১৩ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

টিম ইন্ডিয়ার ঝলমলে আকাশে চিন্তা অশ্বিন

টিম ইন্ডিয়ার ঝলমলে আকাশে চিন্তা অশ্বিন

অনলাইন ডেস্ক ॥ এক দিকে যখন অভিনব টিম বন্ডিং সেশন নিয়ে খুশির হাওয়া। টেস্ট ক্যাপ্টেন বিরাট কোহালি বলছেন, বিদেশে টেস্ট জেতার দিশা দেখাতে পারেন, এমন এক জন কোচের হাতেই পড়েছেন তাঁরা। কোচও বলছেন ক্যাপ্টেনের আগ্রাসনে তাঁর কোনও আপত্তি নেই। অন্য দিকে তখন সেই পুরনো বিপত্তি এসে জুটল ভারতীয় শিবিরে। চোট-আতঙ্ক।

অনিল কুম্বলের ব্রহ্মাস্ত্র হয়ে উঠতে পারেন যিনি, সেই অফ স্পিনার রবিচন্দ্রন অশ্বিন সোমবার নেটে ব্যাট করতে গিয়ে ডান হাতে চোট পেলেন। মহম্মদ শামির এক খাটো লেংথের বল ব্যাকফুটে এসে সামলাতে গিয়ে ডান হাতের কনুইয়ের নীচে চোট পান তিনি। এর পর হাতে চওড়া ব্যান্ডেজ লাগিয়ে প্র্যাকটিস ছেড়ে বেরিয়েও যেতে দেখা যায় তাঁকে। বেরিয়ে যাওয়ার সময় পরিচিত সাংবাদিকদের অশ্বিন বলেন, চোটটা তেমন সিরিয়াস নয়। সাংবাদিক বৈঠকে এসে কুম্বলেও বলেন, ‘‘ফিজিও দেখেছে, তেমন গুরুতর চোট মনে হচ্ছে না। এখনও অনেক সময় আছে। আশা করি, তার মধ্যে পুরো সুস্থ হয়ে উঠবে অশ্বিন।’’ তবু মঙ্গলবার মাঝরাতে ক্যারিবিয়ান দ্বীপপুঞ্জে একটা দুশ্চিন্তা নিয়েই উড়ে যাচ্ছে ভারতীয় দল।

নতুন কোচ দায়িত্ব নেওয়ার পর প্রথম বিদেশ সফরের আগে সাংবাদিক বৈঠকে বিরাট কোহালি ও অনিল কুম্বলে যেন একে অপরের বোঝাপড়া নিয়ে যাবতীয় সন্দেহ দূর করার জন্যই বসেছিলেন এ দিন। অনেকের প্রশ্ন ছিল, শান্তশিষ্ট কুম্বলে আগ্রাসী, ছটফটে বিরাটের সঙ্গে মানিয়ে নিতে পারবেন তো? তার জবাবে এ দিন কুম্বলে বিরাটের পাশে বসেই বললেন, ‘‘ওর আগ্রাসন আমি পছন্দ করি। আমিও তো এ রকমই আগ্রাসী ছিলাম। কিন্তু মাঠে তা প্রকাশ করার পদ্ধতিটা দু’জনের দু’রকম। কারও স্বাভাবিক প্রবণতা নিয়ন্ত্রণের পক্ষপাতী আমি নই। তাই সেটা করবও না। তবে আমরা যেহেতু দেশের প্রতিনিধিত্ব করি, তাই একটা সীমা অবশ্যই রেখে চলতে হবে।’’

কুম্বলের মুখে যখন এই কথা, তখন তাঁর টেস্ট অধিনায়কের বক্তব্য, ‘‘অনিল ভাইয়ের কোচ হয়ে আসায় আমাদের খুব ভাল হয়েছে। দলের বোলাররা এ বার অনেক নিশ্চিন্তে থাকবে। আর উনি তো দেশকে প্রচুর ম্যাচ জিতিয়েছেন। জানেন দেশে ও বিদেশের মাঠে কী করে টেস্ট জিততে হয়।’’ কুম্বলে আসার পর যে ভারতীয় দলের ড্রেসিং রুমে পরিবর্তন এসেছে, তা স্বীকার করে নিয়ে বিরাট জানান, ‘‘গতকাল উনি একটা টিম অ্যাক্টিভিটি রেখেছিলেন (ড্রাম সার্কল সেশন)। যেখানে আমরা খুব মজা করেছি। প্রথমে তো খুব অবাক হয়ে গিয়েছিলাম। আসলে টানা ক্রিকেটে আমরা এত ব্যস্ত হয়ে পড়ি যে এই ধরনের টিম বন্ডিং সেশন করার কথা মনেই থাকে না। এটা দরকার ছিল।’’

আগের দিন প্রায় পৌনে এক ঘন্টার ড্রাম সেশনের পর ওয়ান ডে ক্যাপ্টেন মহেন্দ্র সিংহ ধোনি টেস্ট দলের সদস্যদের উদ্দেশ্যে বলেন, ‘‘এই যে আমরা আজ এত মজা করলাম, এর মানে আমরা বিশ্বের যে কোনও জায়গায় গিয়ে এমন মজা করতে পারি। আর এখন আমাদের হাতে একটা সেট টিম রয়েছে। যেখানে অনেক ভাল ব্যাটসম্যান আছে, ভাল বোলারও আছে প্রচুর। তাই বিশ্বের যে কোনও জায়গায় গিয়ে আমরা টেস্টে সাফল্য পেতে পারি।’’ ধোনির যে কথায় রীতিমতো তেতে উঠেছে টিম ইন্ডিয়া।

বাংলার দুই টেস্ট সদস্য ঋদ্ধিমান সাহা ও মহম্মদ শামি আরও উৎসাহিত ক্যাপ্টেনের কথায়। শামি সম্পর্কে বিরাট বলছেন, ‘‘ও নিখুঁত টেস্ট বোলার। শামির বোলিংয়ের ধারণাটা খুব ভাল। যেখানে বল সিম ও সুইং করে, সেখানে ও নিখুঁত লেংথটা ভাল বোঝে। যেখানে বল রিভার্স সুইং করে, সেখানে ও খুব ভাল জানে, কী ভাবে তা আদায় করে নিতে হবে। ওর কাছ থেকে শুধু আর একটা জিনিসই চাই, ধারাবাহিকতা।’’ ঋদ্ধিমানকে আশ্বস্ত করে বিরাটের বক্তব্য, ‘‘লোকেশ রাহুল দলে থাকলেও সাহা-ই আমাদের ফার্স্ট চয়েস কিপার। ও চোট না পেলে রাহুলকে স্টাম্পের পিছনে দাঁড় করানোর পরিকল্পনা আমাদের নেই।’’

সূত্র : আনন্দবাজার পত্রিকা