১৭ নভেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

তনুর প্রথম ময়নাতদন্তে কিছুটা ভুল ছিল ॥ আমু

তনুর প্রথম ময়নাতদন্তে কিছুটা ভুল ছিল ॥ আমু

অনলাইন রিপোর্টার॥ কুমিল্লার কলেজছাত্রী সোহাগী জাহান তনু হত্যার প্রথম ময়নাতদন্তে কিছুটা ভুল থাকায় দীর্ঘসূত্রতা হয়েছিল বলে জানিয়েছেন শিল্পমন্ত্রী ও আইনশৃঙ্খলা রক্ষা–সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির সভাপতি আমির হোসেন আমু।

আজ রবিবার সচিবালয়ে আইনশৃঙ্খলা রক্ষা–সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির সভা শেষে আমির হোসেন আমু সাংবাদিকদের এ কথা বলেন।

তিনি বলেন, সাম্প্রতিক সময়ে যে ৩৭টি হত্যার ঘটনা ঘটেছে, তার মধ্যে ২৫টির সঙ্গে সরাসরি জঙ্গি সংগঠন জামাআতুল মুজাহিদীন বাংলাদেশ (জেএমবি) জড়িত।

আমু বলেন, বলেন, আর আটটির সঙ্গে আনসারুল্লাহ বাংলা টিম এবং বাকি চারটির সঙ্গে অন্যান্য জঙ্গি ও সন্ত্রাসী সংগঠন জড়িত। এসব ঘটনায় আইএসের জড়িত থাকার কোনো প্রমাণ পাওয়া যায়নি।

আমু বলেন, ওই সব ঘটনায় ইতিমধ্যে চারটির অভিযোগপত্র দেওয়া হয়েছে আর দুটি বিচারাধীন। ওই ৩৭টি মামলার বিষয়ে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী অত্যন্ত তৎপর আছে।

ধর্মীয় অবমাননার অভিযোগে নারায়ণগঞ্জের একটি স্কুলের প্রধান শিক্ষককে কানে ধরে উঠবস করানোর ঘটনার বিষয়ে মন্ত্রী বলেন, ওই শিক্ষকের বিরুদ্ধে ধর্ম নিয়ে কটাক্ষের কোনো প্রমাণ পাওয়া যায়নি। ওই শিক্ষককে হত্যার হুমকি দেওয়া হচ্ছে- এ ব্যাপারে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, এ বিষয়ে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী তৎপর আছে।

কলেজছাত্রী সোহাগী জাহান তনু হত্যা মামলার বিষয়ে মন্ত্রী বলেন, প্রথম ময়নাতদন্তে কিছুটা ভুল থাকায় দীর্ঘসূত্রতা হয়েছিল। কিন্তু দ্বিতীয়বার ডিএনএ পরীক্ষায় ধর্ষণের আলামত পাওয়া গেছে। এতে তিনজনের জড়িত থাকার আলামত পাওয়া গেছে।

শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমুর সভাপতিত্বে বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল, স্থানীয় সরকারমন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন, আইনমন্ত্রী আনিসুল হক, পানিসম্পদমন্ত্রী আনিসুল ইসলাম মাহমুদ, তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু, শ্রম ও কর্মসংস্থান প্রতিমন্ত্রী মুজিবুল হক, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের মুখ্যসচিব আবুল কালাম আজাদ, পুলিশের মহাপরিদর্শক এ কে এম শহীদুল হক প্রমুখ।

প্রসঙ্গত, ২০ মার্চ রাতে তনুকে ধর্ষণের পর হত্যা করা হয়। ওই দিনগত রাত সাড়ে ১০টার দিকে কুমিল্লা সেনানিবাস এলাকা থেকে তার মরদেহ উদ্ধার করা হয়। পরে জেলার মুরাদনগর উপজেলার মির্জাপুর গ্রামের বাড়িতে তনুকে দাফন করা হয়। হত্যাকাণ্ডের কয়েকদিন পর মামলাটি কুমিল্লা পুলিশের গোয়েন্দা শাখা (ডিবি) কাছে হস্তান্তর করা হলে মরদেহ পুনঃময়নাতদন্তের জন্য আদালতে আবেদন করা হয়।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা কুমিল্লাা ডিবির ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মঞ্জুর আলম এ আবেদন করেন। এ ঘটনায় সিআইডি ৫ জন সেনা সদস্যকে জিজ্ঞাসাবাদও করেছে।

তার আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে কুমিল্লার অতিরিক্ত চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট জয়নাব বেগম মরদেহ উত্তোলনের আদেশ দেন। ৩০ মার্চ বেলা পৌনে ১২টায় তনুর মরদেহ উত্তোলন করে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পুনঃময়নাতদন্ত করে ওই দিনই পুনরায় দাফন করা হয়। এদিকে, ২৯ মার্চ মামলাটি পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগের (সিআইডি) কাছে হস্তান্তর করা হয়।

পুনঃতদন্তে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া কলেজের ছাত্রী ও নাট্যকর্মী নিহত সোহাগী জাহান তনুর ডিএনএ টেস্টে ধর্ষণের আলামত পাওয়া গেছে বলে জানান কুমিল্লা সিআইডি বিশেষ পুলিশ সুপার ড. নাজমুল করিম খান।