১৬ অক্টোবর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

স্বামীর সন্ধানে দ্বারে দ্বারে কাঁদছেন ফাতেমা

  • এক বছরেও খোঁজ মেলেনি অলিয়ারের

স্টাফ রিপোর্টার, বাগেরহাট ॥ মোরেলগঞ্জ উপজেলার দক্ষিণ তেলিগাতি গ্রামের আওয়ামী লীগ কর্মী কৃষক অলিয়ার ডাকুয়া (৫০) এক বছর আগে অপহৃত হলেও আজও তার কোন সন্ধান মেলেনি।

পরিবারের অভিযোগ, ঘটনার দিন একই গ্রামের মুনসুর গাজীর ছেলে জামাল গাজী (৪২) অলিয়ারকে জমি কেনাবেচার বিষয়ে দলিল দেখানোর কথা বলে খুলনায় নিয়ে যায়। তারপর থেকে কোন সন্ধান নেই । ৫ এপ্রিল মোবাইল ফোনে ২ ঘণ্টার সময় দিয়ে ২ লাখ টাকা মুক্তিপণ চায় অলিয়ারের অপহরণকারীরা। ৬ এপ্রিল জামাতা সোহাগ জিডির কপিসহ ঘটনা জানান র‌্যাব ৬ কে। গেল বছরের ২৫ মে বাগেরহাট মানবপাচার অপরাধ দমন ট্রাইব্যুনালে ৯জনের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করেন অলিয়ারের ২য় স্ত্রী ফাতেমা বেগম। অভিযোগ আমলে নিয়ে অবিলম্বে এজাহার হিসেবে গণ্য করতে মোরেলগঞ্জ থানার ওসিকে নির্দেশ দেন জেলা জজ। ওই নির্দেশের ২৭দিন পর ২২ জুন থানায় মামলাটি রেকর্ড হয়। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা খুলনা থেকে রুস্তুম আলী খান নামে একজনকে গ্রেফতার করেন। এরপরে বাদী ও তদন্তকারী কর্মকর্তার অজান্তে ১মাস ১২দিনের মাথায় মামলাটি চলে যায় খুলনা সিআইডিতে। ২য় তদন্তকারী কর্মকর্তার হাতে তদন্ত চলছে ৭ মাস ধরে। এই সময়ের মধ্যে তিনি এ মামলার প্রধান আসামি জামাল গাজীকে গ্রেফতার করে জেলহাজতে প্রেরণ করেছেন। এ সম্পর্কে এসআই আবুহেনা বলেন, মামলার তদন্ত চলছে। ১নং আসামি গ্রেফতার আছে। ভিকটিম উদ্ধার হয়নি। মামলার বাদী ফাতেমা বেগম অভিযোগ করেন যে, প্রভাবশালী আসামিরা তদ্বির করে মামলাটি সিআইডিতে নিয়েছে। এ পর্যন্ত অপহৃত আওয়ামী লীগ কর্মী অলিয়ার ডাকুয়ার কোন সন্ধ্যান দিতে পারেনি সিাইডি। আসামিদের ইচ্ছায় মামলাটি পরিত্যক্ত অবস্থায় আছে বলেও অভিযোগ ফাতেমা বেগমের। অলিয়ার ডাকুয়ার সন্ধান করতে নেমে বিভিন্ন দফতরে প্রায় ১ লাখ টাকা খরচ হয়েছে স্ত্রী-সন্তানদের।