১৮ অক্টোবর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

ইরাক-সিরিয়ায় আইএসের হয়ে লড়ছে ৩০ হাজার বিদেশি

 ইরাক-সিরিয়ায় আইএসের হয়ে লড়ছে ৩০ হাজার বিদেশি

অনলাইন ডেস্ক ॥ যুদ্ধবিধ্বস্ত সিরিয়া ও ইরাকে ৩০ হাজার বিদেশি যোদ্ধা জঙ্গিগোষ্ঠী ইসলামিক স্টেটের (আইএস) হয়ে লড়াই করছে বলে জানিয়েছেন জাতিসংঘের সহকারি মহাসচিব জ্যঁ পল ল্যাবোরে।

ওই যোদ্ধারা নিজ নিজ দেশে ফিরে গিয়ে আরও ধ্বংসযজ্ঞ চালাতে পারেন বলেও মঙ্গলবার নিরাপত্তা পরিষদের কাউন্টার টেররিজম বিভাগের প্রধান ল্যাবোরে আশঙ্কা করছেন।

জেনেভায় সাংবাদিকদের করা প্রশ্নের জবাবে ল্যাবোরে বলেন, “সিরিয়া এবং ইরাকে দায়েশ (আইএস) নিয়ন্ত্রিত অঞ্চলে বিদেশি যোদ্ধার সংখ্যা এ মুহূর্তে অনেক বেশি; প্রায় ৩০ হাজার।”

‘জিহাদি’ যোদ্ধাদের এ সংখ্যা বিভিন্ন দেশের সরকার ও গোয়েন্দা সংস্থাগুলোর থেকে নেয়া হয়েছে বলে জানান তিনি।

আন্তর্জাতিক বাহিনীর হামলায় সিরিয়া ও ইরাকে আইএসের দখল ‘সঙ্কুচিত হয়ে আসছে’ জানিয়ে ল্যাবোরে আশঙ্কা করেন, বিদেশি যোদ্ধার নিজেদের দেশে ফিরে গিয়ে সন্ত্রাসী হামলার পরিমাণ ও মাত্রা বাড়িয়ে দিতে পারে।

“এটা কেবল ইউরোপ নয়, মরক্কো-তিউনিসিয়াসহ যেসব দেশ থেকে তারা গিয়েছে সেসব দেশের জন্যই হুমকি। সিরিয়া-ইরাকে তাদের উপর যে চাপ পড়ছে তা থেকে বেরিয়ে আসতে এসব দেশে হামলার সম্ভাবনা বেড়ে যাচ্ছে বলে মনে করছি”, বলেন সাবেক এ ফরাসি বিচারক।

বিরূপ পরিস্থিতিতে আইএসের ‘মানিয়ে নেয়ার সক্ষমতা’ নিয়েও উদ্বেগ প্রকাশ করেন তিনি।

“তারা মানিয়ে নেয়ার বিরল সক্ষমতার নিদর্শন দেখাচ্ছেন। যখন তাদের দখলে থাকা অঞ্চল ছোট হয়ে আসছে তখনো তারা অর্থ সংগ্রহে মাদক চোরাচালানসহ নানা নতুন উপায় খুঁজে বের করছে।”, বলেন তিনি।

আইএসের সম্ভাব্য অবস্থান ও হামলা সম্পর্কে তথ্য জেনে তা দ্রুত আন্তর্জাতিক বাহিনী ও বিভিন্ন দেশের গোয়েন্দা সংস্থাগুলোকে সরবরাহ করতে গুগল, ট্যুইটার ও মাইক্রোসফটের মত বড় বড় ইন্টারনেট জায়ান্টের প্রতিও আহ্বান জানান ল্যাবোরে।

“যদি আমরা এটি না করতে পারি তাহলে বেড়ে যাওয়া সন্ত্রাসী কার্যক্রম থামাতে পারবো না”, বলেন জাতিসংঘের এ উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা।