২২ অক্টোবর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় নবীন স্থপতিদের স্থাপত্যকর্ম প্রদর্শনী

খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের স্থাপত্য ডিসিপ্লিন থেকে পাস করা নবীন ২৮ স্থপতির থিসিসভিত্তিক সৃজনশীল কর্মের ২৮টি প্রজেক্টের মডেল তৈরি করেছেন। এর মধ্যে রয়েছে ভবিষ্যত খুলনার জন্য একটি পাঁচ তারা হোটেল, মংলার জয়মনিতে বড় বড় জাহাজ নির্মাণ উপযোগী আধুনিক শিপইয়ার্ড, কক্সবাজারে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়াম, পিরোজপুরের ভাসমান বাজারসহ দেশের বিভিন্ন এলাকার নতুন নতুন সম্ভাবনাময় প্রকল্প।

গত রবি ও সোমবার খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের স্থাপত্য ডিসিপ্লিনে ‘আর্ক কেইউ ডিগ্রী শো-২০১৬’ এ আগামী বাংলাদেশের অগ্রযাত্রার স্বপ্নের এই প্রকল্পসমূহ প্রদর্শন করা হয়। মোট ৪টি ভাগে বিভক্ত স্থাপত্যকর্মের এ প্রদর্শনীতে ছিল ট্রপিক্যাল আর্কিটেকচার, পিপলস আর্কিটেকচার, আর্কিটেকচার ফর চেঞ্জ, আর্কিটেকচার ফর অল। এতে দেশের বিভিন্ন এলাকার প্রস্তাবিত এবং সম্ভাবনাময় অবকাঠামো কেমন হতে পারে, কি ধরনের আধুনিক সুযোগ-সুবিধা থাকবে, এসব অবকাঠামো নির্মাণের গুরুত্বসহ যৌক্তিক অনেক দিক এবং ভবিষ্যত বাংলাদেশের রূপকল্প ও রূপায়ণ সম্ভাবনা ফুটিয়ে তোলা হয়। এগুলোর মধ্যে ছিল খুলনা মাল্টি মডেল ট্রান্সপোর্টেশন টার্মিনাল, মেহেরপুরের মুজিবনগর ল্যান্ডপোর্ট, কক্সবাজারের জন্য ইন্টারন্যাশনাল ক্রিকেট স্টেডিয়াম কমপ্লেক্স, পিরোজপুরের আটঘর-কুড়িয়ানায় ফ্লোটিং মার্কেট (ভাসমান বাজার), দিনাজপুর সিভিক সেন্টার, বরেন্দ্র ফোকলোর কমপ্লেক্স-রাজশাহী, খুলনার বটিয়াঘাটায় সুন্দরবন রিসার্চ ইনস্টিটিউট, মংলার জয়মনিতে বড় জাহাজ নির্মাণের জন্য শিপয়ার্ড, বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব টেক্সটাইল টেকনোলজি- খুলনা, ফাইভ স্টার ইন্টারন্যাশনাল হোটেল খুলনাসহ আরও অনেক গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ভিত্তিক মডেল। এর মাধ্যমে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের নবীন স্থপতিদের মেধা, দেশ ও সমাজ ভাবনা ও দক্ষতার নিপুণ ও নান্দনিকতা ফুটে উঠেছে।

খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের স্থাপত্য ডিসিপ্লিন আয়োজিত ‘আর্ক কেইউ ডিগ্রী শো-২০১৬’ আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বোধন করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. মোহাম্মদ ফায়েক উজ্জামান। এর পর থেকে দেশ-বিদেশের অনেক বিশিষ্টজন এ প্রদর্শনী ঘুরে দেখে ভূয়সী প্রশংসা করেছেন। প্রদর্শনীর শেষ দিন সোমবার খুলনা-২ আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ মিজানুর রহমান মিজান, খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইস-চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. মুহাম্মদ আলমগীর, খুলনা বিভাগীয় কমিশনার মোঃ আবদুস সামাদ, শিক্ষক, গবেষক, প্রকৌশলী, সাংবাদিকসহ বিভিন্ন স্তরের মানুষ এ প্রদর্শনী ঘুরে দেখেন। তারা খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের নবীন স্থপতিদের সৃজনশীলতা দেখে মুগ্ধ হন। তারা আশাবাদ ব্যক্ত করেন নবীন স্থপতিরা তাদের স্থাপত্যকর্ম দিয়ে বাংলাদেশকে অনেক দূর এগিয়ে নিতে পারবেন।

বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. মোহাম্মদ ফায়েক উজ্জামান উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বলেন, নবীন স্থপতিদের সৃজনশীল কর্ম সকল বাধা অতিক্রম করে বাংলাদেকে এগিয়ে নিয়ে যাবে এবং বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়ে তুলবে। পাশাপাশি নবীন স্থপতিরা বিশ্বের সামনে নতুন এক নান্দনিক বাংলাদেশ উপহার দেবে। এ সময় স্থাপত্য ডিসিপ্লিনের প্রধান প্রফেসর ড. অনির্বাণ মোস্তফা, প্রদর্শনী আয়োজক কমিটির আহ্বায়ক স্থাপত্য ডিসিপ্লিনের শিক্ষক প্রফেসর ড. আফরোজা পারভীনসহ সংশ্লিষ্ট ডিসিপ্লিনের শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা উপস্থিত ছিলেন।

অমল সাহা