১৮ নভেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

পারিবারিক দ্বন্দ্বের বলি দুই শিশু

জনকণ্ঠ ডেস্ক ॥ এবার পারিবারিক দ্বন্দ্বের জের ধরে চট্টগ্রাম ও ঠাকুরগাঁওয়ে দুই শিশু খুন হয়েছে। হতভাগ্য এই দুই শিশুর একটির বয়স ৭ বছর এবং অন্যটির মাত্র ১৮ মাস। চট্টগ্রামের বাঁশখালী উপজেলার চাম্বল ইউনিয়নের পূর্ব চাম্বল মিঠাপাড়া এলাকায় আবুল হাশেম নামে ৭ বছরের শিশু খুনের ঘটনায় শিশুটির পরিবার অভিযোগ করেছে যে, বসতবাড়ির জায়গা নিয়ে পার্শ্ববর্তী লোকদের সঙ্গে দ্বন্দ্বের কারণে তাদের সন্তান অপহরণ ও হত্যার শিকার হয়েছে। ১ এপ্রিল সকাল ১০টার দিকে বাঁশখালী থানা পুলিশ শিশুটির ক্ষত-বিক্ষত অর্ধগলিত লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য চমেক হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করেছে। এদিকে, একই কারণে ঠাকুরগাঁওয়ে বাবার কোলে মামার আকস্মিক লাঠির আঘাতে শিশুকন্যা বিথী খুন হওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। পুলিশ শুক্রবার শিশুটির মৃতদেহ উদ্ধার করে মর্গে পাঠিয়েছে। এতে এলাকায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে। খবর নিজস্ব সংবাদদাতার।

স্থানীয় ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, বাঁশখালীর পূর্ব চাম্বল গ্রামের মিঠাপাড়া এলাকার আহমদ কবিরের পুত্র উত্তর চাম্বল সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ১ম শ্রেণীর ছাত্র শিশু আবুল হাশেম গত ২৯ মার্চ স্কুল থেকে ফিরে বাড়ির পাশে খেলা করছিল। পরে তার কোন সন্ধান না পেলে শিশুটির পিতা আহমদ কবির ৩১ মার্চ বাঁশখালী থানায় একটি ডায়েরি করেন। শুক্রবার সকালে এলাকার শিশুরা স্থানীয় সুপারি বাগান ও বাঁশ ঝাড়ের মধ্যে আম কুড়াতে গেলে সেখানে ঝোপের মধ্যে ক্ষতবিক্ষত অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখে শিশু আবুল হাশেমের লাশ। শিশুরা বিষয়টি সবাইকে জানালে এলাকাবাসী বাঁশখালী থানায় খবর দেয়। থানা পুলিশ ঘটনাস্থল হতে তার ক্ষতবিক্ষত অর্ধগলিত লাশ উদ্ধার করে।

বাবার কোলে খুন ॥ প্রত্যক্ষদর্শী ও পুলিশ জানায়, ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলার হরিহরপুর হাজীপাড়া মহল্লার ভ্যানচালক আব্দুর রাজ্জাকের মেয়ে রোজিনা আক্তার কয়েক বছর আগে ঢাকার একটি গার্মেন্টস ফ্যাক্টরিতে কাজ করতে যায়। সেখানে ফরিদপুর জেলার বেলাল হোসেনের সঙ্গে পরিচয়ের এক পর্যায়ে তাদের বিয়ে হয়। এক বছর পর রোজিনার কোল আলো করে জন্ম নেয় বিথী। কিন্তু মেয়ে সন্তান জন্ম হওয়ায় রোজিনার ওপর নেমে আসে বেলালের নিপীড়ন-নির্যাতন। রোজিনা এক পর্যায়ে কোলের শিশুকন্যাকে নিয়ে তার বাবার বাড়িতে চলে আসে। প্রায় ১ মাস পর শুক্রবার সকালে বেলাল রোজিনার বাড়িতে এসে শুধু মেয়েকে নিয়ে চলে যাওয়ার চেষ্টা করে। এতে বেলালকে রোজিনার ভাইসহ পরিবারের অন্যরা বাধা দিলে কলহের সৃষ্টি হয়। এক পর্যায়ে ক্ষিপ্ত রোজিনার ভাই আইনুল লাঠি দিয়ে বেলালকে আঘাত করতে উদ্যত হলে চতুর বেলাল তার কোলে থাকা মেয়ে বিথীকে ঢালের মতো সামনে ধরলে আইনুলের লাঠির আঘাত গিয়ে পড়ে বিথীর কানের কাছে। এতে শিশুটি জ্ঞান হারিয়ে ফেলে। দ্রুত তাকে সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক রংপুর মেডিক্যালে পাঠায়। এ সময় বেলাল হাসপাতালে গিয়ে স্ত্রী রোজিনার ওপর আবারও চড়াও হলে স্থানীয় লোকজনের তোপের মুখে সে পালিয়ে যায়। পরে রংপুর যাওয়ার পথে শিশু বিথী মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ে। পুলিশ শিশুর মৃতদেহটি উদ্ধার করে মর্গে পাঠায়। এ ঘটনায় রোজিনা তার স্বামী বেলালসহ ৩ জনকে আসামি করে হত্যা মামলা দায়ের করেছে।