১৮ নভেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

ইউরোপের দুই পুঁজিবাজার মার্জারে ভোট ১২ জুলাই

অর্থনৈতিক রিপোর্টার ॥ ইউরোপের অন্যতম বড় পুঁজিবাজার জার্মানির ডাচেস বোয়ের্সের সঙ্গে একীভূত হওয়ার পরিকল্পনা বাস্তবায়নে ভোটাভুটিতে যাচ্ছেন লন্ডন স্টক এক্সচেঞ্জের শেয়ারহোল্ডাররা। আগামী ১২ জুলাই এই ভোটাভুটি অনুষ্ঠিত হবে। শেয়ারহোল্ডারদের ভোটের ভিত্তিতেই এই চুক্তি অনুমোদিত হবে। আর ২০১৭ সালে এই চুক্তি সম্পূর্ণ হবে বলে আশা করছে দুই কোম্পানি।

ইউরোপের অন্যতম বড় পুঁজিবাজার জার্মানির ডাচেস বোয়ের্সের সঙ্গে একীভূত হওয়ার পরিকল্পনা বাস্তবায়নে ভোটাভুটিতে যাচ্ছেন লন্ডন স্টক এক্সচেঞ্জের শেয়ারহোল্ডাররা।

বিবিসি এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে, চলতি বছরের শুরুতে একীভূত হতে ২৭০০ কোটি ডলারের চুক্তিতে একমত হয় ইউরোপের দুই বৃহৎ স্টক এক্সচেঞ্জ ডাচেস বোয়ের্স ও লন্ডন। তবে সম্প্রতি ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ) থেকে ব্রিটেনের বেরিয়ে যাওয়ার (ব্রেক্সিট) গণরায় তা বাস্তবায়নে বাধা হয়ে দাঁড়িয়েছে।

যদিও উভয় কোম্পানি বলছে, এই চুক্তি বাস্তবায়নে কোন প্রভাব ফেলবে না ব্রেক্সিট।

জার্মানির নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাফিন জানিয়েছে, পরিকল্পনা বাস্তবায়িত হলে সদরদফতর লন্ডনে থাকবে না। তবে এ চুক্তির ব্যাপারে বাফিনের কোন ভেটো নেই। এটি একান্তই ডাচেস বোয়ের্সের বিষয়। যুক্তরাজ্যের গণভোটের পর এক যৌথ বিবৃতিতে কোম্পানি দুটি জানায়, এর ফলে মার্জারে কোন প্রভাব পড়বে না।

ওই সময় ডাচেস বোয়ের্সের প্রধান জোয়াকিম ফেবার বলেন, এজন্য যুক্তরাজ্য ও ইউরোপের মধ্যে সুসম্পর্ক অতি গুরুত্বপূর্ণ। চুক্তির সঙ্গে জড়িত থাকা এক সূত্র জানায়, এটি বাস্তবায়নে লন্ডন স্টক এক্সচেঞ্জের শেয়ারহোল্ডাররা ‘স্বতঃস্ফূর্ত’ সমর্থন জানাবে বলে আশা করা হচ্ছে। স্ট্যান্ডার্ড লাইফ ইনভেস্টমেন্টের যুক্তরাজ্যভিত্তিক শেয়ারবিভাগের প্রধান ডেভিড কামিং বলেন, চুক্তি বাস্তবায়নে উভয় প্রতিষ্ঠানের (লন্ডন স্টক এক্সচেঞ্জ ও ডাচেস বোয়ের্স) শেয়ারহোল্ডাররা সমর্থন করবে।

এর আগে ২০০০ সালে মার্জার হওয়ার ঘোষণা দেয় লন্ডন স্টক এক্সচেঞ্জ ও জার্মানির ডাচেস বোয়ের্স। তবে এক পর্যায়ে আলোচনা থেকে সরে দাঁড়ায় লন্ডন স্টক এক্সচেঞ্জ। এরপর ২০০৪ সালে আবারও চেষ্টা চলে। কিন্তু তাও সফল হয়নি।

গম রফতানিতে শীর্ষে রাশিয়া

অর্থনৈতিক রিপোর্টার ॥ কৃষিপণ্য রফতানিতে বিশ্বের শীর্ষ দেশগুলোর মধ্যে জায়গা করে নিয়েছে রাশিয়া। ২০১৬ সালে গম রফতানিতে শীর্ষ স্থানে পৌঁছাবে দেশটি। এমন মন্তব্য করে রুশ প্রধানমন্ত্রী দিমিত্রি মেদভেদেভ বলেছেন, খাদ্য রফতানিতে বিশ্বে আবারও আগের অবস্থান ফিরে পেতে কাজ করছে রুশ সরকার। এ খাতের উন্নয়নে ২১ হাজার ৫শ’ কোটি ডলারের প্রণোদনা ঘোষণা করেছে দেশটির সরকার। মানসম্মত কৃষিপণ্য উৎপাদনের মধ্য দিয়ে দেশের কৃষি খাতকে আমদানি থেকে রফতানিতে রূপান্তরের কাজ করছে রুশ সরকার।

২০১৩ সালে বিশ্বের নবম বৃহত্তম খাদ্য রফতানিকারক দেশ ছিল রাশিয়া। জ্বালানির পর কৃষি খাতকে বৃহত্তম রফতানি খাত হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করতে চায় রুশ সরকার।

যুক্তরাষ্ট্রে গাড়ি বিক্রিতে রেকর্ড

অর্থনৈতিক রিপোর্টার ॥ চলতি বছরের প্রথম ছয় মাসে সবচেয়ে বেশি গাড়ি বিক্রি করেছে যুক্তরাষ্ট্র। আলোচিত সময়ে দেশটি গাড়ি বিক্রি করেছে ৮৬ লাখেরও বেশি। গত বছর একই সময়ে এর পরিমাণ ছিল ৮৫ লাখ। সম্প্রতি টাইমস অব ইন্ডিয়ার এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে। প্রতিবেদনে বলা হয়, সদ্য শেষ হওয়া মাসে যুক্তরাষ্ট্রের গাড়ি বিক্রি বেড়েছে। অথচ গত মে মাসে তা ছিল ধীর। জুন মাসে ২.৫ শতাংশ গাড়ি বিক্রি বেড়েছে। এ সময়ে প্রায় ১৫ লাখ গাড়ি বিক্রি হয়েছে। আলোচিত সময়ে ফোর্ড, হোন্ডা, ফিয়াট ক্রিশ্চলার, হুন্দাই, সাবুরূ ও নিশানের গাড়ির বিক্রিবাট্টা ভাল হয়েছে। তবে কমেছে জেনারেল মোটরস, টয়োটা ও ভক্সওয়াগনের। গত বছর মোট ১ কোটি ৭৫ লাখ গাড়ি বিক্রি করে যুক্তরাষ্ট্র। যা ছিল গত কয়েক বছরের মধ্যে সর্বোচ্চ। ধারণা করা হচ্ছে, চলতি বছর তা ছাড়িয়ে যাবে। নিম্ন গ্যাসের মূল্য, নিম্ন সুদের হার, নতুন গাড়ি নিয়ে সু-প্রচারণা এবং ভোক্তা চাহিদা বেশি থাকায় এ প্রত্যাশা করা হচ্ছে। গাড়ি কেনাকাটার সাইট এডমুন্ডস ডটকমের উর্ধতন কর্মকর্তা জেসিকা ক্লাডওয়েল বলেন, যুক্তরাষ্ট্রের শিল্প খাত বর্তমানে অনেক ভাল অবস্থানে রয়েছে। আগামী গ্রীষ্মে সবচেয়ে বেশি গাড়ি বিক্রি করবে দেশটি।