২০ আগস্ট ২০১৯  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

রাফায়েলের চার গোলে শেখ জামালের গোলবন্যা

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ শিরোপা পুনরুদ্ধারের পথে বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লীগ ফুটবলের একাদশ রাউন্ডের ম্যাচে দুর্দান্ত জয় পেয়েছে শেখ জামাল ধানম-ি ক্লাব লিমিটেড। শুক্রবার সন্ধ্যায় বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত ম্যাচে নাইজিরিয়ান ফরোয়ার্ড রাফায়েল ওদোভিন ওনরিভের তা-বে ফরাশগঞ্জ স্পোর্টিং ক্লাবকে ৫-০ গোলে বিধ্বস্ত করেছে তিনবারের পেশাদার লীগ চ্যাম্পিয়নরা। রাফায়েল একাই করেন হ্যাটট্রিকসহ চার গোল। অপর গোলটি করেন ডিফেন্ডার ইয়াসিন খান। জামাল পাঁচটি গোলই পেয়েছে ম্যাচের প্রথম ৩৫ মিনিটে।

এই জয়ে ১১ ম্যাচে সাত জয়, তিন ড্র ও এক হারে ২৪ পয়েন্ট জমা হয়েছে শেখ জামালের ভা-ারে। বর্তমান চ্যাম্পিয়ন ঢাকা আবাহনীকে টপকে টেবিলের দ্বিতীয় স্থানেও উঠে গেছে তারা। অবস্থান অটুট থাকবে যদি গত রাতে শীর্ষে থাকা চট্টগ্রাম আবাহনীর বিরুদ্ধে অন্তত পাঁচ গোলে জয় না পায় ঢাকা আবাহনী আর এটা যে অসম্ভব সেটা বলাই যায়! ফরাশগঞ্জ আগের সেই ৬ পয়েন্ট নিয়ে নেমে গেছে পয়েন্ট তালিকার তলানিতে অর্থাৎ ১২ নম্বরে। কিক অফের শুরু থেকেই ফরাশগঞ্জের দুর্গে আক্রমণ শাণাতে থাকে শেখ জামাল। সাঁড়াশি আক্রমণের ফল পেতেও দেরি হয়নি। তৃতীয় মিনিটেই দারুণ গোলে এগিয়ে যায় শেখ জামাল। মাঝমাঠ থেকে সংঘবদ্ধ আক্রমণে মোহাম্মদ জাবেদ খানের বাড়ানো বল নিয়ন্ত্রণে নিয়ে ফরাশগঞ্জের গোলরক্ষকের মাথার ওপর দিয়ে জালে জড়িয়ে দেন নাইজিরিয়ান ফরোয়ার্ড রাফায়েল ওদোভিন ওনরিভে (১-০)। পঞ্চম মিনিটে আবারও গোল করে তিনবারের লীগ চ্যাম্পিয়নরা। এবার গোল করেন ডিফেন্ডার ইয়াসিন খান। মিডফিল্ডার মোহাম্মদ জাহেদ পারভেজ চৌধুরীর কর্নার কিকে হেডে লক্ষ্যভেদ করেন ইয়াসিন (২-০)। এটি এবারের বিপিএলের ১৩০ নম্বর গোল।

১৬ মিনিটে ম্যাচে ফেরার সুযোগ হারায় ফরাশগঞ্জ। জামালের দু’জন ডিফেন্ডারকে বোকা বানিয়ে আগুয়ান গোলরক্ষকের মাথার ওপর দিয়ে আলতো করে বল তুলে দেন চিনেডু ম্যাথুউ। কিন্তু দুর্ভাগ্য তার, বলটি সাইডপোস্টে লেগে ফিরে আসে। পরের মিনিটে আবারও আফসোসে পুড়তে হয় আবু ইউসুফের দলকে। এবারও ডি বক্সের মাথায় ফাঁকায় বল পান নাইজিরিয়ান ম্যাথিউ। কিন্তু তার জোরালো শট দারুণ দক্ষতায় ফিরিয়ে দেন জামালের গোলরক্ষক সামিউল ইসলাম। ফলে ম্যাচে ফেরার সুযোগ হারায় ফরাশগঞ্জ। ২৩ মিনিটে সুবর্ণ সুুযোগ নষ্ট হয় জামালের। ডান প্রান্ত দিয়ে জাহেদ পারভেজের বাড়ানো ক্রসে ফাঁকা পোস্টে পা ছোঁয়াতে ব্যর্থ হন গাম্বিয়ান ফরোয়ার্ড মমোদৌ বাও। ২৫ মিনিটে আর আফসোসে পুড়তে হয়নি ধানম-ির ক্লাবটিকে। এবার মাঝমাঠ থেকে সংঘববদ্ধ আক্রমণ শাণায় জোসেফ আফুসির শিষ্যরা। ফরাশগঞ্জের অর্ধে আবারও জাহেদ পারভেজের বাড়ানো বল পেয়ে ডি বক্সের মাথা থেকে দারুণ শটে গোল করেন রাফায়েল ওদোভিন ওনরিভে (৩-০)। ৩০ মিনিটে চার নম্বর গোল আদায় করে নেয় শেখ জামাল আর হ্যাটট্রিক পূর্ণ করেন রাফায়েল। ডানপ্রান্ত থেকে জাবেদ খানের বাড়ানো বল পেয়ে আলতো টোকায় গোল করেন নাইজিরিয়ান ফরোয়ার্ড (৪-০)। এবারের লীগে এটা দ্বিতীয় হ্যাটট্রিক। প্রথম হ্যাটট্রিক করেছেন নবাগত সাইফ স্পোর্টিংয়ের কলম্বিয়ান ফরোয়ার্ড হেম্বার ভ্যালেন্সিয়া।

ম্যাচের ৩৫ মিনিটে পাঁচ নম্বর গোল আদায় করে হলুদ জার্সিধারীরা। এবারও গোলদাতা সেই রাফায়েল। জাহেদ পারভেজের বাড়ানো বল প্রথমে মমোদৌ গোলমুখে বাড়ান। ফরাশগঞ্জের একজন ডিফেন্ডারের পায়ে লেগে বল দিক পাল্টে জালে প্রবেশের মুখে পা ছোঁয়ান এই নাইজিরিয়ান (৫-০)। পাঁচ গোলে এগিয়ে থেকে বিরতিতে যায় শিরোপা প্রত্যাশী শেখ জামাল ধানমন্ডি। জয় প্রায় নিশ্চিত হওয়ায় বিরতির পর অনেকটাই ঢিমেতালে খেলে আফুসির শিষ্যরা। এর মাঝেও গোল করার বেশ কয়েকটি সুযোগ সৃষ্টি করেন রাফায়েল, জাহেদরা। কিন্তু কাজে লাগতে পারেননি। যে কারণে দ্বিতীয়ার্ধে আর গোলসংখ্যা বাড়েনি। অবশ্য শেষ ৫৫ মিনিটে আর কোন গোল না পেলেও তৃপ্তির জয় নিয়েই মাঠ ছাড়ে শেখ জামাল ধানমন্ডি