১৪ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

ঘুর্ণিঝড় রোয়ানুর পায়রাবন্দসহ কলাপাড়ার উপকূল অতিক্রম॥ দেড়শতাধিক কাঁচা ঘরবাড়ি বিধ্বস্ত

নিজস্ব সংবাদদাতা, কলাপাড়া ॥ পায়রা বন্দরসহ কলাপাড়ার ওপর দিয়ে শনিবার দুপুরে ঘুর্ণিঝড় রোয়ানু অতিক্রম করেছে। এসময় বাতাসের গতিবেগ ছিল সর্বোচ্চ ৬০-৬২ কিলোমিটার। মুষলধারে বৃষ্টিপাত হচ্ছিল তখন। ফলে ১২ ইউনিয়ন এবং কলাপাড়া-কুয়াকাটা পৌরসভার অন্তত দেড় শ’ কাচাঁ বাড়িঘর বিধ্বস্ত হয়েছে। বেড়িবাঁধের ভাঙ্গা অংশ দিয়ে প্রবলবেগে জোয়ারের পানি প্রবেশ করে গোটা দেবপুর গ্রাম ডুবে গেছে। মানুষের বাড়িঘর থেকে পুকুর পর্যন্ত রক্ষা পায়নি। একইদশা নিজামপুর গ্রামের। সেখানকার পাঁচটি গ্রামের মানুষ পানিবন্দী দশায় পড়েছে। পাঁচ হাজার পরিবার চরম দুর্ভোগে পড়েছেন। জলোচ্ছ্বাসের চাপে আগেই আংশিক বিধ্বস্ত লতাচাপলীর আলীপুর পাঁচ ভেন্টের স্লুইসটি সম্পুর্ণভাবে বিধ্বস্ত হয়ে কুয়াকাটাসহ গোটা ইউনিয়ন জোয়ারের পানিতে তলিয়ে গেছে। নীলগঞ্জের উমেদপুর গ্রামের ভাঙ্গা স্লুইসগেট দিয়ে জোয়ারের পানিতে তলিয়ে গেছে বিস্তীর্ণ এলাকা। রোয়ানুর তান্ডবে কুয়াকাটা সৈকতের ৩০ ফুট প্রস্থ এলাকা সাগর গিলে খেয়েছে। মূল সড়কটি পর্যন্ত সাগরগর্ভে বিলীন হয়ে গেছে। শত শত নারিকেল, ঝাউসহ বিভিন্ন ধরনের গাছপালা জোয়ারের ঝাপটায় উপড়ে গেছে। সবক’টি ইউনিয়নের চেয়ারম্যানের সঙ্গে কথা বলে নিশ্চিত হওয়া গেছে কোথাও কোন মানুষ কিংবা গবাদিপশু মারা যাওয়ার খবর পাওয়া যায় নি। অস্বাভাবিক জোয়ারের প্লাবনের ফলে চম্পাপুরসহ কয়েকটি ইউনিয়নে সহ¯্রাধিক মানুষ বিভিন্ন সাইক্লোন শেল্টারে আশ্রয় নিয়েছে। তাদের মধ্যে উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে শুকনো খাবার বিতরণ করা হয়েছে। পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. আবুল খায়ের জানান, পুরনো বিধ্বস্ত ছাড়াও নতুন করে আরও চার শ’ ফুট বেড়িবাঁধ ভেঙ্গে গেছে। শনিবার বিকালে দেবপুর এলাকা পরিদর্শন করেছেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ মাসুদ হাসান পাটোয়ারী।