১৬ অক্টোবর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

বাংলার মতোই ধোঁয়াশায় আইপিএলের এগজিট পোল

বাংলার মতোই ধোঁয়াশায় আইপিএলের এগজিট পোল

অনলাইন ডেস্ক ॥ বাংলার নির্বাচনের এগজিট পোলের শিরশিরানি যে পাঁচ দিনের মধ্যে শহরে ফিরে আসবে, কে জানত।

না, কোনও নির্বাচনী ফলাফলের কথা হচ্ছে না। বাংলা, তামিলনাড়ু, কেরল, অসম— সব জায়গার নির্বাচনী ফলাফল পর্ব চুকেবুকে গিয়েছে। ক্ষমতায় কে কোথায়, জেনে গিয়েছে আমজনতা। কিন্তু আইপিএল প্লে অফের ফলাফল? তার এগজিট পোল? কে নিশ্চিত করে বলবে?

বাংলার নির্বাচনী এগজিট পোল যেমন ধোঁয়াশায় ঢেকে ছিল, নিশ্চিত করে যেমন কিছু বোঝা যায়নি, আইপিএলেও তাই। গ্রুপ লিগের শেষ রাউন্ডে পৌঁছেও কেউ নিশ্চিত করে বলতে পারছেন না, কোন চারটে টিম শেষ পর্যন্ত প্লে অফ খেলবে।

জায়গা চারটে। কিন্তু তার জন্য দৌড়োচ্ছে ছ’টা টিম। সানরাইজার্স হায়দরাবাদ। গুজরাত লায়ন্স। র‌য়্যাল চ্যালেঞ্জার্স বেঙ্গালুরু। মুম্বই ইন্ডিয়ান্স। দিল্লি ডেয়ারডেভিলস। এবং কলকাতা নাইট রাইডার্স। ছ’টা টিমের মধ্যে হানাহানি এতটাই যে, আইপিএলের সঙ্গে জড়িত অনেকে মনে করতে পারছেন না শেষ কবে এমন চরম উত্তেজনা দেখা গিয়েছে প্লে অফ ঘিরে।

পরিস্থিতি যা, তাতে প্লে অফ ম্যাজিক ফিগার অনেকেই ১৬ পয়েন্ট ধরছেন। ১৮ হলে পুরোপুরি নিশ্চিত। কিন্তু ১৬ হলেও চলে যাওয়ার ভাল সম্ভাবনা থাকবে। সে দিক থেকে দেখলে হায়দরাবাদ এবং গুজরাত— দু’টো টিমই সুবিধেজনক অবস্থায়। দু’টো টিমেরই পয়েন্ট ১৩ ম্যাচে ১৬। চরম হানাহানি বরং বাকি দু’টো স্লট নিয়ে। যার জন্য মুম্বই ইন্ডিয়ান্স, দিল্লি ডেয়ারডেভিলস, কেকেআর, রয়্যাল চ্যালে়ঞ্জার্স বেঙ্গালুরু— সবাই লড়ছে। আশ্চর্য হচ্ছে টিমগুলোর পয়েন্ট। সব সমান! সবার ১৩ ম্যাচে ১৪! সবার শেষ ম্যাচে জীবন অথবা মৃত্যু!

মুম্বই শেষ ম্যাচ খেলবে শনিবার। গুজরাত লায়ন্সের বিরুদ্ধে। কেকেআর খেলবে রবিবার বিকেলে। সানরাইজার্স হায়দরাবাদের বিরুদ্ধে. আরসিবি খেলবে দিল্লি ডেয়ারডেভিলসের সঙ্গে। রবিবার রাতে। এবং যে কেউ যেতে পারে।

চরম যুদ্ধের আগে খারাপ খবর বলতে শুধু কেকেআরের। অর্থাৎ, শহরের আকাশ। যা নাইটদের প্লে অফ স্বপ্নকে হতাশার কালো মেঘে ঢেকে দিতে পারে। রবিবার ম্যাচ হবে তো? কেকেআর শেষ পর্যন্ত নামতে পারবে তো? আবহাওয়া পূর্বাভাস কিন্তু বলছে, শনিবার তো বটেই। রবিবারও শহরে বৃষ্টি হতে পারে। আর তাই যদি হয়, যদি বৃষ্টিতে পণ্ড হয় ম্যাচ, কেকেআরের প্লে অফ যাওয়া নির্ভর করবে অন্যদের উপর।

সোজাসুজি বললে, মুম্বই ইন্ডিয়ান্সের উপর। শনিবার শেষ ম্যাচ মুম্বইয়ের। তারা যদি জিতে যায়, আর রবিবার কেকেআর ম্যাচ পণ্ড হয় তা হলে মুম্বই আর গুজরাতের সর্বশেষ পয়েন্ট দাঁড়াবে ১৬। কেকেআর-হায়দরাবাদ পয়েন্ট তখন ভাগাভাগি করে নেবে। হায়দরাবাদের দাঁড়াবে ১৭। কেকেআর ১৫। সে দিন রাতে আরসিবি-দিল্লি যে জিতবে, সে চলে যাবে প্লে অফে চতুর্থ টিম হিসেবে। কেকেআর টুর্নামেন্টের বাইরে চলে যাবে। যদি না প্রাকৃতিক কারণে আরসিবি-দিল্লি ম্যাচ পণ্ড হয়। কিন্তু উল্টোটা যদি হয়, মুম্বই যদি শনিবার হারে, তা হলে বৃষ্টিতে ম্যাচ না হলেও প্লে অফে চলে যেতে পারে কেকেআর। ১৫ পয়েন্ট নিয়েই। হায়দরাবাদ, গুজরাত, আরসিবি/দিল্লির সঙ্গে, চতুর্থ টিম হিসেবে।

অাবার যদি রবিবার খেলা হয়, কেকেআর জিতে ১৪ ম্যাচে ১৬ পয়েন্ট নিয়ে শেষ করে, তা হলে আবার রান রেটের অঙ্ক আসতে পারে প্লে অফ যাওয়ার জন্য। তবে সেটা শনিবার মুম্বই জিতলে।

শুক্রবার ইডেনে গিয়ে দেখা গেল, তীব্র তৎপরতা চলছে। ইডেন কিউরেটর সুজন মুখোপাধ্যায়ের সঙ্গে মাঝেমধ্যেই তদারকিতে চলে যাচ্ছেন সিএবি গ্রাউন্ডস কমিটি চেয়ারম্যান দেবব্রত দাস। শোনা গেল, শহরের টানা বৃষ্টিতে সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে পিচ। রোলার চালানো, ঘাস ছাঁটা সব বন্ধ। কারণ কভার তোলাই সম্ভব হচ্ছে না। এটাও শোনা গেল যে, ১৬ মে আরসিবি ম্যাচের পর নিয়মাফিক জল দেওয়া হয়েছিল পিচে। বৃষ্টির কোনও খবর তখনও ছিল না। বিপত্তি তাতে আরও বেড়েছে। একে তো সিএবি জল দিয়েছে, তার উপর টানা বৃষ্টিতে পিচ শুকোনো যাচ্ছে না। ম্যাচ পিচে নাকি ইতিমধ্যে স্যাঁতস্যাঁতে ভাব তৈরি হয়ে গিয়েছে। নরম হয়ে রয়েছে পিচ। ব্লোয়ার চালিয়ে পিচ শুকোনোর চেষ্টা হচ্ছে। শনিবারও ক্যানোপি টাঙিয়ে ব্লোয়ার চালানো হবে। কিন্তু তার পরেও পিচ-চরিত্র নিয়ে কাউকে বিশেষ আশাবাদী দেখাচ্ছে না। উল্টে বলা হচ্ছে, রবিবার সকাল থেকে খটখটে রোদ পাওয়া গেলে ভাল পিচ দেওয়া সম্ভব। নইলে নয়। বৃষ্টি থেমে গেলেও নাকি নয়। অর্থাৎ, সে দিকেও আশঙ্কা। আন্দ্রে রাসেল— তিনিও তো অনিশ্চিত। কেকেআরের কেউ কেউ আশাবাদী, কিন্তু শনিবার রাসেলের নাকি একটা ফিটনেস পরীক্ষা হবে। তার পর নিশ্চিত করে বলা যাবে।

কী দাঁড়াল?

হায়দরাবাদের আশিস নেহরা আইপিএল থেকে ছিটকে যাওয়ার পর কেকেআরের শেষ ম্যাচে যে স্বস্তির বাতাবরণ তৈরি হয়েছিল, রাতারাতি তা উধাও। নাইটরা বরং এখন বিভিন্ন দিক থেকে আক্রান্ত।

ঘরে। বাইরেও।

সূত্র : আনন্দবাজার পত্রিকা