১৬ অক্টোবর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

গাবতলী টার্মিনালে দুই ঘণ্টা যান চলাচল বন্ধ

  • নেতৃত্ব নির্বাচন নিয়ে শ্রমিকদের দু’পক্ষ মুখোমুখি অবস্থানে, সংঘর্ষের আশঙ্কা

স্টাফ রিপোর্টার ॥ নেতৃত্ব নির্বাচনের ঘটনাকে কেন্দ্র করে মুখোমুখি অবস্থানে ঢাকা জেলা যানবাহন শ্রমিক ইউনিয়নের (রেজিঃনং-৯৭৪) নেতাকর্মীরা। একপক্ষের শনিবারের ডাকা সাধারণ সভা ও সম্মেলনকে কেন্দ্র করে শুক্রবার বিকেলে অপরপক্ষ গাবতলী টার্মিনাল থেকে আন্তঃজেলা ও সিটি সার্ভিসসহ সকল ধরনের যানবাহন চলাচল বন্ধ করে দেয়। প্রায় দুই ঘণ্টা যানবাহন চলাচল বন্ধ থাকায় বিভিন্ন রুটের যাত্রীরা বিপাকে পড়েন। পরে দারুসসালাম থানা পুলিশের হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে দুপুরের পর থেকে ফের বাস চলাচল শুরু হয়।

শ্রমিক ইউনিয়নের নেতারা বলেছেন, সংগঠনের মেয়াদ শেষে গত বছরের ৫ নবেম্বর একপক্ষ সম্মেলন করে কমিটি ঘোষণা করে। এতে সভাপতি নির্বাচিত হন আব্বাস উদ্দিন। এ ঘটনার প্রেক্ষিতে অপরপক্ষ উচ্চ আদালতে গেলে হাইকোর্ট কমিটি স্থগিত করে এক সপ্তাহের মধ্যে নির্বাচনের নির্দেশ দেয়। এর পরও পরিস্থিতির উন্নতি হয়নি। আদালতের নির্দেশ অনুযায়ী আজ শনিবার শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি শওকতের নেতৃত্বে সাধারণ সভার ঘোষণা দেয়া হয়। সভা ও নির্বাচন বানচালের দাবিতে সকাল থেকে গাবতলী বাস টার্মিনালে অপরপক্ষ অবস্থান নেয়। তারা প্রতিবাদ সভা ও মিছিল শেষে টার্মিনালের সকল গেট বন্ধ করে দেয়। এতে যানবাহন চলাচল বন্ধ হয়ে যায়।

সমিতির একপক্ষের সভাপতি আব্বাস উদ্দিন বলেন, তাদের দাবি আদায় না হলে রবিবার থেকে পরবর্তী ৭২ ঘণ্টার জন্য এ টার্মিনালে বাস চলাচল বন্ধ করে দেয়া হবে। রাজধানীর দারুসসালাম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সেলিমুজ্জামান জানান, কিছুদিন আগে ঢাকা জেলা যানবাহন শ্রমিক ইউনিয়নের নির্বাচন হয়। এতে নতুন একটি কমিটি গঠিত হয়। কিন্তু পরে এ কমিটিকে পাশ কাটিয়ে আরেকটি কমিটি গঠন করা হয়। ফলে দুই কমিটির মধ্যে দ্বন্দ্বের সৃষ্টি হয়।

তিনি বলেন, ভিন্ন কমিটি গঠন করায় নির্বাচিত কমিটির নেতাকর্মীরা শুক্রবার সকালে বাস টার্মিনালে এসে প্রতিবাদ সমাবেশ করে। এর পরই এখানে বাস চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। ঢাকা জেলা যানবাহন শ্রমিক ইউনিয়নের নির্বাচিত কমিটির নেতারা বলেছেন, অন্যায়ভাবে নির্বাচিত কমিটিকে পাশ কাটিয়ে আরেকটি কমিটি গঠন করা হয়েছে। শনিবার এর বিরুদ্ধে প্রতিবাদ সমাবেশ করা হবে। আর নির্বাচিত কমিটি মেনে না নিলে রবিবার থেকে ৭২ ঘণ্টার জন্য গাবতলী টার্মিনালে বাস চলাচল বন্ধ রাখা হবে।

নির্বাচিত কমিটির সহ-সভাপতি সৈয়দ শহিদুল ইসলাম বলেন, দু’মাস আগে কমিটির নির্বাচন হয়। এ নির্বাচনে ভোটের মাধ্যমে আমরা নির্বাচিত হই। কিন্তু এ কমিটিকে মেনে না নিয়ে ভিন্ন একটি কমিটি গঠন করা হয়। যাদের নিয়ে কমিটি গঠিত হয়েছে, তারা নির্বাচনে অংশই নেয়নি।

অপরপক্ষের সভাপতি শওকত জানান, আদালত তাদের কমিটি অবৈধ ঘোষণা করেছে। আমরা আদালতের নির্দেশে নতুন করে সম্মেলন ও কমিটি গঠনের কাজ করছি। এতে তারা বাধা দিচ্ছে। তারা অবৈধভাবে সমাবেশ করে যানবাহন চলাচল বন্ধ করে দেয়। আমি ও আমাদের কমিটির সাধারণ সম্পাদককে ২৪ ঘণ্টার মধ্যে গ্রেফতারে পুলিশকে আল্টিমেটাম দেয় ওই পক্ষটি। পাশাপাশি আমাদের সাধারণ সভা করতে না দেয়ারও ঘোষণা দিয়েছে তারা। এর প্রতিবাদে আমরাও টার্মিনালে অবস্থান নিয়েছি। আব্বাস উদ্দিনকে সাভার বিএনপির সভাপতি দাবি করে তিনি বলেন, তারা এখন সরকার সমর্থক সেজে অন্যায়ভাবে সংগঠন দখল করতে চাচ্ছে। আমরা তা হতে দেব না। যে কোন মূল্যে আমরা শনিবার কমিটি করব। ইতোমধ্যে সম্মেলনের সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন বলেও জানান তিনি।