১৩ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

উত্তরা দুর্ঘটনা ॥ বাবার পর চলে গেল মাইশা

উত্তরা দুর্ঘটনা ॥ বাবার পর চলে গেল মাইশা

অনলাইন রিপোর্টার॥ রাজধানীর উত্তরায় ট্রপিক্যাল আলাউদ্দিন টাওয়ারে লিফটে অগ্নিকাণ্ডে দগ্ধ হওয়ার দুই সপ্তাহ পর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় এক শিশুর মৃত্যু হয়েছে। এর আগে তার বাবাও ওই ঘটনায় মারা যান। তাকে নিয়ে মোট সাতজনের মৃত্যু হলো উত্তরার ওই দুর্ঘটনায়। ঢাকা মেডিক্যাল কলেজের বার্ন ইউনিটের আবাসিক চিকিৎসক পার্থ শংকর পাল জানান, শুক্রবার সকাল ৮টার দিকে মাইশা নামের ১০ বছর বয়সী শিশুটির মৃত্যু হয়।

পার্থ শংকর বলেন, ''মাইশার শরীরের ৫৫ শতাংশ পুড়ে গিয়েছিল। একই দুর্ঘটনায় দগ্ধ তার আট মাস বয়সী ছোট ভাই মোস্তাকিমও এখানে চিকিৎসাধীন। তার শরীরের ২৩ শতাংশ পুড়েছে।''

গত ২৫ জুন শুক্রবার সন্ধ্যায় উত্তরায় ট্রপিক্যাল আলাউদ্দিন টাওয়ারের লিফট রশি ছিঁড়ে বেইজমেন্টে পড়ে যায়। দুর্ঘটনার সময় বৈদ্যুতিক তার ছিঁড়ে আগুন ধরে গেলে ঘটনাস্থলেই মৃত্যু হয় পাঁচজনের।

আহতদের ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল, উত্তরায় বাংলাদেশ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল এবং উত্তরার ক্রিসেন্ট হাসপাতালে ভর্তি করা হয় সে সময়।

পরদিন বার্ন ইউনিটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান ট্রপিক্যাল হোমস লিমিটেডের এজিএম মাহমুদুল হাসান (৩৬)। মেয়ে মাইশা ও ছেলে মোস্তাকিমকে সঙ্গে নিয়ে ওই ভবনের নিচতলায় ট্রপিক্যাল হোমসের কার্যালয়ে ইফতার মাহফিলে গিয়েছিলেন তিনি।

উত্তরা তিন নম্বর সেক্টরে ১৬তলা আলাউদ্দিন টাওয়ারের নিচের ছয়তলা শপিংমল। এ ছাড়া বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের অফিসও রয়েছে ওই ভবনে।