২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

টেরিজা মে কেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্টের হুজুগে মাতবে ॥ করবিন

টেরিজা মে কেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্টের হুজুগে মাতবে ॥ করবিন

অনলাইন ডেস্ক ॥ যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে গাঁটছাড়া বেঁধে সিরিয়ায় হামলা নিয়ে স্পষ্ট আপত্তি জানালেন যুক্তরাজ্যের বিরোধী দল লেবার পার্টির নেতা জেরমি করবিন।

সিরিয়া অভিযানে যোগ দেওয়ার আগে যুক্তরাজ্যের পার্লামেন্টে আলোচনা ও ভোটাভুটি প্রয়োজন ছিল বলে মনে করেন তিনি।

১৫ বছর আগে যুক্তরাষ্ট্রের নেতৃত্বে যখন ইরাক অভিযান শুরু হয়, তখন যুক্তরাজ্যের টনি ব্লেয়ারের সরকার তাতে সায় দিয়ে সমলোচিত হয়েছিলেন।

টনি ব্লেয়ার ছিলেন করবিনের দল লেবার পার্টিরই নেতা। এখন যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী রক্ষণশীল দলের টেরিজা মে।

অন্যদিকে ২০০৩ সালে ইরাক অভিযানের সময় যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ছিলেন রিপাবলিকান দলের জর্জ বুশ; এখনকার প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পও একই দলের।

সিরিয়ার প্রেসিডেন্ট বাশার আল আসাদ তার দেশে বিদ্রোহী বাহিনীর উপর রাসায়নিক হামলা চালাচ্ছে অভিযোগ তুলে শনিবার দেশটিতে বিমান হামলা শুরু করে যুক্তরাষ্ট্র ও তার মিত্র দেশ যুক্তরাজ্য ও ফ্রান্স।

হামলার পক্ষে যুক্তি দেখিয়ে টেরিজা মে বলেছেন, রাসায়নিক হামলা বন্ধে সিরিয়া সরকারকে বাধ্য করতে এই অভিযান চালানো হচ্ছে।

তবে প্রধানমন্ত্রীর এই যুক্তি মেনে নিতে পারছেন না যুক্তরাজ্যের বিরোধীদলীয় নেতা করবিন। অভিযান শুরুর পর তিনি একটি চিঠি লিখেছেন টেরিজাকে, যা বিবিসিতে এসেছে।

চিঠিতে তিনি এই অভিযান চালানোর পক্ষে আইনি ভিত্তি প্রধানমন্ত্রীর কাছে জানতে চেয়েছেন লেবার নেতা, যাকে কমিউনিস্ট হিসেবে দেখেন অনেকে।

অভিযানের বিষয়ে টেলিফোনে জানানোর জন্য টেরিজা মেকে ধন্যবাদ জানিয়ে করবিন বলেছেন, “আমি খুশি যে ব্রিটিশ সৈন্যরা নিরাপদে ফিরে আসতে পেরেছে। আমি আশা করছি যে, সিরিয়ায় কোনো বেসামরিক মানুষের প্রাণহানি ঘটেনি।”

অভিযান নিয়ে পার্লামেন্টে আলোচনা ও ভোটাভুটির দরকার ছিল মন্তব্য করে তিনি বলেন, “যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী দেশের পার্লামেন্টের কাছে দায়বদ্ধ, যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্টের হুজুগের কাছে নয়।”

সিরিয়া অভিযানের আইনি ভিত্তি নিয়ে প্রশ্ন তোলার অবকাশ রয়েছে বলে মনে করেন যুক্তরাজ্যের বিরোধী নেতা।

এক্ষেত্রে জাতিসংঘ মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেসের প্রতিক্রিয়ার বিষয়টি তুল ধরে করবিন বলেন, সব দেশেরই জাতিসংঘের সনদ মেনে চলা উচিৎ।

অভিযানের আগে অ্যাটর্নি জেনালের কাছ থেকে আইনি পরামর্শ নেওয়া হয়েছে বলে করবিনকে জানিয়েছেন টেরিজা মে। ওই পরামর্শ প্রকাশের দাবি জানিয়েছেন লেবার নেতা।

সিরিয়া সরকার যে রাসায়নিক অস্ত্র ব্যবহার করেছে- জাতিসংঘ কিংবা অর্গানাইজেশন ফর প্রোহিবিশন অব কেমিকাল উইপনের (ওপিসিডাব্লিও) এর কোনো তদন্ত না থাকার কথাও বলেন করবিন।

তার দাবি, আগে তদন্ত হোক, তা জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদে আসুক, তার পর আলোচনা করে সিদ্ধান্ত নেওয়া যাবে।

ওপিসিডাব্লিওর তদন্তকারীরা এই মুহূর্তে সিরিয়ায় কাজ করছে। তাদের তদন্ত শেষের আগে সিরিয়ায় আর বিমান হামলা চালানো হবে না বলে আশা করছেন করবিন।