২০ অক্টোবর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

সেলুলয়েডে চোখ রেখে কেটেছে আনন্দময় সময়

  • সংস্কৃতি সংবাদ

স্টাফ রিপোর্টার ॥ ঈদ মানেই অপার আনন্দ। সারাবছরের কর্মব্যস্ত একঘেয়ে জীবনের মাঝে হই-হুল্লোড় আর উচ্ছ্বাসে মেতে ওঠা তিনটি দিন। তাই আনন্দ উদযাপনের উৎস খুঁজে বেড়াতে উন্মুখ হয়ে থাকে নাগরিক মন। এক্ষেত্রে ঘরে বসে ছোট পর্দায় অসংখ্য টেলিভিশন চ্যানেলের নানা অনুষ্ঠানমালার সঙ্গে বড় পর্দায় সিনেমা দেখা বিনোদনের অন্যতম অনুষঙ্গ। বহুকাল ধরেই বাঙালীর ঈদ উৎসবের অন্যতম অনুষঙ্গ ছবি দেখা। সেলুলয়েডে চোখ রেখে কেটে যায় আনন্দময় কিছুটা সময় কিংবা মুহূর্ত। প্রতিবছর ঈদে সিনেমাপ্রেমীদের বিনোদনে মুক্তি দেয়া হয় নতুন ছবি। উৎসবের সঙ্গে যুক্ত হওয়ায় ছবিগুলোর লগ্নিকৃত বিনিয়োগ তুলে মুনাফার প্রত্যাশা থাকায় প্রযোজক ও পরিচালকরা থাকেন স্বস্তিতে। এবারের ঈদ উৎসবে মুক্তি পেয়েছে চারটি চলচ্চিত্র। ছবিগুলো হলো- শিকারী, বাদশা, সম্রাট ও রানা পাগলা-দ্য মেন্টাল। বিনোদন খুঁজে নিতে এসব ছবি দেখতে রাজধানীর বিভিন্ন প্রেক্ষাগৃহে ভিড় জমিয়েছেন দর্শকরা।

অন্ধকার ঘরে বসে নয়নজুড়ানো নানা দৃশ্য, সংলাপ, এ্যাকশন কিংবা নাচ-গানের ভেতর দিয়ে ছবির গল্পের ভেতরে প্রবাহিত হয়েছে সিনেমা অনুরাগীর মনোসংযোগ। যদিও এখন ঘরে বসেই অসংখ্য টিভি চ্যানেলে হরেক রকম নাটক, টেলিফিল্ম, সঙ্গীতানুষ্ঠান, তারকাদের আড্ডাসহ সিনেমা দেখার অবারিত সুযোগ রয়েছে। তবে বিজ্ঞাপনের যাতনায় নির্দিষ্ট কোন অনুষ্ঠান দেখতে গিয়ে দর্শককে হতে হয় চরম বিরক্ত। আবার অসংখ্য অনুষ্ঠান থাকলেও উৎকর্ষতার বিবেচনায় সব অনুষ্ঠান দেখা হয় না দর্শকের। তাই কিছুক্ষণ পরপর হাতের রিমোর্টটি চেপে চলে যেতে হয় চ্যানেল থেকে চ্যানেলে। এ কারণেই ঢাকাই ছবির ম্রিয়মান দশায়ও হারিয়ে যায়নি প্রেক্ষাগৃহে বসে চলচ্চিত্র দেখার আবেদন। কোন বিরতি ছাড়াই আনন্দে কেটে যায় কয়েকটি ঘণ্টা। নেই মনোযোগ হারানোর সুযোগ।

বৃহস্পতি থেকে শনিবার পর্যন্ত ঈদ-উল-ফিতরের তিন দিন ঢাকাবাসীর অনেকেই নানা প্রেক্ষাগৃহে ঢুঁ মেরে ছবি দেখে নির্মল আনন্দে সময় কাটিয়েছেন। রাজধানীর নানা সিনেমা হলে হাজির হয়েছে ঢাকাই ছবির দর্শকরা। ঈদ উপলক্ষে অন্য সময়ের চেয়ে দর্শক সমাগমও বেশি হয়েছে। এবারের উৎসবে সারাদেশের প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি পেয়েছে চারটি চলচ্চিত্র। চলচ্চিত্র সংশ্লিষ্টদের তথ্য অনুযায়ী, শনিবার পর্যন্ত এবারের ঈদের চার ছবি মধ্যে ভাল দর্শক সাড়া পেয়েছে শিকারী ও বাদশা। এই দুই ছবির প্রতিই দর্শকরা আকৃষ্ট হয়েছে। আর এই দুই ছবির সফল রসায়নে ভূমিকা রেখেছে ঢালিউড কিংখ্যাত শাকিব খান ও কলকাতার জনপ্রিয় নায়ক জিৎ। শিকারী ছবিতে ভিন্ন রকম লুকে নিজেকে উপস্থাপন করেছেন শাকিব খান। তাঁর সঙ্গে কলকাতার জনপ্রিয় নায়িকা শ্রাবন্তীর রসায়ন দর্শককে দারুণভাবে টেনেছে প্রেক্ষাগৃহে। অন্যদিকে বাদশা ছবিতে জিতের সঙ্গে জুটি বেঁধেছেন হালের উঠতি নায়িকা নুসরাত ফারিয়া। এই জুটিও রাঙিয়ে দিয়েছেন সিনেমাপ্রেমীদের মন।

চলচ্চিত্র প্রদর্শক সমিতির সাধারণ সম্পাদক মিয়া আলাউদ্দীন জানান, ঈদের মুক্তিপ্রাপ্ত চারটি ছবির মধ্যে দর্শকদের মধ্যে ব্যাপকভাবে সাড়া ফেলেছে শিকারী ও বাদশা। ঢাকাই ছবির ম্রিয়মান দশার মাঝেও এই ছবিগুলো কিছুটা হলেও আশার আলো দেখাচ্ছে। তবে এই অবস্থা কতটা ধরে রাখা সম্ভব তা নিয়ে সংশয় আছে।

মতিঝিলের মধুমিতা সিনেমা হলে চলছে শিকারী ছবিটি। চলচ্চিত্রটি প্রসঙ্গে এই প্রেক্ষাগৃহের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ইফতেখার উদ্দীন নওশাদ বলেন, ঈদের প্রথম দিন থেকেই এই ছবিটি দর্শক টানছে। ঈদে ঢাকা কিছুটা ফাঁকা থাকলেও প্রথম দিনই শিকারী ছবি দেখতে হাউসফুল দর্শক হয়েছে। সচরাচর ঈদের প্রথম দিনই প্রেক্ষাগৃহ পূর্ণ হওয়ার মতো দর্শক সমাগম ঘটে না। সেই দিক থেকে এবার রেকর্ড হয়েছে। ছবিটির চিত্রনাট্য, মেকিং ও গানের দৃশ্যায়ন ভাল হওয়ায় এই ছবিটি দর্শক আকৃষ্ট হচ্ছে। সব মিলিয়ে দর্শক টানার মূল কারণ হচ্ছে চলচ্চিত্রটির প্রোডাকশন ভ্যালুজ ভাল হয়েছে। এছাড়া শাকিব খান নিজেকে অনেকটা পরিবর্তন করে নতুন রূপে হাজির হয়েছেন এই ছবিতে। ছবিটি ভাল ব্যবসা করার এটাও অন্যতম কারণ।

সারাবছরের মতো ঈদের ছবিতেও আপন আধিপত্য বজায় ধরে রেখেছেন শাকিব খান। ঈদের মুক্তিপ্রাপ্ত চার ছবির তিনটিতেই দাপিয়ে বেড়াচ্ছেন তুমুল জনপ্রিয় এই নায়ক। সম্রাট, শিকারী ও রানা পাগলাÑদ্য মেন্টাল এই তিন ছবিতে নিয়ে হাজির হয়েছেন ঢাকাই ছবির তুমুল জনপ্রিয় এই নায়ক। শিকারী ছবিতে কিলিং মিশনের প্রধান, সম্রাট ছবিতে গডফাদার ও মেন্টাল ছবিতে প্রেমিক হিসেবে পর্দায় হাজির হয়েছেন শাকিব। তার সঙ্গে এসব ছবিতে নায়িকার ভূমিকায় অভিনয় করেছেন অপু বিশ্বাস, তিশা ও টালিউডের নায়িকা শ্রাবন্তী দত্ত। এদিকে বাদশা ছবির মাধ্যমে শাকিবের একচেটিয়া সাম্রাজ্যে প্রতিদ্বন্দ্বী হয়েছেন কলকাতার জনপ্রিয় নায়ক জিৎ। এই ছবিতে জিতের সঙ্গে জুটি বেঁধেছেন উঠতি নায়িকা নুসরাত ফারিয়া।

ঈদের চার ছবির মধ্যে বাংলাদেশে জাজ মাল্টিমিডিয়া ও ভারতের এসকে মুভিজের বড় বাজেটের দুই যৌথ প্রযোজনার ছবি বাদশা ও শিকারী। বাদশা ছবির পরিচালনায় রয়েছেন কলকাতার বাবা যাদব। অন্যদিকে যৌথভাবে শিকারী চলচ্চিত্রের পরিচালনা করেন জাকির হোসেন সীমান্ত ও ভারতের জয়দেব মুখার্জী। মুহাম্মদ মুস্তাফা কামাল রাজ পরিচালিত চলচ্চিত্র সম্রাট। শাকিবের সঙ্গে এ ছবিতে অভিনয় করেছেন অপু বিশ্বাস ও কলকাতার ইন্দ্রনীল। ছবিটির প্রযোজক জাহিদ হাসান অভি। শামীম আহমেদ রনি পরিচালিত রানা পাগলাÑদ্য মেন্টাল ছবিতে শাকিবের নায়িকা হয়েছেন তিশা। এছাড়াও বিভিন্ন চরিত্রে অভিনয় করেছেন আঁচল ও পড়শী। ছবিটির প্রযোজক পারভেজ চৌধুরী।

এই মাত্রা পাওয়া