১৫ নভেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

পর্যটকদের পদভারে মুখরিত কক্সবাজার

পর্যটকদের পদভারে মুখরিত কক্সবাজার

স্টাফ রিপোর্টার, কক্সবাজার ॥ দেশে সাম্প্রতিক জঙ্গীপনাসহ ঘটে যাওয়া নানা ঘটনার পরও পর্যটকের স্রোত কমেনি। ঈদের ছুটিতে লাখো পর্যটকের ভিড় জমেছে বিশ্বের দীর্ঘতম সমুদ্র সৈকত কক্সবাজারে। পর্যটকদের নিরাপত্তায় কঠোর রয়েছে প্রশাসন। বিপুল পর্যটকের পদভারে মুখরিত হয়ে উঠেছে কক্সবাজার সমুদ্র সৈকত। সব শঙ্কা কাটিয়ে ঈদের দীর্ঘ ছুটিতে পর্যটক মুখর হয়ে উঠেছে দর্শনীয় স্থানগুলোতে। চার শতাধিক হোটেল-মোটেলের বেশিরভাগ কক্ষই পরিপূর্ণতায় ভরা। এতে চরম খুশি আবাসিক হোটেল ব্যবসায়ীরা। পর্যটনের দর্শনীয় স্থান বিশেষ করে দরিয়ানগর, হিমছড়ি, পাথুরে বীচ ইনানী, প্রবালদ্বীপ সেন্টমার্টিন, রামুর বৌদ্ধ বিহার ও মন্দির, মহেশখালীর আদিনাথ মন্দির, ডুলাহাজারা বঙ্গবন্ধু সাফারী পার্কসহ বিভিন্ন পর্যটন স্পট ঘুরে বেড়াচ্ছে দেশ বিদেশের পর্যটকরা। কিছুটা দুর্যোগপূর্ণ আবহাওয়ায় সাগরে নেমে যেন কোন অনাকাঙ্খিত ঘটনার শিকার না হন পর্যটকরা, সেজন্য সতর্ক রয়েছে লাইফগার্ডকর্মীরাও। পর্যটকরা বলছেন, দেশে অস্থিতিশীল পরিবেশ সৃষ্টি করে আতঙ্ক ছড়ানো যাবে না। আমরা নির্ভয়ে সমুদ্র সৈকতে ভ্রমণে এসেছি। পর্যটন ব্যবসায়ীরা বলছেন, দেশে সাম্প্রতিক ঘটনার প্রেক্ষিতে পর্যটক সঙ্কটের আশঙ্কা ছিল। কিন্তু বিপুল সংখ্যক পর্যটক বৃষ্টি বাদলের দিনেও কক্সবাজারে ভিড় করায় আমরা অত্যন্ত খুশি।

কক্সবাজার হোটেল মালিক সমিতির নেতারা জানান, ৪ শতাধিক হোটেল মোটেল গেস্ট হাউস ও রিসোর্টগুলো পর্যটকে পূর্ণ। বিপুল পর্যটক সমাগমে যাতে কোন ধরণের অপ্রীতিকর ঘটনা না ঘটে- সেজন্য নানা সতর্কতা মুলক ব্যবস্থা নিয়েছে পুলিশ। মাঠে নামানো হয়েছে একাধিক টিম। ফলে পর্যটকদের ভ্রমন আনন্দময় হয়েছে। কক্সবাজারের পুলিশ সুপার শ্যামল কুমার নাথ জানান, কক্সবাজারে বেড়াতে আসা পর্যটকদের নিরাপত্তায় ট্যুরিস্ট পুলিশ ও জেলা পুলিশের সমন্বয়ে নিছিদ্র নিরাপত্তার ব্যবস্থা গ্রহণ করায় পর্যটকরা সুন্দরভাবে ভ্রমন করতে পারছে।