২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

মাদক খেয়ে যুদ্ধ করে আইএস জঙ্গিরা

 মাদক খেয়ে যুদ্ধ করে আইএস জঙ্গিরা

অনলাইন ডেস্ক॥ সিরিয়ার গৃহযুদ্ধে সব পক্ষই ক্যাপ্টাগন নামের একটি অ্যাম্ফিটামিন বড়ির নির্বিচার ব্যবহার করছে বলে জানা গেছে। এতে আইএস জঙ্গিদের উন্মত্ততা আরো বেড়ে যেতে পারে বলেও আশঙ্কা করা হচ্ছে।

শুক্রবার যুক্তরাষ্ট্রের বার্তা সংস্থা সিএনএনকে দেশটির সরকারের এক কর্মকর্তা বলেন, গোয়েন্দা তদন্তে জানা গেছে সিরিয়ার জিহাদিরা মাদকাসক্তির মতো আসক্তি তৈরি করতে সক্ষম এমন একটি অ্যাম্ফিটামিন বড়ি খেয়ে প্রতিপক্ষের ওপর হামলা চালায়।

সিএনএন এ সংক্রান্ত ২০১৪ সালের একটি ভিডিও ফুটেজ প্রচার করেছে। এতে এক আইএস জঙ্গিকে একটি বড়ি সম্পর্কে বিবরণ দিতে দেখা যায়। বড়িটি সম্ভবত ক্যাপ্টাগন নামের একটি অ্যাম্ফিটামিন বড়ি।

ভিডিওতে কারিম নামের এক জঙ্গিকে বলতে শোনা গেছে, “তারা আমাদেরকে ওষুধ দেয়; যা খেয়ে আমাদের মস্তিষ্কে বিভ্রম তৈরি হয়। এতে নিজের জীবনের বাঁচা-মরার পরোয়া না করেই যুদ্ধের ময়দানে যাওয়া যায়।”

১৯৮৭ সাল থেকেই অ্যাম্ফিটামিন নামের এই ওষুধটির উৎপাদন বেআইনী ঘোষণা করা হয়। জাতিসংঘের মাদক এবং অপরাধ বিভাগও এমনটাই জানিয়েছে।

এরপর মধ্যপ্রাচ্য এবং দক্ষিণ ও পূর্ব ইউরোপের দেশগুলোতে অ্যাম্ফিটামিন এর প্রসার ঘটে। সৌদি আরব, সিরিয়া, জর্ডান, লেবানন ও তুরস্কের ল্যাবগুলোতে বড়ি বানিয়ে এর বিক্রি শুরু হয়।

লেবাননের মনোচিকিৎসক রামজি হাদ্দাদ বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে বলেন, “ওষুধটি খেলে মানু্ষের দেহমনে এক ধরনের উদ্দাম ও সুখসুখ ভাব সৃষ্টি হয়। ওষুধটি খাওয়ার পর লোকে বেশি কথা বলা শুরু করে, ঘুম হারাম হয়ে যায়, খাওয়া-দাওয়ার রুচি কমে গেলেও শরীরে ব্যাপক শক্তি অনুভুত হয়।”

নির্বাচিত সংবাদ