১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

আজব হলেও গুজব নয়

অবসর নিতে লিঙ্গ পরিবর্তন?

বর্তমান বিশ্বে লিঙ্গ পরিবর্তন নতুন কিছু নয়। এমন ঘটনা ঘটছে অহরহ। কিন্তু এবার আর্জেন্টিনায় ঘটেছে এক অদ্ভুত কাণ্ড। দক্ষিণ আমেরিকার দেশটিতে এক ব্যক্তি সরকারী চাকরি থেকে তাড়াতাড়ি অবসর নিতে লিঙ্গ পরিবর্তন করে নারীতে রূপান্তরিত হয়েছেন।

ওই ব্যক্তির নাম সার্জিও লাজারোভিচ। লিঙ্গ পরিবর্তনের পর নাম রেখেছেন সার্জিয়া লাজারোভিচ। আর্জেন্টিনায় সরকারী অনুমোদন সাপেক্ষে লিঙ্গ পরিবর্তন আইনগতভাবে বৈধ।

জানা গেছে, আর্জেন্টিনায় চাকরিজীবী পুরুষদের অবসরের বয়সসীমা ৬৫ বছর। আর নারীদের জন্য তা ৬০ বছর। পাঁচ বছর আগে অবসর নিতেই লিঙ্গ পরিবর্তন করেছেন এই ব্যক্তি, যা দেশটিতে রীতিমতো হইচই ফেলে দিয়েছে।

বিষয়টি গণমাধ্যমের নজরে এনেছেন সার্জিয়ার একজন আত্মীয়। নাম প্রকাশ না করার শর্তে স্থানীয় এক পত্রিকায় এই আত্মীয় বলেন, ‘লিঙ্গ পরিবর্তনের আগে কখনই সে (সার্জিয়া) পুরুষদের প্রতি আকৃষ্ট ছিল না। তার জীবনে অনেকের সঙ্গেই সম্পর্কে জড়িয়েছে সে। এগুলোর সবই ছিল নারী। এমনকি স্ত্রীর সঙ্গে ২৫ বছরের সংসার জীবনের ইতি টানার আগে তাদের কোলজুড়ে এসেছে দুটি কন্যা সন্তান। বিচ্ছেদের পরও সে অনেকের সঙ্গে সম্পর্কে জড়িয়েছে। এরাও সবাই নারী ছিল। তাছাড়া জীবনে সে বহুবার সমকামী ও তৃতীয় লিঙ্গের বিরুদ্ধে নানা ধরনের কটূক্তিও করেছে।’

তিনি বলেন, ‘সার্জিয়ার মতে নারীরা পুরুষদের চেয়ে ৫ বছর আগে অবসর পাবে, এটা অন্যায়। সে সব সময়ই বন্ধু ও আত্মীয়দের কাছে এমন অভিযোগ করে আসছিল। এটি এক ধরনের বৈষম্য। এর বিরুদ্ধে আইনজীবীর পরামর্শে আদালতে মামলাও করেছে। কিন্তু মামলায় জয়ী হবে কি না তার কোনো নিশ্চিয়তা নেই। ফলে এই সুবিধা নিতে সে নিজের লিঙ্গ পরিবর্তন করেছে।’

তবে অবসরে সুবিধার নেয়ার বিষয়টি নাকচ করে দিয়েছেন সার্জিয়া। তিনি বলেছেন, ‘চাকরি থেকে তাড়াতাড়ি অবসর নেয়ার জন্য তিনি লিঙ্গ পরিবর্তন করেননি। এটি করেছেন সম্পূর্ণ ব্যক্তিগত কারণে, যা তিনি প্রকাশ্যে আনতে চাইছেন না।’

রাশিদা নূর

মৃত্যু স্মরণ করিয়ে দেবে রেস্তরাঁ

ক্রেতা আকৃষ্ট করতে ক্যাফে বা রেস্তরাঁর মালিকরা নানা রকম পথ বেছে নেন। এ জন্য তারা ক্রেতাদের সামনে নিয়ে আসেন অভিনব বিষয়বস্তু।

‘ক্যাট ক্যাফে’, ‘টয়লেট ক্যাফে’সহ নানা রকম অদ্ভুত রেস্তরাঁর কথা অনেকই শোনা যায়। তবে থাইল্যান্ডের একটি ক্যাফে তার নামে এবং বিষয়বস্তুতে অন্য সবগুলোকে ছাড়িয়ে গেছে। রাজধানী ব্যাংককের উপকণ্ঠে মৃত্যুর বিষয়বস্তুকে কেন্দ্র করে তৈরি এই ক্যাফে। নাম ডেথ ক্যাফে বা মৃত্যু ক্যাফে।

মৃত্যুর সকল অনুষঙ্গ নিয়ে সাজানো এই ক্যাফের খাবারের নামগুলোও ভীতিকর। যন্ত্রণা, ব্যাথা, অসুখ, মৃত্যু এসব নামেই সাজানো হয়েছে খাবারের তালিকা। মৃত্যুর পর যেসব ফুল দিয়ে মৃত ব্যক্তিকে শ্রদ্ধা জানানো হয় সেই সব ফুল দিয়েই সাজানো হয়েছে ক্যাফের চারপাশ। শুধু তাই নয়, দেয়ালে লেখা রয়েছে, ‘মৃত্যুর পর কিছুই সঙ্গে নিতে পারবে না’ কিংবা ‘তুমি কি মৃত্যুর জন্য প্রস্তুত?’ ইত্যাদি বাণী। এক প্রান্তে রাখা হয়েছে একটি কফিন। বিশ থাই বাথের বিনিময়ে যে কেউ চাইলে এই কফিনে শুয়ে মৃত ব্যক্তির অনুভূতি নিতে পারবে।

এত কিছু থাকতে মৃত্যুকেই কেন বিষয়বস্তু হিসেবে নেয়া হয়েছে, এমন প্রশ্নের উত্তরে ক্যাফের উদ্যোক্তা কিড মেই স্থানীয় এক সংবাদমাধ্যমকে বলেন, ‘এটি একটি মৃত্যু সচেতনতা ক্যাফে। এখানে এসে মানুষ সেই শিক্ষাই পাবে যার দ্বারা সে তার জীবনের প্রতিটি মুহূর্ত উপভোগ করবে।’

শাহিদুল ইসলাম