১৭ অক্টোবর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের কলেজ র‌্যাংকিং ইতিবাচক ভূমিকা রাখবে

  • পুরস্কার প্রদান অনুষ্ঠানে শিক্ষামন্ত্রী

স্টাফ রিপোর্টার ॥ সেরা প্রতিষ্ঠান হিসেবে নির্বাচিত অনার্স ও মাস্টার্স কলেজকে সম্মাননা স্মারক, সনদ ও পুরস্কার প্রদান করল জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়। রাজধানীতে এ উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ বলেছেন, শিক্ষার মানোন্নয়নে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের করা কলেজ র‌্যাংকিং ইতিবাচক ভূমিকা রাখবে।

এর আগে গত ১৪ মে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় প্রথমবারের মতো তার অধিভুক্ত অনার্স ও মাস্টার্স পর্যায়ের কলেজকে র‌্যাংকিংয়ের আওতায় আনার ঘোষণা দেয়। ৩১টি সূচকের ভিত্তিতে অধিভুক্ত ৬৮৫টি কলেজে ২০১৫ সালের জন্য স্কোরের ভিত্তিতে এ র‌্যাংকিং করা হয়েছে। ৫টি ক্যাটাগরিতে ৬৭টি কলেজ জায়গা করে নিয়েছে সেরাদের তালিকায়। জাতীয় পর্যায়ে শ্রেষ্ঠ পাঁচ কলেজ হিসেবে নির্বাচিত হয়েছে যথাক্রমে রাজশাহী কলেজ, ইডেন মহিলা কলেজ, ঢাকা কলেজ, ঢাকা কমার্স কলেজ (বেসরকারী) ও বরিশালের সরকারী ব্রজমোহন (বিএম) কলেজ। বিশ্ববিদ্যালয়ের সাতটি অঞ্চল থেকেও প্রতিটির জন্য সেরা দশ কলেজ নির্বাচন করা হয়েছে। শুক্রবার সেই সেরা ৭৮ কলেজকে জাতীয় জাদুঘরে আনুষ্ঠানিকভাবে স্মারক সম্মাননা, সনদ ও পুরস্কার প্রদান করা হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ। আরো উপস্থিত ছিলেন ইউজিসির চেয়ারম্যান অধ্যাপক আবদুল মান্নান ও জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. হারুন-অর-রশিদ।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, উচ্চশিক্ষার উদ্দেশ্য হচ্ছে বিশ্বমানের শিক্ষাদান, জ্ঞানের সৃষ্টি, জ্ঞান বিতরণ, শিক্ষার্থীদের মধ্যে অনুসন্ধিৎসু মন সৃষ্টি এবং তাদের মানবিক গুণাবলী অর্জনে সহায়তা দান। যেখানে প্রতিযোগিতা নেই, সেখানে সাফল্য ও অগ্রগতির সম্ভাবনাও থাকে না। জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মধ্যে ৬৮৫টি ¯œাতক (সম্মান) কলেজের র‌্যাংকিং এবং শীর্ষস্থানীয় কলেজসমূহকে আনুষ্ঠানিকভাবে সম্মাননা ও পুরস্কার প্রদানের উদ্যোগকে আমি স্বাগত জানাই।

বিশেষ অতিথির ভাষণে অধ্যাপক আবদুল মান্নান বলেন, বাংলাদেশে বিগত চার দশকে শিক্ষার পরিসর যেভাবে সম্প্রসারিত হয়েছে, সে তুলনায় এর মান বাড়েনি। আমাদের সামনে এখন সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ শিক্ষার মানোন্নয়ন। জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় সারাদেশের অধিভুক্ত কলেজগুলোকে পারফরমেন্সভিত্তিক র‌্যাংকিংয়ের আওতায় এনে পুরস্কৃত করার যে উদ্যোগ গ্রহণ করেছে, তা সত্যিই প্রশংসনীয়।

উপাচার্য অধ্যাপক ড. হারুন-অর-রশিদ বলেন, কলেজ শিক্ষার মানোন্নয়নের প্রতি বিশেষ দৃষ্টি রেখে ২০১৫ সালের জন্য আমরা সারাদেশে অধিভুক্ত অনার্স ও মাস্টার্স পাঠদানকারী কলেজগুলোর পারফরমেন্স র‌্যাংকিংয়ের উদ্যোগ গ্রহণ করি। ৩১টি সূচকের ভিত্তিতে এ র‌্যাংকিংয়ের ব্যবস্থা করা হয়। উচ্চ স্কোর অর্জন করে জাতীয়, আঞ্চলিক ও বিশেষ ক্যাটাগরিতে যে সব কলেজ নির্বাচিত হয়েছে, সে সব কলেজকে আজ পুরস্কৃত করা হলো। এ আয়োজনের উদ্দেশ্য একটিই আর তা হচ্ছে, কলেজ শিক্ষার মানোন্নয়নে ইতিবাচক প্রতিযোগিতার ক্ষেত্র সৃষ্টি, কোন কলেজকে ছোট কোন কলেজকে বড় করে দেখানো নয়। আমাদের এ আয়োজন প্রতিবছর চলবে। অনুষ্ঠানে ৬৭টি কলেজকে সম্মাননা স্মারক, সনদ এবং ৫ ও ১০ হাজার টাকা মূল্যের বই উপহার দেয়া হয়।