২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

প্রতিভাবান সাঁতারু অন্বেষণ শুরু

প্রতিভাবান সাঁতারু অন্বেষণ শুরু
  • উদ্বোধনী দিনে ৪০ জন নির্বাচিত

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ ঢাকা জেলার বাছাই পর্ব উদ্বোধনের মধ্য দিয়ে বৃহস্পতিবার শুরু হয়েছে প্রতিভাবান সাঁতারু অন্বেষণ প্রতিযোগিতা ‘সেরা সাঁতারুর খোঁজে বাংলাদেশ।’

প্রতিযোগিতার উদ্বোধনী দিনে ঢাকা জেলার বাছাইপর্বে ৮০০ প্রতিযোগী অংশ নেয়। তীব্র প্রতিদ্বন্দ্বিতার মধ্য দিয়ে সেরা ৪০ নারী-পুরুষ সাঁতারু নির্বাচিত হয়। এই ৪০ সাঁতারু দ্বিতীয় পর্বে প্রতিযোগিতায় অংশ নেবেন। প্রতিযোগিতার উদ্বোধনী অনুষ্ঠান শেষে প্রধান অতিথি ঢাকা জেলার নির্বাচিত এই সেরা সাঁতারুদের হাতে মেডেল, সার্টিফিকেট ও নগদ অর্থ পুরস্কার তুলে দেন।

প্রতিযোগিতার উদ্বোধনী দিনে ১১-১২ বছর বালক গ্রুপে প্রথম হয়েছে এনামুল। দ্বিতীয় হয়েছে রাব্বী। ১১-১২ বছর বালিকা গ্রুপে প্রথম হয়েছে রূপা। দ্বিতীয় হয়েছে মেরী। ১৩-১৪ বছর বালক গ্রুপে প্রথম হয়েছে জোছেল। দ্বিতীয় হয়েছে রাকিবুল। ১৫-১৭ বছর বালক গ্রুপে প্রথম হয়েছে টিটু মিয়া। দ্বিতীয় হয়েছে জামরুল। ১৮ ও তদুর্ধ বয়স গ্রুপে প্রথম হয়েছে শিহান। দ্বিতীয় হয়েছে আলী হোসেন। প্রতিযোগিতায় ৪টি বয়সভিত্তিক গ্রুপে (১১-১২, ১৩-১৫, ১৫-১৭ এবং ১৮ থেকে তদুর্ধ বয়সী) নারী ও পুরুষ সাঁতারুরা অংশগ্রহণ করছে। দেশের ৬৪ জেলায় পর্যায়ক্রমে প্রতিযোগিতার বাছাইপর্ব অনুষ্ঠিত হবে যা আগামী ২ অক্টোবর পর্যন্ত চলবে। ঢাকা বিভাগের অন্য জেলায় আগামী ২৪ মে মুন্সীগঞ্জে, ২৫ মে নারায়ণগঞ্জে, ২৬ মে নরসিংদীতে, ২৮ মে কিশোরগঞ্জে, ২৯ মে নেত্রকোনায়, ৩০ মে ময়মনসিংহে, ৩১ মে শেরপুরে, ১ জুন জামালপুরে, ২ জুন টাঙ্গাইলে এবং ৪ জুন গাজীপুরে বাছাই কার্যক্রম অনুষ্ঠিত হবে। পরবর্তীতে ধারাবাহিকভাবে বরিশাল, খুলনা, রাজশাহী, রংপুর, চট্টগ্রাম এবং সিলেট বিভাগে বাছাই অনুষ্ঠিত হবে। এভাবে সারাদেশ থেকে প্রথম পর্বে মোট ১০০০ প্রতিভা সম্পন্ন সাঁতারু বাছাই করে ঢাকায় আনা হবে। প্রতিযোগিতার দ্বিতীয় পর্বে ১০০০ জনের মধ্যে আবার প্রতিযোগিতার মাধ্যমে ১৬০ জনকে নির্বাচিত করে বিদেশী প্রশিক্ষকের মাধ্যমে ৩ মাসব্যাপী নিবিড় প্রশিক্ষণ দেয়া হবে। দ্বিতীয় পর্বে সেরা ১৬০ জনের প্রত্যেককে মেডেল, সার্টিফিকেট ও নগদ অর্থ দেয়া হবে। প্রশিক্ষণ শেষে চূড়ান্ত প্রতিযোগিতার মাধ্যমে ১৬০ জন থেকে সেরা ৬০ জন সাঁতারু নির্বাচন করা হবে। এই সেরা ৬০ সাঁতারুর প্রত্যেককে মেডেল, সার্টিফিকেট ও নগদ অর্থ পুরস্কার দেয়া হবে। তাছাড়া এদের মধ্যে ৪টি ইভেন্টের সেরা ৪ নারী এবং ৪ পুরুষ সাঁতারুকে পাঁচ লাখ করে টাকা দেয়া হবে। এভাবে তিন পর্বে সর্বমোট ৬৫ লাখ টাকার পুরস্কারের ব্যবস্থা রাখা হয়েছে। সেরা ৬০ সাঁতারু বাংলাদেশ সুইমিং ফেডারেশনে যোগ দেবে। তাদের বিশ্বমানের সাঁতারু হিসেবে গড়ে তোলার লক্ষ্যে দীর্ঘমেয়াদী প্রশিক্ষণ দেয়া হবে। তাদের লেখাপড়ার ব্যবস্থাসহ যাবতীয় ব্যয়ভার সুইমিং ফেডারেশনের পক্ষ থেকে বহন করা হবে। বৃহস্পতিবার প্রতিযোগিতা উপলক্ষে ঢাকার মিরপুরের সৈয়দ নজরুল ইসলাম জাতীয় সুইমিং কমপ্লেক্সে প্রতিযোগিতার লোগো উন্মোচন ও উদ্বোধন করেন জনপ্রশাসনমন্ত্রী সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম। বিশেষ অতিথি ছিলেন যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী বীরেন শিকদার এবং যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি জাহিদ আহসান রাসেল, এমপি। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন বাংলাদেশ সুইমিং ফেডারেশনের সভাপতি ও নৌবাহিনী প্রধান এডমিরাল নিজামউদ্দিন আহমেদ, ওএসপি, এনডিসি, পিএসসি। নদীমাতৃক বাংলাদেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা প্রতিভাবান সাঁতারুদের তুলে আনার লক্ষ্যে বাংলাদেশ সুইমিং ফেডারেশন ও নৌবাহিনীর যৌথ উদ্যোগে এ সাঁতারু অন্বেষণ প্রতিযোগিতা শুরু হয়েছে। সারাদেশের ৬৪ জেলার ৪৮৯ উপজেলা থেকে প্রায় ২৫ হাজার সাঁতারু এ প্রতিযোগিতায় অংশ নিচ্ছে।

নির্বাচিত সংবাদ