২১ নভেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

মদিনায় বোমা হামলার পর ১২ পাকিস্তানী গ্রেফতার

সৌদি আরবে চলতি সপ্তাহে একই দিন চালানো তিনটি হামলার দুটিতে জড়িত সন্দেহভাজনদের পরিচয় প্রকাশ করেছে কর্তৃপক্ষ। এদের মধ্যে একটি হামলা ছিল আত্মঘাতী এবং সেটি চালানো হয় মুসলমানদের দ্বিতীয় পবিত্রতম মসজিদ মহানবীর (স) স্মৃতিবিজড়িত মদিনায় মসজিদে নববীর কাছে। সোমবারের ওই হামলায় সৌদি নিরাপত্তা বাহিনীর চার সদস্য নিহত হন। সৌদি মন্ত্রণালয় জানায়, ওই সব হামলার তদন্ত শেষে ১৯ জন সন্দেহভাজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তাদের মধ্যে ১২ জন পাকিস্তানী ও ৭ জন সৌদি নাগরিক। এ সম্পর্কে বিস্তারিত কিছু এখনও জানা যায়নি। খবর ইয়াহু নিউজের।

বৃহস্পতিবার স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক বিবৃতিতে বলা হয়Ñ সোমবারের দৃশ্যত সমন্বিত হামলাগুলোর মধ্যে মদিনায় বোমা হামলাকারী এক সৌদি নাগরিক। তার নাম নায়ের আল নুজিয়াইদি আল বালাওয়ি এবং তার বয়স ২৬ বছর। সৌদি সংবাদ সংস্থা জানায়, মসজিদে নববীর নিরাপত্তা বিষয়ক প্রধান দফতরের কাছে আত্মঘাতী বোমা বিস্ফোরণে আহত ১ জনকে দেখতে যান সৌদি যুবরাজ ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মোহাম্মদ বিন নায়েফ।

পূর্বাঞ্চলের কাতিফে এক শিয়া মসজিদের বাইরে চালানো হামলাটির সঙ্গে জড়িত ৩ আত্মঘাতী বোমা হামলাকারীকে শনাক্ত করা হয়েছে। তারা হচ্ছেÑ আবদুল রহমান সালেহ মোহাম্মদ, ইব্রাইম সালেহ মোহাম্মদ ও আবদেল করিম আল-হেসনি। এদের বয়স ২০ বছরের কাছাকাছি। তারা কোন দলের নাগরিক তাৎক্ষণিকভাবে স্পষ্ট করে তা জানা যায়নি। কাতিফ হামলায় কোন বেসামরিক লোক বা পুলিশ আহত হয়নি।

মন্ত্রণালয় বলেছে, জেদ্দায় মার্কিন কনস্যুলেটের বাইরে বোমা হামলাকারীকে মঙ্গলবার শনাক্ত করা হয়েছে। সে পাকিস্তানী নাগরিক। সে ১২ বছর আগে গাড়িচালক হিসেবে কাজ করার জন্য সৌদি আরব আসে। তার নাম আবদুল্লাহ গুলজার খান, বয়স ৩৪ বছর। সে তার স্ত্রী ও মা-বাবার সঙ্গে বন্দর শহর জেদ্দায় বাস করে। বিবৃতিতে বিস্তারিত কিছু বলা হয়নি।

দুই নিরাপত্তা রক্ষী গুলজারের দিকে এগিয়ে আসতে থাকলে সে বোমার বিস্ফোরণ ঘটায় এবং আত্মহনন করে। নিরাপত্তারক্ষীরা কিছুটা আহত হয় বলে মন্ত্রণালয় জানিয়েছে। কনস্যুলারের কোন স্টাফ আহত হয়নি। এ হামলাও দায় এখনও স্বীকার করেনি কোন গ্রুপ। কিন্তু হামলার ধরন থেকে ইঙ্গিত পাওয়া যায় যে, জঙ্গী ইসলামিক স্টেট (আইএস) গ্রুপ এ হামলা চালিয়েছে। সৌদি আরবে সোমবারের হামলাগুলোর নিন্দা জানিয়েছে পাকিস্তান। সৌদি আরবে প্রায় ৯০ লাখ বিদেশীর বাস। দেশের মোট জনসংখ্যা হচ্ছে ৩ কোটি। সৌদি আরবে বসবাসরত বিদেশীদের মধ্যে পাকিস্তানীদের সংখ্যা সবচেয়ে বেশি।

সৌদি মন্ত্রণালয় বলেছে, মদিনায় হামলাকারী একটি গাড়ি পার্কিং স্থানে বোমাটির বিস্ফোরণ ঘটায়। এর আগে নিরাপত্তা কর্মকর্তারা অবশ্য তাকে সন্দেহ করছিলেন। বোমা বিস্ফোরণের সঙ্গে সঙ্গে কয়েকটি গাড়িতে আগুন ধরে যায় এবং কালো ধুয়া ওড়তে দেখা যায়। মসজিদের চারদিকে রাস্তায় তখন ভিড় ছিল হাজারও মানুষের। এ ধরনের উল্লেখযোগ্য একটি পবিত্র স্থান হামলার লক্ষ্যবস্তু হওয়ায় প্রচ- দুঃখ প্রকাশ করেন মুসল্লিরা। সোমবার মুসলমানদের পবিত্র রমজান মাসের দিন হওয়ায় মসজিদটি ছিল জনাকীর্ণ। স্থানীয় সংবাদমাধ্যম বলেছে, মসজিদে হামলা চালানোর উদ্দেশ্য ছিল হামলাকারীর। ইরাক ও সিরিয়ায় আইএসের বিরুদ্ধে লড়াইরত মার্কিন নেতৃত্বাধীন জোটের অংশীদার সৌদি আরব এবং এ জঙ্গী গ্রুপটি সৌদি আরবের ক্ষমতাসীন শাসককে তাদের শত্রু মনে করে।