২৩ মে ২০১৯  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

আজ আঘাত ॥ ধেয়ে আসছে ঘূর্ণিঝড় রোয়ানু

আজ আঘাত ॥ ধেয়ে আসছে ঘূর্ণিঝড় রোয়ানু
  • বিকেল থেকে সন্ধ্যার মধ্যে নোয়াখালী-চট্টগ্রামের মাঝ দিয়ে উপকূল অতিক্রম করতে পারে ;###;চট্টগ্রামে ৭, কক্সবাজারে ৬, মংলা ও পায়রাবন্দরে ৫ নম্বর বিপদ সঙ্কেত;###;৪
  • ৫ ফুট জলোচ্ছ্বাসের আশঙ্কা;###;উত্তাল সাগর ছেড়ে মাছধরা নৌকা ট্রলারকে নিরাপদ আশ্রয়ে থাকতে বলা হয়েছে

জনকণ্ঠ রিপোর্ট ॥ ঘূর্ণিঝড় ‘রোয়ানু’ আরও উত্তর ও উত্তরপূর্বে বাংলাদেশ উপকূলের দিকে অগ্রসর হচ্ছে। শুক্রবার সন্ধ্যায় বিশেষ আবহাওয়া বুলেটিনে চট্টগ্রাম, পায়রা ও মংলা সমুদ্রবন্দরে ৭ নম্বর ও কক্সবাজারকে ৬ নম্বর বিপদ সঙ্কেত দেখিয়ে যেতে বলা হয়েছে। শুক্রবার সন্ধ্যা ছয়টায় ঘূর্ণিঝড়টি চট্টগ্রাম সমুদ্রবন্দর থেকে ৮৬০ কিমি দক্ষিণ-পশ্চিমে, কক্সবাজার সমুদ্রবন্দর থেকে ৮৪০ কিমি দক্ষিণ-পশ্চিমে, মংলা থেকে ৬৭৫ কিমি দক্ষিণ-পশ্চিমে ও পায়রা সমুদ্রবন্দর থেকে ৭০৫ কিমি দক্ষিণ-পশ্চিমে অবস্থান করছিল। এটি আরও ঘনীভূত হয়ে উত্তর ও উত্তর-পূর্ব দিকে অগ্রসর শনিবার বিকেল বা সন্ধ্যা নাগাদ বরিশাল-চট্টগ্রাম উপকূল অতিক্রম করতে পারে। ঘূর্ণিঝড় কেন্দ্রের ৫৪ কিমির মধ্যে বাতাসের একটানা গতিবেগ ঘণ্টায় ৬২ কিমি যা দমকা ও ঝড়োহাওয়ার আকারে ৮৮ কিমি পর্যন্ত বৃদ্ধি পাচ্ছে। সাগর খুবই উত্তাল রয়েছে। উপকূলীয় জেলা চট্টগ্রাম, নোয়াখালী, লক্ষ্মীপুর, ফেনী ও চাঁদপুর, ভোলা, বরগুনা, পটুয়াখালী, বরিশাল, পিরোজপুর ঝালকাঠী বাগেরহাট, খুলনা ও সাতক্ষীরা এবং সংলগ্ন দূরবর্তী দ্বীপ ও চরসমূহে ৭ নম্বর সঙ্কেত দেখাতে বলা হয়েছে।

ঘূর্ণিঝড় ‘রোয়ানু’র প্রভাবে শুক্রবার বিকেল থেকে সারাদেশে নৌ চলাচল বন্ধের ঘোষণা দিয়েছে বিআইডব্লিউটিএ।

উত্তর বঙ্গোপসাগর ও গভীর সাগরে অবস্থানরত সকল মাছ ধরার নৌকা ও ট্রলারকে অতিসত্তর নিরাপদ আশ্রয়ে যেতে বলা হয়েছে। পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত নিরাপদ আশ্রয়ে থাকতে বলা হয়েছে।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, আজ ঘূর্ণিঝড়টি দেশের উপকূল অতিক্রম করার সময় দুর্বল না হলে এর আঘাতে উপকূলীয় এলাকায় ঝড়ঝঞ্ঝা সৃষ্টি হতে পারে। এর আঘাতে উপকূলীয় এলাকায় ক্ষয়ক্ষতির সম্ভাবনা রয়েছে। তারা ঘূর্ণিঝড়ের সম্ভাব্য আঘাত মোকাবেলায় আগেই উপকূলীয় এলাকা থেকে লোকজনকে অন্যত্র সরিয়ে নেয়ার কথা বলেন।

এদিকে উপকূলীয় বিভিন্ন জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকেও উপকূলীয় এলাকায় সর্বোচ্চ সতর্কতা জারি করেছে। ঘূর্ণিঝড় মোকাবেলায় তারা প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছেন বলে বিভিন্ন জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে। দুর্যোগ মোকবেলায় জরুরী সভাও করেছেন। এদিকে সম্ভাব্য ঘূর্র্ণিঝড়ের কারণে উপকূলীয় এলাকার লোকজনের মধ্যে আতঙ্ক বিরাজ করছে। বৃহস্পতিবার থেকে এলাকায় ভারি বৃষ্টিপাত শুরু হয়েছে। নদ-নদীতে জোয়ারের পানি স্বাভাবিকের চেয়ে বেশি বাড়ছে। দুর্যোগ ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের সচিব শাহ কামাল শুক্রবার সংবাদ সম্মেলনে বলেন, ঘূর্র্ণিঝড় রোয়ানুর কারণে উপকূলীয় ১৮ জেলার প্রায় ২১ লাখ লোককে নিরাপদ আশ্রয়ে সরিয়ে নেয়ার কাজ শুরু হয়েছে শুক্রবার রাত ৮টা থেকে।

শুক্রবার আবহাওয়া অফিসের ঘূর্র্ণিঝড় ও সাইক্লোন সংক্রান্ত ১২ নম্বর বিশেষ বুলেটিনের মাধ্যমে এই বিপদ সঙ্কেতের কথা জানানো হয়েছে। এছাড়াও আবহাওয়া পূর্বাভাসে বলা হয়েছে আগামী ২৪ ঘণ্টায় খুলনা, বরিশাল সিলেট ও ঢাকা বিভাগে ভারি বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা রয়েছে। ঘূর্র্ণিঝড় রোয়ানুর প্রভাবে শুক্রবার দেশের বিভিন্ন স্থানে ভারি বৃষ্টিপাতের খবর পাওয়া গেছে। ঢাকায় প্রায় সারাদিন গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টিপাত হয়েছে। আবহাওয়া অফিসের আবহাওয়াবিদ আব্দুল মান্নান জনকণ্ঠকে বলেন, আবহাওয়া অধিদফতর ঘূর্র্ণিঝড় রোয়ানুকে সর্বক্ষণিক পর্যবেক্ষণের মধ্যে রেখেছে।

আবাহওয়া অফিসের বিশেষ বুলেটিনে বলা হয়েছে, পশ্চিম- মধ্য বঙ্গোপসাগর ও তৎসংলগ্ল এলাকায় অবস্থানরত ঘূর্ণিঝড় রোয়ানু সামান্য উত্তর, উত্তর-পূর্ব দিকে অগ্রসর হয়ে উত্তর বঙ্গোপসাগর ও তৎসংলগ্ন পশ্চিম-মধ্য বঙ্গোপসাগর এলাকায় অবস্থান করছে। এটি শুক্রবার দুপুর ১২টায় চট্টগ্রাম সমুদ্রবন্দর থেকে ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে উপকূলীয় জেলা চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, নোয়াখালী, লক্ষ্মীপুর, ফেনী, চাঁদপুর, বরগুনা, পটুয়াখালী, ভোলা, বরিশাল, পিরোজপুর, ঝালকাঠি, বাগেরহাট, খুলনা, সাতক্ষীরা এবং তাদের অদূরবর্তী দ্বীপ ও চরের নিম্নাঞ্চল স্বাভাবিক জোয়ারের চেয়ে ৪-৫ ফুট অধিক উচ্চতার জলোচ্ছ্বাসে প্লাবিত হতে পারে। ঘূর্ণিঝড় অতিক্রমকালে কক্সবাজার, চট্টগ্রাম, নোয়াখালী, লক্ষ্মীপুর, ফেনী, চাঁদপুর, বরগুনা, পটুয়াখালী, ভোলা, বরিশাল, পিরোজপুর জেলা এবং তাদের অদূরবর্তী দ্বীপ ও চরে ভারি থেকে অতি ভারি বর্ষণসহ ঘণ্টায় ৬২-৮৮ কিমি বেগে দমকা অথবা ঝড়োহাওয়া বয়ে যেতে পারে।

আবহাওয় অফিসের পর্যবেক্ষণ অনুযায়ী বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট ঘূর্ণিঝড় ‘রোয়ানু’ ক্রমেই উপকূলের দিকে অগ্রসর হচ্ছে। এটি গত ২৪ ঘণ্টায় অন্তত আড়াইশ’ কিমি এগিয়েছে বলে জানিয়েছে।

এ কারণে আগের চার নম্বর স্থানীয় হুঁশিয়ারি সঙ্কেত নামিয়ে বৃহস্পতিবার বিকেল থেকেই বিপদ সঙ্কেত দেয়া হয়েছে। আবহাওয়াবিদরা বলছেন, ঘূর্র্ণিঝড়টি এখনও দুর্বল হয়নি। গত বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় বাংলাদেশের উপকূল থেকে ১২শ’ কিমির বেশি দূরত্বে অবস্থান করছিল। তাদের হিসাবে অনুযায়ী বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় ঘূর্র্ণিঝড়টির অবস্থান ছিল চট্টগ্রাম সমুদ্রবন্দর থেকে ১ হাজার ৩৬৫ কিমি দক্ষিণ-পশ্চিমে, কক্সবাজার সমুদ্রবন্দর থেকে এটি ১ হাজার ৩৩৫ কিমি দক্ষিণ-পশ্চিমে, মংলা সমুদ্রবন্দর থেকে ১ হাজার ১৮৫ কিমি এবং পায়রা সমুদ্রবন্দর থেকে ঘূর্র্ণিঝড় রোয়ানু ১ হাজার ২১৫ কিমি দক্ষিণ-পশ্চিমে। তবে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় তার উত্তর-পূর্বদিকে অগ্রসর হয়ে একই স্থানে অবস্থান করলে গত চব্বিশ ঘণ্টায় এটি আরও উত্তর-পূর্বদিকে অগ্রসর হয়েছে। বর্তমানে উড়িষ্যা উপকূলের কাছাকাছি অবস্থান করছে। আজ যে কোন সময় এটি দেশের চট্টগ্রাম বন্দর অতিক্রম করে মিয়ানমারের দিকে যেতে পারে। তবে দেশের উপকূল অতিক্রম করার সময় এটি দুর্বল না হলে সাইক্লোনের আঘাতে দেশের উপকূলীয় এলাকায় ক্ষয়ক্ষতির সম্ভাবনা রয়েছে।

উপকূলীয় জেলাসমূহে ঘূর্র্ণিঝড় মোকাবেলায় প্রস্তুতি সম্পর্কে আমাদের স্টাফ রিপোর্টার ও নিজস্ব সংবাদদাতা জানান, ঘূর্ণিঝড় ও সম্ভাব্য দুর্যোগ পরিস্থিতি মোকাবেলায় কক্সবাজারের সকল সরকারী কর্মকর্তা-কর্মচারীর সপ্তাহিক ছুটি বাতিল করে কর্মস্থলে উপস্থিত থাকতে নির্দেশ দেয়া হয়েছে। কক্সবাজার রেয়ানুর প্রভাবে উপকূলে সকাল থেকে বৃষ্টি শুরু হয়েছে। সাগর ও উপকূলীয় এলাকায় জোয়ারের পানি স্বাভাবিকের চেয়ে বৃদ্ধি পেয়েছে। সেন্টমার্টিন-টেকনাফ রুটে চলাচলকারী সকল নৌযান বন্ধ রাখা হয়েছে। উপকূলীয় সব উপজেলার সাইক্লোন শেল্টারগুলো খোলা রাখার এবং পরিস্থিতি মোকাবেলায় রেড ক্রিসেন্ট কর্মী, মেডিক্যাল টিম ও উদ্ধার কর্মীদের নিয়োজিত রাখা হয়েছে বলে সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে। শুক্রবার বিকেলে জেলা শহর উপকূলীয় এলাকায় সতর্কতামূলক মাইকিং করা হয়েছে। বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট ঘূর্ণিঝড় রোয়ানুর মোকাবেলায় সকল প্রস্তুতি গ্রহণ করেছে জেলা প্রশাসন।

নোয়াখালী ॥ রোয়ানুর প্রভাবে বৃহস্পতিবার মধ্যরাত থেকে শুক্রবার দিনভর নোয়াখালীতে ভারি বৃষ্টিপাত অব্যাহত। দুর্যোগ মোকাবেলা কমিটি এক জরুরী প্রস্তুতি সভা করেছে। সভায় জানানো হয়, ঘূর্র্ণিঝড় পূর্ববতী এবং পরবর্তী সকল প্রকার প্রস্তুতিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। জেলার সুবর্ণচর, কোম্পানীগঞ্জ ও হাতিয়াসহ ঝুঁকিপূর্ণ বিভিন্ন এলাকার আশ্রয়কেন্দ্রগুলো প্রস্তুত রাখা হয়েছে। পর্যাপ্ত শুকনো খাবার, সুপেয় পানি প্রস্তুত রাখতে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও স্ব স্ব এলাকার রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির স্বেচ্ছাসেবকদেরও প্রস্তুত থাকতে নির্দেশ দেয়া হয়েছে। ইতোমধ্যে হাতিয়াসহ উপকূলীয় এলাকাসমূহে মাইকিং ও সাইরেন বাজানোর ব্যবস্থা করার জন্য উপজেলা প্রশাসন, বিভিন্ন এনজিও ও রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটি উদ্যোগ নিয়েছে বলেও সভায় জানানো হয়। এছাড়া জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে শুক্রবার থেকে সর্বক্ষণিক কন্ট্রোল রুম খোলা হয়েছে।

মংলা ॥ ঘূর্ণিঝড় মোকাবেলায় প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছে প্রশাসন। প্রতিঘণ্টায় মংলা পৌরসভায় মাইকিং করে সতর্কবার্তা দেয়া হচ্ছে। নাগরিকদের জানমাল রক্ষায় সতর্ক রয়েছে তার প্রশাসন। কর্মকর্তা-কর্মচারীর ছুটি বাতিলসহ কাউন্সিলরদের নিজ নিজ ওয়ার্ডে দায়িত্ব পালনের জন্য মেসেজ দেয়া হয়েছে। বন্দরের বহির্নোঙ্গরে থাকা সব জাহাজের কাজ বন্ধ রয়েছে। দুর্যোগ মোকাবেলায় বন্দরের কর্মকর্তা-কর্মচারীকে সতর্ক করে বন্দর কর্তৃপক্ষের উদ্ধার যানগুলো প্রস্তুত রাখা হয়েছে বলেও জানান তিনি।

বরিশাল ॥ নৌ সঙ্কেত থাকায় নিরাপত্তাজনিত কারণে বরিশাল নদীবন্দর থেকে বিআইডব্লিউটিএ কর্তৃপক্ষ ৬৫ ফুটের নিচের লঞ্চ চলাচল বন্ধ করে দিয়েছে। পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত এই সিদ্ধান্ত বলবৎ থাকবে।

ভোলা ॥ এদিকে শুক্রবার উপকূলীয় এলাকায় বিপদ সঙ্কেতের পতাকা টানিয়ে প্রচার চালিয়ে যাচ্ছে ভোলা রেড ক্রিসেন্ট ও সিপিপি। দূরবর্তী এলাকার মানুষ ও নৌযানকে নিরাপদে আশ্রয়ে আসতে বলা হয়েছে। শহরের তুলাতলীসহ বিভিন্ন এলাকায় এ সতর্কবার্তা পৌঁছানো হয়েছে। এদিকে ঘূর্ণিঝড় ‘রোয়ানু’ মেকাবেলায় ভোলা জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে ব্যাপক প্রস্তুতি গ্রহণ করা হয়েছে।

পটুয়াখালী ॥ সকাল থেকে পটুয়াখালীসহ উপকূলীয় এলাকায় বৃষ্টিপাত অব্যাহত রয়েছে। ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে সাগর উত্তাল। প্রায় পাঁচ শতাধিক মাছ ধরা ট্রলার আশ্রয় নিয়েছে মৎস্যবন্দর আলীপুর ও মহিপুরে। জেলা প্রশাসন ঘূর্ণিঝড় মোকাবেলায় বৃহস্পতিবার বিকেল ৫টায় দুর্যোগ প্রস্তুতি কমিটির জরুরী বৈঠক করেছে।

বাগেরহাট ॥ সুন্দরবন সংলগ্ন উপকূলীয় মানুষের মধ্যে উৎকণ্ঠা বিরাজ করছে। ৫ নম্বর বিপদ সঙ্কেতের পর তাদের স্বাভাবিক জীবনযাপন ব্যাহত হচ্ছে। সব নদ-নদী উত্তাল। শুক্রবার সন্ধ্যা পর্যন্ত এখানে নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে। উপকূলীয় প্রতিটি উপজেলা পরিষদে নিয়ন্ত্রণ কক্ষ খোলা হয়েছে। সব সাইক্লোন শেল্টার খোলা রাখা হয়েছে। সরকারী কর্মকর্তাদের ছুটি বাতিল করা হয়েছে। বন্ধ রয়েছে মংলাবন্দরে পণ্য ওঠানামা ও খালাস কার্যক্রম।

এছাড়া উপকূলীয় বিভিন্ন জেলা-উপজেলায় বিশেষ করে বাউফল, কলাপাড়া, হাতিয়া, গলাচিপায় গত দুদিন ধরে ঘূর্র্ণিঝড় রোয়ানুর প্রভাবে দুর্যোগপূর্ণ আবহাওয়া বিরাজ করছে। ঘূর্ণিঝড়ের আশঙ্কায় এলাকার লোকজনের মধ্যে উদ্বেগ-উৎকণ্ঠা বিরাজ করছে। এলাকায় মাইকিং করে লোকজনকে সতর্ক করা হচ্ছে। এছাড়াও স্থানীয় প্রশাসনের পক্ষ থেকে দুর্যোগ মোকাবেলায় প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে বলে সংশ্লিষ্ট এলাকার প্রতিনিধিরা জানিয়েছেন।