১৭ নভেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

তৈরি হবে ১০ লাখ মেট্রিক টন উৎপাদনক্ষম নতুন সার কারখানা

স্টাফ রিপোর্টার ॥ কৃষকের চাহিদা বিবেচনায় ১০ লাখ মেট্রিক টন উৎপাদনক্ষম নতুন একটি সার কারখানা তৈরির উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। দেশে নতুন এই কারখানা চালু হলে সার আমদানী নির্ভরতা কমবে। সারের সুষ্ঠু সরবরাহ, বিপণন, বিতরণ ও আমদানি নিশ্চিত হওয়ায় গত ভরা মৌসুমেও দেশের কোথাও সারের সংকট হয় নি। বরং কোন কোন ক্ষেত্রে ডিলার পর্যায়ে উত্তেলিত সার রয়ে গেছে। রাজনৈতিক প্রতিকূল পরিস্থিতিতেও ডিলাররা কৃষক পর্যায়ে সার পৌঁছে দিচ্ছেন। কৃষির অন্যতম এই উপকরণ সরবরাহ ও বিপনণের ক্ষেত্রে ডিলারদের আরও সততা ও নিষ্ঠার পরিচয় দিতে হবে।

শনিবার রাজধানীর বসুন্ধরা কনভেনশন সিটিতে বাংলাদেশ ফার্টিলাইজার এসোসিয়েশন (বিএফএ)’র ২২তম বার্ষিক সাধারণ সভায় বক্তারা এসব কথা বলেন। দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে আগত সার বিক্রেতাদের (ডিলারদের) সক্রিয় অংশগ্রহণে এ সভা অনুষ্ঠিত হয়।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু বলেন, নিরবচ্ছিন্ন কৃষি উৎপাদনের স্বার্থে আমরা দেশব্যাপী সারের সুষ্ঠু সরবরাহ, বিপণন, বিতরণ ও আমদানি নিশ্চিত করেছি। গত ভরা মৌসুমে দেশের কোথাও কোন সারের সংকট হয়নি। তিনি বলেন, সার চাওয়ার দাবীতে ১৮ জন কৃষককে জীবন দিতে হয়েছিল। মৌলিক অধিকারের প্রথম অধিকার অন্ন, আর ফসল উৎপাদনের প্রধান উপকরণ সার। বিভিন্ন প্রতিকূল পরিস্থিতির মধ্যেও ডিলাররই (আপনারাই) কৃষকের কাছে সার পৌঁছে দিয়েছেন। কৃষি উৎপাদনে দেশের এই সক্ষমতা অর্জনের পেছনে আপনাদের অনেক অবদান রয়েছে। আর তাই ডিলারদের আরও বেশি সততা ও দক্ষতার পরিচয় দিতে হবে।

শিল্প সচিব মোঃ মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়া বলেন, বর্তমানে আমরা কৃষি উৎপাদন সামগ্রী রফতানি করি। দেশে থেকে চাল, সবজি ও ফল রফতানি হচ্ছে। আবার কৃষি যন্ত্রপাতিও আমাদের দেশে তৈরি হচ্ছে। কৃষক পর্যায়ে উৎকৃষ্ট মানের সার সরবরাহের ব্যাপারে সরকার সচেষ্ট। বাংলাদেশের তৈরি সার কৃষকের খুব পছন্দের। তাই সরকার কৃষকের চাহিদা বিবেচনা করে ১০ লাখ মেট্রিক টন উৎপাদক্ষম নতুন একটি সার কারখানা তৈরির উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। এরই মধ্যে নতুন এই সার করাখানার টেন্ডার আহ্বান করা হয়েছে। নতুন কারখানা চালু হলেও দেশের সার আমদানি নির্ভরতাও কমবে।

বার্ষিক সাধারণ সভায় বিএফএ’র তথ্য নির্দেশিকার মোড়ক উন্মোচন করেন প্রধান অতিথিসহ আমন্ত্রিত অতিথিরা। ওই সভায় বিএফএ’র চেয়ারম্যান কামরুল আশরাফ খান পোটনের সভাপতিত্বে আরও বক্তব্য রাখেন দি ফার্টিলাইজার এসোসিয়েশন অফ ইন্ডিয়ার চেয়ারম্যান শ্রী রাকেশ কাপুর ও বিএফএ’র পরিচালক শওকত চৌধুরি এমপি।