২১ নভেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

ডালাস হত্যাকাণ্ড ॥ ৫ পুলিশ নিহত

  • শ্বেতাঙ্গদের হত্যা করতে চেয়েছিল হামলাকারী ॥ বোমার সরঞ্জাম উদ্ধার

যুক্তরাষ্ট্রে পুলিশের গুলিতে কৃষ্ণাঙ্গদের নিহত হওয়ার ঘটনায় বিপর্যস্ত বন্দুকধারী শ্বেতাঙ্গদের বিশেষ করে শ্বেতাঙ্গ পুলিশ কর্মকর্তাদের হত্যা করতে চেয়েছিলেন। টেক্সাস অঙ্গরাজ্যের ডালাস শহরের পুলিশ প্রধান ডেভিড ব্রাউন এ দাবি করেছেন। ডালাসে মিকা জনসন (২৫) নামে ওই বন্দুকধারীর গুলিতে পাঁচ পুলিশ নিহত ও ১২জন গুলিবিদ্ধ হয়। পরে শুক্রবার ভোরে পুলিশের রোবট দিয়ে বোমার বিস্ফোরণ ঘটানো হলে জনসনের মৃত্যু হয়। এদিকে তার বাড়িতে তল্লাশি চালিয়ে বোমা তৈরির উপাদান, রাইফেল, গোলাবারুদ ও যুদ্ধ বিষয়ক একটি জার্নাল পাওয়া গেছে। খবর টেলিগ্রাফ, বিবিসি ও ওয়েবসাইটের।

এটিই ৯/১১‘এর পর যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসে আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর ওপর বন্দুকধারীদের সবচেয়ে ভয়াবহ হামলার ঘটনা। এর আগে মিনেসোটা ও লুইজিয়ানা অঙ্গরাজ্যে পুলিশের গুলিতে দুই কৃষ্ণাঙ্গ ব্যক্তি নিহত হওয়ার প্রতিবাদে বৃহস্পতিবার বিক্ষোভের সময় পুলিশের ওপর চোরাগোপ্তা গুলি চালানো হয়। ডালাসের পুলিশ প্রধান ব্রাউন দাবি করেছেন, ওই বন্দুকধারীকে আত্মসমর্পণ করানোর জন্য একজন মধ্যস্থতাকারীর মাধ্যমে আলোচনা চলছিল। তখন জনসন জানিয়েছেন যে, পুলিশ যেভাবে সম্প্রতি কিছু কৃষ্ণাঙ্গকে গুলি করে হত্যা করেছে, সেসব নিয়ে তিনি ক্ষুব্ধ ছিলেন। তিনি বলেছেন, জনসন কৃষ্ণাঙ্গদের জীবনযাপন নিয়ে হতাশ ছিলেন। সম্প্রতি পুলিশের গুলিতে কৃষ্ণাঙ্গ ব্যক্তির নিহত হওয়ার ঘটনায় তিনি বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছিলেন। শ্বেতাঙ্গদের নিয়েও তার মধ্যে হতাশা কাজ করছিল। তিনি বলেছেন, তিনি শ্বেতাঙ্গদের বিশেষ করে শ্বেতাঙ্গ পুলিশদের হত্যা করতে চান। তিনি বলেছেন, তিনি কোন দলের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট নন এবং তিনি একাই এ ঘটনা ঘটিয়েছেন। জনসন এক সময় মার্কিন সেনাবাহিনীতে ছিলেন এবং আফগানিস্তান ও ইরাকে কাজ করেছেন। পেন্টাগন জানিয়েছে, সেনাবাহিনীতে থাকার সময়ে তার বিরুদ্ধে কখনও কোন অভিযোগ ওঠেনি। তার সঙ্গে কৃষ্ণাঙ্গদের কোন সংগঠন বা কোন রাজনৈতিক দলেরও সম্পক নেই। ডালাসের মেয়র মাইল রাওলিং শুক্রবার এক সংবাদ সম্মেলনে বলেছেন, জনসন একাই গুলিবর্ষণ করছিলেন বলে কর্মকর্তাদের বিশ্বাস। আমরা বিশ্বাস করি, শহরটি এখন নিরাপদ। তিনি জানান, সামরিক কৌশলের ওপর জনসনের লেখা ‘মেনিফেস্টো’ ছিল। এছাড়া সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে জনসনের দেয়া পোস্টে দেখা যায়, তিনি কৃষ্ণাঙ্গ জাতীয়তাবাদের জঙ্গী আদর্শ প্রচার করছিলেন। ব্রাউন বলেন, বিক্ষোভ চলাকালে গুপ্তঘাতকের ছোড়া গুলিতে ১০ পুলিশ আহত হন। পরে সন্দেহভাজন এক হামলাকারীর সঙ্গে পুলিশের গুলি বিনিময় হয়। এ সময় আরও এক পুলিশ আহত হন। ওই পুলিশ সদস্যকে হাসপাতালে নেয়া হয়েছে। এ ঘটনায় জড়িত সন্দেহে পুলিশ তিনজনকে আটক করেছে। চতুর্থ এক ব্যক্তিকে মৃত অবস্থায় পাওয়া গেছে। পুলিশ বলেছে, যখন তাকে পুলিশ একটা জায়গায় ঘেরাও করে কোনঠাসা করে ফেলে, তখন সেখানে পুলিশের বিশেষ রোবট পাঠিয়ে বোমার বিস্ফোরণ ঘটানো হয় এবং সেই বিস্ফোরণে জনসন মারা যান। এ হামলার পর পোল্যান্ড সফররত মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা ডালাস মেয়রের সঙ্গে কথা বলেন এবং ‘গভীর সমবেদনা’ প্রকাশ করেন। ওবামা বলেন, আমরা এখনও পুরো বিষয়টি জানতে পারিনি। আমি শুধু জানতে পেরেছি সেখানে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর উপর নিষ্ঠুর, পরিকল্পিত ও ঘৃণ্য হামলা চালানো হয়েছে। আসন্ন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ডেমোক্র্যাটিক পার্টির পদপ্রার্থী হিলারি ক্লিনটন নিহত পুলিশ কর্মকর্তাদের পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানিয়ে পেনসিলভানিয়ায় তার সমাবেশ বাতিল করেছেন। অপরদিকে রিপাবলিকান পার্টির পদপ্রার্থী ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেছেন, ডালাসের গুলির ঘটনার ভিডিও জাতির আত্মাকে কাঁপিয়ে দিয়েছে। মিনেসোটার সেন্ট পলের কাছে বুধবার পুলিশের গুলিতে ফিল্যান্ডো ক্যাস্টিল (৩২) নামে এক আফ্রিকান বংশোদ্ভূত এক মার্কিন নিহত হন। এর কয়েক মিনিট পরেই তার বান্ধবী ইন্টারনেটে এ ঘটনার ভিডিও প্রকাশ করে। এর একদিন আগেই আফ্রিকান বংশোদ্ভূত আরেক আমেরিকান এ্যাল্টন স্টার্লিংকে (৩৭) লুজিয়ানায় দুই শ্বেতাঙ্গ পুলিশ গুলি করে হত্যা করে। সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে এই হত্যাকাণ্ডের ভিডিও ছড়িয়ে পড়ে।