১৬ অক্টোবর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

দশ প্রকাশনীর চৈত্রের বই উৎসব জাদুঘরে

দশ প্রকাশনীর চৈত্রের বই উৎসব জাদুঘরে
  • সংস্কৃতি সংবাদ

স্টাফ রিপোর্টার ॥ ষড়ঋতুর এই দেশে চলছে এখন বসন্তকাল। সেই সূত্রে বহমান বাংলা পঞ্জিকার শেষ মাস চৈত্র। এই মাসটিকে ধরে বইপ্রেমীদের জন্য শহরে শুরু হলো বইমেলা। দশ প্রকাশনীর সম্মিলনে জাতীয় জাদুঘরের চৈত্রে বই উৎসবের সূচনা হলো। নলিনীকান্ত ভট্টশালী গ্যালারিতে বসেছে রকমারি বইয়ের পসরা। দেখা মিলেছে গল্প, উপন্যাস, কবিতা, ভ্রমণ, আত্মজীবনী, মুক্তিযুদ্ধ থেকে শুরু বিচিত্র গ্রন্থের সম্ভার। উৎসবকে সমৃদ্ধ করতে পাঠকের মনন উপযোগী বইয়ের সঙ্গে যুক্ত হয়েছে বইকেন্দ্রিক নানা আয়োজন। শনিবার বিকেলে ১৩ দিনব্যাপী এই উৎসবের উদ্বোধন হয়। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্রের সভাপতি অধ্যাপক আবদুল্লাহ আবু সায়ীদ। বিশেষ অতিথির বক্তৃতা করেন প্রখ্যাত কথাসাহিত্যিক সেলিনা হোসেন। এছাড়াও আলোচনায় অংশ নেন বিভিন্ন প্রকাশনীর প্রকাশকসহ বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করে অ্যাডর্ন প্রকাশনীর প্রকাশক সৈয়দ জাকির হোসাইন। আবদুল্লাহ আবু সায়ীদ বলেন, বাঙালীরা চিন্তাশীল জাতি। তারা সবকিছুকে যাচাই করে নিতে ভালবাসে। ইউরোপের বাইরে শুধুমাত্র বাংলাতেই রেনেসাঁ হয়েছিল। যদিও তা ইংরেজদের মাধ্যমেই এদেশে সঞ্চারিত হয়েছিল। যে জাতির মাঝে এতদিনের জ্ঞানচর্চার ঐতিহ্য রয়েছে, বিদ্যার ঐতিহ্য রয়েছে তারা তো পিছিয়ে থাকবে না। সামনে এগুবেই। বাংলাদেশের বাঙালীরা আবারও বিশে^ নিজেদের শ্রেষ্ঠত্বের আসনে নিয়ে যাবে। তিনি আরও বলেন, প্রকৃত অর্থে বইয়ের পাঠক কমেনি। শুধুমাত্র অমর একুশে গ্রন্থমেলার বিক্রির পরিমাপ দিয়ে পাঠকের সংখ্যা নির্ধারিত হয় না। ক্রমশই জাতির মধ্যে বইয়ের প্রতি একটা মমত্ববোধ তৈরি হচ্ছে। তবে পাঠক বাড়াতে হলে শুধু ঢাকায় বইমেলা করলেই চলবে নাÑএটাকে ছড়িয়ে দিতে হবে দেশের প্রতিটি জেলা ও উপজেলায়। সব জেলা ও উপজেলার স্কুল, কলেজ ও মাদ্রাসায় বইমেলার আয়োজন করতে হবে। তাহলেই বাড়বে বই পাঠকের সংখ্যা।

বিশেষ অতিথির বক্তৃতায় সেলিনা হোসেন বলেন, ছেলে-মেয়েদের মধ্যে বই পড়ার সুযোগ বাড়াতে হবে। তাঁরা যাতে কিনতে না পারলেও পড়ার সুযোগ পায় সেই বিষয়টি বিবেচনায় নিতে হবে। তিনি আরও বলেন, অনলাইনের দাপটে যেন বইয়ের প্রতি মানুষের আগ্রহ না সে বিয়টির প্রতিও নজর দিতে হবে। কারণ, আমরা অনলাইনে বই বা পত্রিকা পড়তে চাই না। সরাসরি সখ্য গড়তে চাই বইয়ের সঙ্গে। এই প্রজšে§র ছেলে-মেয়েরা বইয়ের দিকে আগ্রহী হয়ে উঠছে, এটা আশার কথা। সারা বছরের জন্য স্থায়ীভাবে একটি বইমেলা করা প্রয়োজন।

এই দুই অতিথি ছাড়াও আলোচনায় অংশ নেন কবি আজিজুর রহমান আজিজ, জাদুঘরের মহাপরিচালক ফয়জুল লতিফ চৌধুরী, গণগ্রন্থাগার অধিদফতরের সাবেক মহাপরিচালক আলম তালুকদার। অতিথি হিসেবে আরও থাকবেন ড. রেজাউর রহমান, লেখক সুব্রত বড়ুয়া, ড. মোরশেদ শফিউল হাসান, মুহম্মদ লুৎফুল হক, কথাসাহিত্যিক আতা সরকার, কাকলী প্রকাশনীর প্রকাশক এ কে নাছির আহমদ সেলিম, অনুপম প্রকাশনীর প্রকাশক মিলনকান্তি নাথ, সময় প্রকাশনের প্রকাশক ফরিদ আহমেদ, বেঙ্গল পাবলিকেশনসের পক্ষে কালি ও কলমের সম্পাদক আবুল হাসনাতসহ নবীন-প্রবীণ লেখকবৃন্দ।

মেলায় অংশগ্রহণকারী দশটি প্রকাশনা প্রতিষ্ঠান হলোÑ অনন্যা, সময়, অ্যাডর্ন, অনুপম, কাকলী, অবসর, বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্র, বেঙ্গল পাবলিকেশন্স, ডেইলি স্টার বুকস ও প্রথমা।

বই ভেদে ৩০ থেকে ৪৫ শতাংশ ছাড়ে পাঠকরা বই সংগ্রহ করতে পারবেন এই উৎসবে। আগামী ১২ এপ্রিল পর্যন্ত চলবে এই উৎসব। প্রতিদিন সকাল ১১টা থেকে রাত আটটা পর্যন্ত খোলা থাকবে।

অটিজম দিবসের সাংস্কৃতিক পরিবেশনা ॥ বিশ্ব অটিজম সচেতনতা দিবস উপলক্ষে প্যারেন্টস ফোরাম ফর ডিফরেন্টলি এ্যাবলের সহযোগিতায় শনিবার সন্ধ্যায় বাংলাদেশ শিশু একাডেমি ¯œায়ুবিক প্রতিবন্ধকতায় আক্রান্তদের অংশগ্রহণে আলোচনা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। ¯œায়ুবিক প্রতিবন্ধকতায় আক্রান্ত শিশুদের অংশগ্রহণে কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের বিখ্যাত কবিতা ‘বীরপুরুষ’ অবলম্বনে মঞ্চস্থ হয় কাব্যনাট্য ‘ইচ্ছেঘুড়ি’। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন মহিলা ও শিশু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী মেহের আফরোজ চুমকি। বিশেষ অতিথি ছিলেন নন্দিত কথাসাহিত্যিক মুহম্মদ জাফর ইকবাল, মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব নাছিমা বেগম, কনফিডেন্স গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ইমরান করিম এবং প্যারেন্টস ফোরাম ফর ডিফরেন্টলি এ্যাবলের প্রেসিডেন্ট সাজিদা রহমান ড্যানি। স্বাগত বক্তব্য রাখেন একাডেমী পরিচালক মোশাররফ হোসেন। সভাপতিত্ব করেন একাডেমির চেয়ারম্যান কথাসাহিত্যিক সেলিনা হোসেন ।

বাণিজ্যের ঢাকা গ্রন্থের প্রকাশনা ॥ শনিবার সকালে ঢাকা ক্লাবে ইমরান উজ-জামানের বই ‘বাণিজ্যের ঢাকা’ মোড়ক উন্মোচন করা হয়। বাংলাদেশ চায়না চেম্বার অব কমার্স এ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি তাদের বার্ষিক সাধারণ সভা ও নির্বাহী সদস্যদের পরিচিতি অনুষ্ঠানে বইটির মোড়ক উন্মোচন করা হয়। গ্রন্থটির মোড়ক উন্মোচন করেন তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু, বাংলাদেশ চায়না চেম্বার অব কমার্স এ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির সভাপতি গাজী গোলাম দস্তগীর, সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব ম. হামিদ, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী সালমান এফ রহমান, লেখক হায়াৎ মাহমুদসহ বিশিষ্টজনরা।

স্বরকল্পনের দুই দশক পূর্তি উৎসবের সমাপ্তি ॥ ‘তিমির বিনাশী মিছিলে আমরা চলেছি নিশিদিন’ সেøাগানে ঐতিবহ্যাবাহী স্বরকল্পন আবৃত্তিচক্র প্রতিষ্ঠার দুই দশক উপলক্ষে তিন দিনব্যাপী অনুষ্ঠান শেষ হলো শনিবার।

শেষ হলো সত্যেন সেন গণসঙ্গীত উৎসব ॥ সঙ্গীতের সুরে মানুষ, স্বদেশ ও বিশ্ব জাগানোর প্রত্যয় নিয়ে শেষ হলো বাংলাদেশ উদীচী শিল্পীগোষ্ঠী আয়োজিত সত্যেন সেন গণসঙ্গীত উৎসব ও জাতীয় গণসঙ্গীত প্রতিযোগিতা-২০১৬। শনিবার বিকেলে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে শুরু হয় দুই দিনব্যাপী এ উৎসবের শেষ দিনের অনুষ্ঠানমালা। শুরুতেই গণসঙ্গীত পরিবেশন করেন ঝুটন চন্দ্র, জান্নাত তাসনোভা চৌধুরী স্মিতা ও ঝুমা দত্ত। এরপর উদীচী কেন্দ্রীয় সভাপতি কামাল লোহানীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হয় আলোচনা সভা। এ পর্বের শুরুতে বক্তব্য রাখেন উদীচীর সহ-সভাপতি ও উৎসব আয়োজক কমিটির আহ্বায়ক শংকর সাঁওজাল। এরপর বর্ষীয়ান সাংবাদিক শুভ রহমান ও এ প্রজন্মের গণসঙ্গীত শিল্পী সায়ানকে ফুল, উত্তরীয় ও শুভেচ্ছা স্মারক দিয়ে বরণ করে নেন উদীচীর নেতা-কর্মীরা। আলোচনা পর্বে বক্তব্য রাখেন শিল্পী সায়ান, উদীচীর কেন্দ্রীয় সহ-সভাপতি মাহমুদ সেলিম, অধ্যাপক বদিউর রহমান ও শুভ রহমান। এ পর্বে বক্তারা মুক্তিযুদ্ধের চেতনা পুনরুদ্ধারে সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করার আহ্বান জানান। একই সাথে আসন্ন পহেলা বৈশাখে বিদেশ থেকে আমদানি করা ভুভজিলা বাঁশি নিষিদ্ধ করার দাবিও জানানো হয়।