১৫ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

মহিলার বুকে এসে লাগল গুলি, তবুও বাঁচলেন, কী ভাবে?

মহিলার বুকে এসে লাগল গুলি, তবুও বাঁচলেন, কী ভাবে?

অনলাইন ডেস্ক ॥ বাড়ির অমতে বিয়ে করেছিলেন শবনম। তখন থেকেই তাঁর প্রতি রাগ ছিল ভাই মহম্মদ নাদিমের। বোনকে হত্যা করার পরিকল্পনাও করেছিল সে। বৃহস্পতিবার ঈদের দিনে সেই সুযোগও এসে যায়। বোন কোথায় যাচ্ছে সেটা লক্ষ রেখেছিলেন মহম্মদ। হঠাত্ই শবনমকে লক্ষ্য করে সামনে থেকে গুলি চালান মহম্মদ। গুলি সোজা গিয়ে লাগে শবনমের গলায়। তিনি রাস্তায় পড়েও যান। লক্ষ্য সফল হয়েছে ভেবে সেখান থেকে পালায় মহম্মদ। আশপাশের লোকজনও গুলির আওয়াজে এবং শবনমকে পড়ে যেতে দেখে আঁতকে উঠেছিলেন। সবাই ভেবেছিলেন হয়তো তিনি মারাই গিয়েছেন! কিন্তু সকলকে চমকে দিয়ে রাস্তা থেকে উঠে পড়েন শবনম। তিনি নিজেও বুঝতে পারেননি কী ভাবে ঘটনাটি ঘটল। কী ভাবেই বা বাঁচলেন? আসলে গুলিটি গলার যেখানে লেগেছিল সেখানে একটি লকেট ছিল। গুলি সোজা এসে ওই লকেটে লেগে ছিটকে বেরিয়ে যায়। প্রাণে বাঁচেন শবনম।

অমিতাভ বচ্চন অভিনীত ‘কুলি’ সিনেমার কথা মনে আছে? যদি মনে থাকে তা হলে সেই দৃশ্যটার কথাও মনে আছে নিশ্চয়ই যেখানে দেখানো হয়েছিল, অমিতাভের হাতে বাঁধা একটি নম্বর লেখা ধাতব পাত কী ভাবে তাঁকে বাঁচিয়েছিল ভিলেনের বুলেট থেকে! সুনীল দত্তের একটি সিনেমাতেও দেখা গিয়েছিল একই রকম দৃশ্য। যেখানে নায়কের বুলেট থেকে পুলিশ অফিসারের প্রাণ বাঁচিয়েছিল তাঁর গলার লকেট। কিন্তু এগুলি সবই সিনেমার ঘটনা। বাস্তবেও যে এরকম ভাবে সাক্ষাত্ মৃত্যুকে ফাঁকি দেওয়া সম্ভব, তার সাক্ষী থাকল উত্তরপ্রদেশের মুজফ্ফরনগর। এখানেও ‘ত্রাতা’র ভূমিকায় ছিল একটি লকেট।

সূত্র : আনন্দবাজার পত্রিকা