২২ অক্টোবর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

সুফী সাধকদের প্রদর্শিত পথেই স্থায়ী শান্তি: ইসলামী যুবসেনার কনভেনশনে বক্তারা

সুফী সাধকদের প্রদর্শিত পথেই স্থায়ী শান্তি: ইসলামী যুবসেনার কনভেনশনে বক্তারা

স্টাফ রিপোর্টার ॥ ইসলাম শান্তি ও সাম্যের ধর্ম। জঙ্গিবাদের মত ঘৃণ্য কর্মকান্ডের কোন সুযোগ ইসলামে নেই। একটি ‘বিশেষ মহল’ ইসলামের অপব্যাখ্যা করে যুব সমাজকে বিভ্রান্ত করছে। জঙ্গিবাদের সাথে সম্পৃক্ত করে ইসলাকে করছে কলঙ্কিত। তাদের ব্যাপারে সমাজের সকল মানুষের সচেতন থাকতে হবে। বাংলাদেশ অলি আউলিয়াদের দেশ। সুফি সাধকদের মাধ্যমেই এদেশে ইসলাম এসেছে। তাই সুফী সাধকদের প্রদর্শিত পথে যুব সমাজকে পরিচালিত করতে পারলে সমাজ ও রাষ্ট্রে স্থায়ী শান্তি ও শৃংখলা ফিরবে।

শনিবার সকালে রাজধানীর রমনায় ইঞ্জিনিয়ার্স ইনষ্টিটিউশন মিলনায়তনে বাংলাদেশ ইসলামী যুবসেনা আয়োজিত যুব কনভেনশন ২০১৬ উপলক্ষে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে বক্তারা এ কথা বলেন। ইসলামী যুবসেনার সভাপতি অধ্যাপক এম এ মোমেনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত যুব কনভেনশনে প্রধান অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ ইসলামী ফ্রন্টের চেয়ারম্যান আল্লামা এম এ মান্নান। প্রধান বক্তা ছিলেন ইসলামী ফ্রন্টের মহাসচিব মাওলানা এম এ মতিন। প্রধান অতিথি আল্লামা এমএ মান্নান বলেন, ইসলাম রক্ষার নামে একটি বিশেষ মহল যুব সমাজকে বিভ্রান্ত করছে। ইসলামের ভুল ব্যাখা দিয়ে তাদেরকে জঙ্গিবাদের দিকে ঠেলে দিচ্ছে। এই জঙ্গিবাদ প্রতিরোধ, সন্ত্রাস ও মাদকাসক্তি থেকে দেশের যুব সমাজকে রক্ষার জন্য তাদের মাঝে ইসলামের সঠিক শিক্ষা পৌঁছে দিতে হবে। মাওলানা এম এ মতিন বলেন, আদর্শহীন রাজনীতির কবলে পড়ে দেশের যুব সমাজ আজ ধ্বংসের পথে। ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের উল্লেখ করে তিনি বলেন, দেশে নির্বাচনের নামে প্রহসন চলছে। নির্বাচন এখন ভোট ডাকাতি, জাল ভোট আর কেন্দ্র দখলের মহোৎসবে পরিণত হয়েছে। এভাবে গণতন্ত্র টিকে থাকতে পারে না। সভাপতির বক্তব্যে অধ্যাপক এম এ মোমেন রাষ্ট্র ধর্ম ইসলাম বহাল রাখায় সরকার ও সংশ্লিষ্টদের ধন্যবাদ জানান। অনুষ্ঠানে আহলে সুন্নাত ওয়াল জামায়াত ও ইসলামী ছাত্রসেনার নেতৃবৃন্দ ও প্রখ্যাত আলেমে দ্বীনরাও বক্তব্য রাখেন।

এর আগে পবিত্র কোরআন থেকে তেলাওয়াত ও নাতে রাসূল পরিবেশনার মাধ্যমে সকাল ১০টায় যুব কনভেনশনের আনুষ্ঠানিকতা শুরু হয়। এতে দেশের বিভিন্ন জেলা প্রতিনিধি ও সংগঠকগণ যোগ দেন। অনুষ্ঠান শেষে একটি বিশাল র‌্যালি রাজধানীর বিভিন্ন স্থান প্রদক্ষিণ শেষে পুনরায় ইঞ্জিনিয়ার্স ইনষ্টিটিউশন হলে এসে শেষ হয়।