১৪ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

২৫০ শয্যা বিশিষ্ট সিরাজগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসা সেবা আরো এক ধাপ এগিয়েছে

স্টাফ রিপোর্টার, সিরাজগঞ্জ ॥ ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট সিরাজগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসা সেবা আরো এক ধাপ এগিয়েছে। হাসপাতালের বিভিন্ন সেবার সঙ্গে সংযোজন হয়েছে কিডনি রোগের ডায়ালাইসিস কার্য্যক্রম । এর আগে এই হাসপাতালে অপারেশন না করে ল্যাপারোস্কোপি মেশিনে শুধুমাত্র ফুটো করে পাথর অপসারণ কাজও শুরু করা হয়েছে। জেলা পর্যায়ের হাসপাতালে কিডনি রোগের ডায়ালাইসিস ও ল্যাপারোস্কোপি মেশিনে শুধুমাত্র ফুটো করে পাথর অপসারণ এই প্রথম বলে সংশ্লিষ্ট সুত্র জানিয়েছে। শনিবার সিরাজগঞ্জ শহরের ধানবান্ধি মহল্লার রবিউল ইসলামের (৩৬) ডায়ালাইসিসের মাধ্যমে এই কার্য্যক্রম শুরু হয়। সিরাজগঞ্জে শহীদ এম মনসুর আলী সরকারি মেডিক্যাল কলেজের নেপ্রোলজি বিভাগের সহকারি অধ্যাপক শরিফুল হক রোগীর ডায়ালাইসিস করেন। ল্যাপারোস্কোপি মেশিনে পরিচালনা করেন সহকারি অধ্যাপক জাহিদুল ইসলাম।

প্রায় ৩২ লাখ অধ্যুষিত সিরাজগঞ্জ জেলায় সরকারি পর্যায়ে স্বাস্থ্য সেবার একমাত্র প্রতিষ্ঠান ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট সিরাজগঞ্জ জেনারেল হাসপাতাল। এটিকে কাগজে কলমে ২৫০ শয্যা ঘোষণা করা হলেও এর কার্যক্রম ও জনবল ছিল এক শয্যার হাসপাতালের মতো। এটিকে ২৫০ শয্যার মানে উন্নীত করেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম। শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বর্তমান সরকারের স্বাস্থ্য মন্ত্রনালয়ের দায়িত্ব পেয়ে মোহাম্মদ নাসিম প্রধানমন্ত্রীর প্রতিশ্রুত জনগণের স্বাস্থ্য সেবার প্রতি গুরুত্ব দিয়ে সিরাজগঞ্জে একটি সরকারি মেডিক্যাল কলেজ প্রতিষ্ঠা করেন। নামকরণ করা হয় জাতীয় নেতা সিরাজগঞ্জের মাটি ও মানুষের সন্তান শহীদ এম মনসুর আলীর নামানুসারে ‘শহীদ এম মনসুর আলী মেডিক্যাল কলেজ’। এর পর ধীরে ধীরে ২৫০ শয্যার হাসপাতালে জনবলসহ নানা যন্ত্রপাতি ও চিকিৎসা সামগ্রী দিয়ে সাজানো শুরু হয়েছে। এরই অংশ হিসেবে কিডনি ডায়ালাইসি মেশিন ও ল্যাপারোস্কোপি মেশিনসহ হার্টের রোগীদের জন্য সিসিইউ এবং আইসিইউ সংযোজন করা হয়েছে। নির্মাণ করা হয়েছে একটি প্রসাদোপ ভবনও। খুব শীঘ্রই এই ভবন উদ্বোধন করা হবে বলে সংশ্লিস্ট সূত্র জানিয়েছে।