১৮ নভেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

এপ্রিলে দেশে স্বাভাবিক অপেক্ষা কিছুটা বেশী বৃষ্টিপাত হবে

স্টাফ রিপোর্টার ॥ চলতি মাসে দেশে স্বাভাবিক অপেক্ষা কিছুটা বেশী বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা আছে। সৃষ্টিতে হতে পারে নিম্নচাপ, ঘূর্ণিঝড় ও তীব্র তাপপ্রবাহ। বর্তমানে উত্তর বঙ্গোপসাগর এলাকায় গভীর সঞ্চালনশীল মেঘমালার সৃষ্টি হওয়ায় উপকূলীয় এলাকা এবং সমুদ্র বন্দরগুলোর উপর দিয়ে ঝড়ো হাওয়া বয়ে যেতে পারে। এ কারণে চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, মংলা ও পায়রা সমুদ্র বন্দরকে তিন নম্বর স্থানীয় সতর্ক সংকেত দেখিয়ে যেতে বলেছে আবহাওয়া অধিদফতর। কয়েকদিন ধরে অব্যাহত থাকা বৃষ্টি দেশের বোরো আবাদে উপকারে আসবে বলে জানিয়েছেন কৃষি বিশেষজ্ঞরা।

চত্রে বর্ষার আমেজ ! তবে এটাকে আবহাওয়ার স্বাভাবিক আচরণ বলে জানিয়েছেন আবহাওয়াবিদরা। গত কয়েকদিন ধরে রাজধানীসহ দেশের অধিকাংশ স্থানে বৃষ্টিপাত অব্যাহত রয়েছে। এমন অবস্থা আরও কয়েকদিন থাকতে পারে। সারাদেশে গত বৃহস্পতিবার রাত থেকে শুক্রবার সন্ধ্যা ৬ টা পর্যন্ত হয়েছে প্রায় ১ হাজার মিলিমিটার বৃষ্টিপাত।

আবহাওয়াবিদরা বলছেন, এ বছর খুব বেশি চৈত্রের খরা পোহাতে হয়নি দেশের মানুষকে। এ পর্যন্ত দেশের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ৩৮ ডিগ্রী সেলসিয়ামের মধ্যেই রয়ে গেছে। এ সময় যেকোন সময় দেখা দিতে পারে কালবৈশাখী ঝড়, সঙ্গে থাকতে পারে বৃষ্টি। গত বছরও এপ্রিলের ১ ও ২ তারিখে খরতাপ থাকলেও পরদিন থেকেই নেমে আসে মাঝারি থেকে ভারি বর্ষণ। এবছরও এর ব্যতিক্রম হচ্ছে না। গত কয়েকদিন ধরে দেশের অধিকাংশ এলাকায় ঝড়ো হাওয়াসহ বৃষ্টিপাত হচ্ছে। এটি এই সময়ে আবহাওয়ার স্বাভাবিক আচরণ। আর ক’দিন পরই বাড়তে থাকবে তাপমাত্রা। এই মাসে দেশের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ৪০ ডিগ্রী সেলসিয়াস ছাড়িয়ে যেতে পারে বলে জানিয়েছে আবহাওয়া অফিস।

ঝড়ো হাওয়ার কারণে উত্তর বঙ্গোপসাগরে অবস্থানরত মাছ ধরার নৌকা ও ট্রলারগুলোকে পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত উপকূলের কাছাকাছি থেকে সাবধানে চলাচল করতে আবহাওয়া অধিদফতর। সূত্রটি আরো জানায়, চলতি মাসে বঙ্গোপসাগরে ১ থেকে ২ টি নিম্নচাপ সৃষ্টি হতে পারে। এর মধ্যে একটি ঘূর্ণিঝড়ে রূপ নিতে পারে। দেশের উত্তর, উত্তর-পূর্বাঞ্চল ও মধ্যাঞ্চলে ২ থেকে ৩দিন বজ্রসহ মাঝারী থেকে তীব্র কালবৈশাখী অথবা বজ্র-ঝড় ও দেশের অন্যত্র ৩ থেকে ৪দিন হালকা থেকে মাঝারী কালবৈশাখী অথবা বজ্রঝড় হতে পারে। দেশের উত্তর, উত্তর-পশ্চিম ও মধ্যাঞ্চলে একটি তীব্র ধরণের তাপপ্রবাহ এবং অন্যত্র ১ থেকে ২টি মৃদু থেকে মাঝারী ধরণের তাপ প্রবাহ বয়ে যেতে পারে।