১১ ডিসেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

চমকে ভরপুর ৬৩তম ফিল্মফেয়ার

ফিল্মফেয়ারকে বলা হয়ে থাকে বলিউডের অস্কার। এই পুরস্কারের দিকেই তাকিয়ে থাকেন সমালোচক ও সিনেপ্রেমীরা। ২০ জানুয়ারি জমকালো এক অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠিত হয়ে গেল এ বছরের ফিল্মফেয়ার এ্যাওয়ার্ড। ৬৩তম জিও ফিল্মফেয়ার এ্যাওয়ার্ড অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন রেখা, জয়া বচ্চন, সোনম কাপুর, মাধবন, অর্জুন কাপুর, আলিয়া ভাট, শাহিদ কাপুর, প্রীতি জিন্টা, মাধুরী দীক্ষিত, কাজল, সানি লিওনিসহ প্রায় গোটা বলিউড। অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন করণ জোহর ও শাহরুখ খান। অনুষ্ঠানে পারফর্ম করেন অক্ষয় কুমার, রণবীর সিং, আয়ুষ্মান খুরানা, পরিণীতি চোপড়া ও অনেকে। বিজয়ীদের হাতে তুলে দেয়া হয়েছে ‘ব্ল্যাক লেডি’। শনিবার মুম্বাইয়ের ওরলির এনএসসিআই ডোমে অনুষ্ঠিত এই জমকালো আয়োজনে অংশ নিয়েছেন বলিউডের নামী-দামী সব তারকা। পুরস্কার বিতরণীর ফাঁকে ফাঁকে ছিল তারকাদের জমকালো নাচ-গান ও কৌতুক। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেছেন শাহরুখ খান, করণ জোহর।

বলিউড তারকারা লাল কার্পেটে হেঁটে গিয়ে এই পুরস্কার গ্রহণ করেন। ‘হিন্দী মিডিয়াম’ এর জন্য সেরা অভিনেতার পুরস্কার পান ইরফান খান এবং ‘তুমহারি সুলু’ সিনেমার জন্য সেরা অভিনেত্রীর পুরস্কার গ্রহণ করেন বিদ্যা বালান। অনুষ্ঠানে পারফর্মেন্স করেছেন অক্ষয় কুমার, রণবীর সিং, আয়ুষ্মান খুরানা, পরিণীতি চোপড়া এবং আরও অনেকে। জমকালো পোশাক পরে লাল গালিচা মাতিয়েছেন সোনম কাপুর, আর মাধবন, অর্জুন কাপুর, আলিয়া ভাট, শহিদ কাপুর, সাকিব সালিম, প্রীতি জিনতা, রেখা, জয়া বচ্চন, মাধুরী দীক্ষিত, কাজল, সানি লিওন এবং আরও অনেক তারকা। সদ্য প্রকাশিত হয়েছে ৬৩-তম ফিল্মফেয়ার এ্যাওয়ার্ডের সেখানেই ফিল্মফেয়ার এ্যাওয়ার্ডের ১৩টি নমিনেশন ছিনিয়ে নিয়েছে ইরফান খান অভিনীত ‘হিন্দী মিডিয়াম’ও বিদ্যা বালান অভিনীত ‘তুমহারি সুলু।’ বলাবাহুল্য, টি-সিরিজের ব্যানারেই তৈরি হয়েছে ‘তুমহারি সুলু’ ও ‘হিন্দী মিডিয়াম’। ‘তুমহারি সুলু’র ছবিতে সুলু ওরফে সুলোচনা দুবের ভূমিকায় অভিনয় করেছেন বিদ্যা। সুলু একজন মধ্যবিত্ত পরিবারের সাদামাটা গৃহবধূ। নানারকম ব্যবসা করার চিন্তাভাবনা করেও যিনি শেষপর্যন্ত কিছুই করে উঠতে পারেন না। হাইস্কুল না পেরোনোর গি বার বার তাকে পেছনের দিকে টানে। একদিন রেডিওর এক প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়ে সেই সুলুই জিতে নেন পুরস্কার। পুরস্কার নিতে গিয়ে লক্ষ্য করেন, ওই এফএম চ্যানেলটি মাঝরাতের একটি শোয়ের জন্য রেডিও জকি খুঁজছে। ভাবামাত্রই সেখানে নিজের নাম দেন সুলু। ভাগ্যক্রমে চাকরিটা জুটে যায়। এদিকে স্ত্রীর সফলতায় খুশি হয়েও কোথাও যেন নিরাপত্তার অভাব বোধ করতে থাকেন স্বামী অশোক দূবে। ছবিতে বিদ্যা বালনের স্বামীর ভূমিকায় অভিনয় করেছেন মানব কল। এই ছবির জন্য সেরা অভিনেত্রীর নমিনেশন পেয়েছেন বিদ্যা। অন্যদিকে সেরা সহ-অভিনেতার নমিনেশন পেয়েছেন মানব কল। সেরা গীতিকার শান্তনু ঘটক রাফু, সেরা গায়িকার নমিনেশনে রঙ্কিনী গুপ্তা রাফু, সেরা সাউন্ড ডিজাইনে সুভাষ শাহু, ‘বান জা তু মেরি রানী’ গানের জন্য সেরা কোরিওগ্রাফারের নমিনেশন পেয়েছেন বিজয় গাঙ্গুলি। সেরা গল্প ও ডায়লগের জন্য যৌথভাবে নমিনেশন পেয়েছেন সুরেশ ত্রিবেণী ও বিজয় মৌর্য। একমাত্র সন্তানকে নামী ইংরেজী মাধ্যম স্কুলে ভর্তি করানোর জন্য এক দম্পতির সামাজিক টানাপোড়েনের দৃশ্য বর্ণিত হয়েছে ‘হিন্দী মিডিয়াম’ ছবিতে। যেখানে দেখা যাচ্ছে ইরফান ও তার স্ত্রী হিন্দী মিডিয়ামে পড়াশোনা করেছেন। কিন্তু মেয়েকে ইংরেজী মাধ্যমে পড়াতে চান। মেয়েকে ভর্তি করতে গিয়ে নিজেদের বাড়ি ছেড়ে দিল্লীর বসন্ত বিহারে চলে আসা। আর্থিক অবস্থান, সামাজিক পরিচয় এক প্রকার গোপন করে মেয়েকে ভর্তি করার প্রচেষ্টা। স্কুলে ভর্তির ডোনেশন সংগ্রহের জন্য এটিএম কাউন্টারে ডাকাতির পরিকল্পনা। এক কথায় ‘হিন্দী মিডিয়াম’ এমনই একটি ছবি, যেখানে বাবা-মা মেয়েকে সব থেকে ভাল স্কুলে পড়ানোর জন্য যা খুশি তাই করতে পারেন। মোট পাঁচটি বিভাগে ফিল্মফেয়ার নমিনেশন পেয়েছিল হিন্দী মিডিয়াম। এ নিয়ে ষষ্ঠবারের মতো ‘ব্ল্যাক লেডি’ ট্রফি জিতলেন বিদ্যা। একবার শুধু সমালোচকদের চোখে সেরা অভিনেত্রী হয়েছিলেন তিনি।

বাকি পাঁচটিই এসেছে জনপ্রিয় অভিনেত্রী হিসেবে। এবার ‘তুমহারি সুলু’র জন্য সেরা জনপ্রিয় অভিনেত্রীর পুরস্কার গেছে তার ঘরে। ছবিটিতে এক গৃহিণীর চরিত্রে দারুণ অভিনয় করেছেন ৩৯ বছর বয়সী এই অভিনেত্রী, যিনি ঘটনাক্রমে হয়ে ওঠেন রেডিও জকি। তার হাতে পুরস্কার তুলে দেন বর্ষীয়ান অভিনেত্রী রেখা। বিদ্যা বালানকে সেরা অভিনেত্রীর পুরস্কার তুলে দেন রেখা সেরা অভিনেত্রী বিভাগে বিদ্যার কাছে হেরেছেন শ্রীদেবী (মম), আলিয়া ভাট (বাদ্রিনাথ কি দুলহানিয়া), ভূমি পেড়নেকর (শুভ মঙ্গল সাবধান), জায়রা ওয়াসিম (সিক্রেট সুপারস্টার) ও সাবা কামার (হিন্দী মিডিয়াম)। এদিকে চতুর্থবারের মতো ফিল্মফেয়ার পেলেন ইরফান। তবে আগে সেরা খল অভিনেতা, সেরা পার্শ্ব অভিনেতা ও সমালোচকদের বিচারে সেরা অভিনেতা হন তিনি। এবার ‘হিন্দী মিডিয়াম’ ছবিতে অসাধারণ অভিনয়ের সুবাদে ৫১ বছর বয়সী এই তারকার হাতে উঠেছে সেরা জনপ্রিয় অভিনেতার স্বীকৃতি। ইরফানের জয় ছিল আসরের অন্যতম চমক। তার সাফল্যে মনোনয়ন নিয়েই সন্তুষ্ট থাকতে হয়েছে শাহরুখ খান (রইস), অক্ষয় কুমার (টয়লেট এক প্রেম কথা), হৃত্বিক রোশন (কাবিল), বরুণ ধাওয়ান (বাদ্রিনাথ কি দুলহানিয়া) ও আয়ুষ্মান খুরানাকে (শুভ মঙ্গল সাবধান)। সেরা ছবি বিভাগে প্রত্যাশা অনুযায়ী পুরস্কৃত হয়েছে ইরফানের ‘হিন্দী মিডিয়াম’। এ ছবির প্রতিদ্বন্দ্বী ছিল ‘টয়লেট: এক প্রেম কথা’, ‘বাদ্রিনাথ কি দুলহানিয়া’, ‘সিক্রেট সুপারস্টার’ ও ‘বেরিলি কি বরফি’। ‘বেরিলি কি বরফি’র জন্য সেরা পরিচালক হয়েছেন অশ্বিনী আইয়ার তিওয়ারি। তিনি হলেন ‘দঙ্গল’-এর পরিচালক নিতেশ তিওয়ারির স্ত্রী। বহু বছর পর ফিল্মফেয়ারে কোন নারী নির্মাতা এই সম্মান পেলেন। অশ্বিনীর বানানো ‘বেরেলি কি বরফি’র জন্য সেরা পার্শ্ব অভিনেতা হয়েছেন রাজকুমার রাও। তিনি একাই পেয়েছেন দুটি পুরস্কার। ‘ট্র্যাপড’ ছবির জন্য সমালোচক বিভাগের সেরা অভিনেতার স্বীকৃতিও এসেছে তার হাতে। রাজকুমারের আরেক ছবি ‘নিউটন’ সেরা চলচ্চিত্র হয়েছে সমালোচক বিভাগে। এ ছবির পরিচালক অমিত ভি. মাসুরকার পেয়েছেন সেরা মৌলিক গল্পকারের পুরস্কার। ‘সিক্রেট সুপারস্টার’-এর জন্য মেহের ভিজ সেরা পার্শ্ব অভিনেত্রী আর জায়রা ওয়াসিম সমালোচক বিভাগে সেরা অভিনেত্রী হয়েছেন। এ ছবির ‘নাচদি ফিরা’ গানের জন্য সেরা গায়িকা হয়েছেন মেঘনা মিশ্র। মালা সিনহার হাতে আজীবন সম্মাননা দিচ্ছেন দুই উপস্থাপক শাহরুখ খান ও করণ জোহর সর্বাধিক ১০টি মনোনয়ন পাওয়া ‘বাদ্রিনাথ কি দুলহানিয়া’র জন্য একটি পুরস্কার জিতেছেন অরিজিৎ সিং। ‘রোকে না রুকে ন্যায়না’ গানের সুবাদে তিনি সেরা গায়ক। গানের বিভাগগুলোর সুবাদে এবারের আসরে সর্বাধিক চারটি পুরস্কার এসেছে ‘জাগ্গা জাসুস’-এর ঘরে। ছবিটির জন্য সেরা গানের এ্যালবাম ও সেরা আবহসঙ্গীত বিভাগ দুটির পুরস্কার পেয়েছেন প্রীতম চক্রবর্তী। ‘উল্লুকা পাঠ্ঠা’ গান লেখার জন্য সেরা গীতিকার হয়েছেন অমিতাভ ভট্টাচার্য। একই ছবির ‘গালতি সে মিস্টেক’ গানের জন্য নৃত্য পরিচালনায় সেরা হয়েছেন বিজয় গাঙ্গুলি ও রুয়েল দৌসন বারিনদানি। ‘এ্যা ডেথ ইন দ্য গঞ্জ’ ছবির জন্য সেরা নতুন পরিচালকের পুরস্কার জিতেছেন অপর্ণা সেনের মেয়ে কঙ্কনা সেন শর্মা। তার হাতে পুরস্কার তুলে দেন দুই প্রজন্মের দুই অভিনেত্রী জয়া বচ্চন ও সোনালি বেন্দ্রে গত বছরের মতো এবারও স্বল্পদৈর্ঘ্য ছবির জন্য ছিল বিশেষ বিভাগ। ছোট দৈর্ঘ্যরে ছবির জন্য সেরা অভিনেতা হয়েছেন ‘খুঁজলি’ তারকা জ্যাকি শ্রফ। নিরাজ গাইয়ানের ‘জুস’ হয়েছে সেরা স্বল্পদৈর্ঘ্য ছবি। আজীবন সম্মাননায় ভূষিত হয়েছেন সঙ্গীত ব্যক্তিত্ব বাপ্পি লাহিড়ী। ৬৫ বছর বয়সী এই গুণী শিল্পীর হাতে এই সম্মান তুলে দেন বিদ্যা বালান। এ সময় তিনি বলেন, ‘এটা আমার জন্য খুবই বিশেষ মুহূর্ত। কারণ বাপ্পিদা আমার ক্যারিয়ারের সবচেয়ে সফল গান (উ লা লা) উপহার দিয়েছেন।’ আজীবন সম্মাননায় ভূষিত বাপ্পি লাহিড়ী বলেন, ‘আমি খুব খুশি। এই অর্জন আমার মা-বাবা, স্ত্রী ও পুরো পরিবারকে উৎসর্গ করতে চাই। এটা ৪৬ বছরের পরিশ্রমের ফসল।’ এরপর মঞ্চে বাপ্পি লাহিড়ীর বিভিন্ন গানের তালে নেচেছেন এ প্রজন্মের অভিনেতা রণবীর সিং। তিনি পরে এসেছিলেন বলিউডের কালজয়ী ছবিগুলোর পোস্টার দিয়ে সাজানো পোশাক। তার কথায়, ‘মানুষ ছবি খায়, ছবি পান করে। আমি ছবি পরেছিও।’

আজীবন সম্মাননা আরেক বাঙালীও পেয়েছেন এবার। ৮২ বছর বয়সী অভিনেত্রী মালা সিনহাকেও দেয়া হয়েছে এই সম্মান। পঞ্চাশ, ষাট ও সত্তরের দশকে হিন্দী ছবি শাসন করেছিলেন তিনি। বাংলা আর নেপালী ছবিতেও দেখা গেছে তাকে।

আনন্দকণ্ঠ ডেস্ক