১৬ অক্টোবর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

নওগাঁর ব্যাংকপাড়ায় স্মরণকালের উপচেপড়া ভিড়

নিজস্ব সংবাদদাতা, নওগাঁ, ১০ জুলাই ॥ টানা ৯ দিন বন্ধের পর রবিবার নওগাঁর ব্যাংকপাড়ায় স্মরণকালের উপচেপড়া ভিড় ছিল চোখে পড়ার মতো। বিশেষ করে ডিপোজিট পেনশন স্কিম (ডিপিএস) জমা দিতে আসা নারী-পুরুষের ভিড়ে ব্যাংকগুলোতে তিল ধারণের ঠাঁই ছিল না। এছাড়া বিদ্যুত বিল জমা, নগদ আদান-প্রদানে গ্রাহকদের ভিড়ে ব্যাংক কর্মকর্তাদের কোন ফুরসত ছিল না।

সকাল ১০টায় অগ্রণী ব্যাংক নওগাঁ শাখায় গিয়ে চোখে পড়ে বিদ্যুত বিল জমা দিতে আসা মানুষের লম্বা লাইন। নগদ আদান-প্রদানের ক্ষেত্রেও গ্রাহকদের ভিড় ছিল অনেক বেশি। সকাল সাড়ে ১০টার দিকে মার্কেন্টাইল ব্যাংক নওগাঁ শাখার নিচতলায় প্রধান সড়ক পর্যন্ত মার্কেটের দু’পাশে ছিল নারী-পুরুষের দীর্ঘ লাইন। ব্যাংকের দোতলায় ওঠার প্রধান গেট বন্ধ। বন্ধ গেটের সামনে অসহায়ের মতো দাঁড়িয়ে আছেন এক সিকিউরিটি গার্ড। গেটের কলাপসিবলের ফাঁক দিয়ে চোখে পড়ল ভেতরে দোতলার সিঁড়িতেও মানুষের গাদাগাদি লাইন। গার্ডের কথামতো বিকল্প পথে দোতলায় গিয়ে চোখে পড়ল ব্যাংকে তিল ধারণের ঠাঁই নেই। কর্মকর্তাদের নেই কোন ফুরসত। যারা দীর্ঘ লাইনে গাদাগাদি করে দাঁড়িয়েছেন, তারা সকলেই ডিপিএস জমা দিতে এসেছেন। ব্যাংকে প্রতি মাসের ১ থেকে ১০ তারিখ পর্যন্ত ডিপিএস জমা নেয়া হয়। এবার দীর্ঘ ৯ দিন ব্যাংক বন্ধ থাকায় ব্যাংক কর্তৃপক্ষ ১৪ জুলাই পর্যন্ত ডিপিএস জমা নেয়ার ঘোষণা দিয়েছে। এর পরও গ্রাহকরা কেউ জেনে, কেউ না জেনে এদিন ডিপিএস জমার শেষদিন ভেবে ব্যাংকে ভিড় জমিয়েছেন।

লভ্যাংশ পাঠিয়েছে খুলনা পাওয়ার

অর্থনৈতিক রিপোর্টার ॥ পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত খুলনা পাওয়ার কোম্পানি লিমিটেড (কেপিসিএল) অন্তর্বর্তীকালীন লভ্যাংশ বিনিয়োগকারীদের ব্যাংক হিসাবে পাঠিয়েছে। ডিএসই সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে। সূত্র জানায়, কোম্পানিটি ৩০ জুন, ২০১৬ সময়ের অর্থাৎ ১৮ মাসের লভ্যাংশ বাংলাদেশ ইলেক্ট্রনিক ফান্ড ট্রান্সফার নেটওয়ার্কের (বিইএফটিএন) মাধ্যমে গত ২৩ জুন ব্যাংক হিসাবে পাঠিয়েছে। আর ডিভিডেন্ড ওয়ারেন্টস গত ২৬ জুন কুরিয়ার সার্ভিসের মাধ্যমে বিনিয়োগকারীদের নিজ ঠিকানায় পাঠানো হয়েছে।