে প্রশ্ন উঠবে, কেন দ্বিতীয়বার ময়নাতদন্ত করা হচ্ছে। কমিশন মনে করে দ্বিতীয়বার ময়নাতদন্তের প্রয়োজন ছিল। কেননা প্রথমবারে সব প্রশ্নের উত্তর পাওয়া যায়নি। অনেকের মনে অনেক প্রশ্ন ছিল। তিনি বলেন, লক্ষ্য রাখতে হবে দ্বিতীয় ময়নাতদন্ত যেন বাড়তি কোন প্রশ্ন উত্থাপন যেন না করে- বরং সব প্রশ্নের উত্তর যেন পাওয়া যায়। তিনি বিচারক ও তদন্তকারী কর্মকর্তাদের আহ্বান জানান, প্রথমবার ময়নাতদন্তের সময় যদি কোন গাফিলতি বা তথ্য গোপনের চেষ্টা হয়ে থাকে তবে এর সঙ্গে যারা যুক্ত তাদের বিচারের আওতায় আনুন। ড. মিজান আরও বলেন, তনুর পরিবারকে সাহায্য করা উচিত। ন্যায়বিচারের নামে বা তথ্য সংগ্রহের নামে তাদের যেন হয়রানির শিকার হতে না হয় সেদিকে সবাইকে লক্ষ্য রাখতে হবে।

চারটি সিমের কললিস্ট সংগ্রহ ॥ তদন্তকারী সংস্থাগুলো তনুর ব্যবহৃত দুটি মোবাইল ফোনের চারটি সিমের কললিস্ট ইতোমধ্যে সংগ্রহ করেছে। ঘটনার দিন সন্ধ্যায় সর্বশেষ তার মোবাইলে কল আসে। এসব কললিস্টের সূত্র ধরে তদন্ত কাজ চলছে বলে জানা গেছে। এদিকে মামলা হস্তান্তরের বিষয়ে জানতে চাইলে ডিবি’র ওসি একেএম মনজুর আলম জানান, বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় তনু হত্যা মামলার ডকেট সিআইডিতে হস্তান্তর করা হয়েছে। সিআইডি’র পরিদর্শক গাজী ইব্রাহীম এ মামলাটি তদন্ত করবেন বলে জানা গেছে।

এই মাত্রা পাওয়া