২১ নভেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

কাশ্মীরে সংঘর্ষে নিহত ১১, আহত ২০০

কাশ্মীরে সংঘর্ষে নিহত ১১, আহত ২০০

অনলাইন ডেস্ক ॥ হিজবুল মুজাহিদ্দিনের স্বঘোষিত কমান্ডার বুরহান মুজাফফর ওয়ানির মৃত্যুকে কেন্দ্র করে রণক্ষেত্র হয়ে উঠেছে কাশ্মীর উপত্যকা। নিরাপত্তারক্ষীদের সঙ্গে বিচ্ছিন্নতাবাদীদের সংঘর্ষে ১১ জন নিহত হয়েছেন। সংঘর্ষে অন্তত ২০০ জন আহত হয়েছেন বলেও জানিয়েছে ভারতীয় সংবাদ মাধ্যম।

বুরহান ওয়ানির শেষকৃত্যকে কেন্দ্র করে বিক্ষুব্ধ জনতা পুলিশ ক্যাম্পে হামলা চালায়, নিরাপত্তারক্ষীদের লক্ষ্য করে ইট-পাটকেল ছোড়ে।

শ্রীনগর ও দক্ষিণ কাশ্মীরের বিভিন্ন স্থানে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের সঙ্গে দফায় দফায় সংঘর্ষ বাধে স্থানীয়দের। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে গুলি চালায় পুলিশ।

কুলগানের বিজেপি অফিসেও হামলা চাল‍ায় বিক্ষুব্ধ জনতা। বুরহান ওয়ানির মৃত্যুতে শুক্রবার (০৮ জুলাই) থেকেই ক্ষোভে ফুঁসছিল শ্রীনগর ও দক্ষিণ কাশ্মীরের বিভিন্ন এলাকা। শনিবার সেই উত্তাপ বেড়ে যায় আরও। এদিন কারফিউ উপেক্ষা করে হিজবুল নেতা বুরহানের মরদেহ নিয়ে রাস্তায় নামেন ৫০ হাজার মানুষ।

শুক্রবারই ওয়ানির মৃত্যুর খবর ছড়িয়ে পড়ার পর স্থানীয় বাসিন্দারা শ্রীনগর-অনন্তনাগ জাতীয় সড়ক অবরোধ করে। পরিস্থিতির অবনতি হতে পারে এমন আশঙ্কায় রাজ্য প্রশাসন শ্রীনগর ও দক্ষিণ কাশ্মীরের বেশ কিছু জায়গায় কারফিউ জারি করে। রাজ্যের উত্তেজনা প্রবণ জায়গাগুলিতে কড়া নিরাপত্তার ব্যবস্থা নেওয়া হয়। স্থগিত করে দেওয়া হয় অমরনাথ যাত্রাও।

উল্লেখ্য, শুক্রবার সেনা ও জম্মু-কাশ্মীর পুলিশের যৌথ অভিযানে হিজবুল মুজাহিদিনের কমান্ডার বুরহান ওয়ানিসহ তিন বিচ্ছিন্নতাবাদী নিহত হন।

সম্প্রতি বুরহান ওয়ানি কাশ্মীরি জঙ্গিদের মুখপাত্র হয়ে দাঁড়িয়েছিলেন। ২২ বছর বয়সী ওয়ানি হয়ে উঠেছিলেন হিজবুল মুজাহিদ্দিনের স্বঘোষিত কমান্ডার।

শুক্রবার গোয়েন্দা সূত্রে খবর পেয়ে নিরাপত্তারক্ষীরা দক্ষিণ কাশ্মীরের কোকরনাগ এলাকায় অভিযান চালায়। অভিযানে বুরহানের সঙ্গে তার দুই সঙ্গীও নিহত হন। এর আগে রাজ্য সরকার বুরহানের মাথার দাম ঘোষণা করেছিল ১০ লাখ রুপি।