২১ জুলাই ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

নববর্ষ মানবিক মানুষ হওয়ারও প্রেরণা

নববর্ষ মানবিক মানুষ হওয়ারও প্রেরণা

অনলাইন রিপোর্টার ॥ সমৃদ্ধ বাংলা বিনির্মাণে সোনার মানুষ তৈরিতে মঙ্গল শোভাযাত্রার এবারের প্রতিপাদ্য ঠিক করা হয়েছে জানিয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান বলেছেন, এটি আমাদের মানবিক মূল্যবোধ সম্পন্ন মানুষ হওয়ারও প্রেরণা দেয়। শনিবার (১৪এপ্রিল) সকালে বিশ্ববিদ্যালয়ের ঐতিহাসিক বটতলার পাদদেশে বর্ষবরণের অনুষ্ঠানের উদ্বোধনকালে তিনি এ মন্তব্য করেন।

‘এসো হে বৈশাখ’ শিরোনামে নতুন বছরে সমৃদ্ধি কামনায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সংগীত বিভাগ এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছে। ঢাবি উপাচার্য বলেন, বর্ষবরণ শুধু ঐতিহ্য রক্ষার অনুষ্ঠান নয়। এর মধ্য দিয়ে একটি বার্তা আছে, আছে অসাম্প্রদায়িক চেতনা, উদার নৈতিক, মানবিক মূল্যবোধে উদ্বুদ্ধ হওয়ার প্রেরণা। যা ছিল আমাদের মুক্তিযুদ্ধের চেতনা, দর্শন যেটি ধারণ করতেন জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব।

‘বঙ্গবন্ধুর সেই সোনার বাংলা বিনির্মাণের জন্য এবছর মঙ্গল শোভাযাত্রার স্লোগানটি হলো ‘মানুষ ভজলে সোনার মানুষ হবি’। বঙ্গবন্ধু বলতেন, আমাদের সোনার মানুষ দরকার। সোনার মানুষ সেদিন হবে যেদিন এক মানুষ অন্য মানুষকে সম্মান করবে। এই সম্মান করার মধ্যেই বলা হয়েছে ‘মানুষ ভজলে সোনার মানুষ হবি। এটি আমাদের লালন সংগীতের একটি উক্তি। আমরা সেটিকে ধারণ করি।’

অধ্যাপক আখতারুজ্জামান বলেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে সাম্প্রতিক সময়ে অপতথ্যের ওপর ভিত্তি করে অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা ঘটে গেছে। নতুন বছরে যেন এ ধরনের ঘটনা সংগঠিত না হয়। নতুন বছর সবার জীবনে সমৃদ্ধি নিয়ে আসুক। পাশাপাশি সকল তথ্য আমরা যাছাই বাছাই করে গ্রহণ বা বর্জন করবো নতুন বছরে এটি হোক প্রত্যয়।

সভাপতির বক্তব্যে সংগীত বিভাগের চেয়ারপারসন ড. মহসিনা আক্তার খানম (লীনা তাপসী) বলেন, সংগীত বিভাগ ঐতিহ্যকে ধারণ করে প্রতিবছর ঐতিহাসিক বটতলায় বৈশাখ বরণের অনুষ্ঠান আয়োজন করে। আমরা নতুন বছরে সত্যের ওপর ভিত্তি করে এগিয়ে যাবো-এটিই হোক প্রত্যয়।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের পর বিভাগের শিক্ষার্থীদের অংশগ্রহণে বৈশাখের গান পরিবেশিত হচ্ছে। সকাল সোয়া ন’টার দিকে হয় পহেলা বৈশাখের মূল আয়োজন মঙ্গল শোভাযাত্রা।

এই মাত্রা পাওয়া