১৮ অক্টোবর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

চলচ্চিত্র আমার ধ্যানজ্ঞান : ইমন

আনন্দকণ্ঠ : বেশ ব্যস্ত মনে হচ্ছে। কি নিয়ে ব্যস্ত আছেন?

ইমন : ‘পাপ কাহিনী’ ছবির শূটিং নিয়ে ব্যস্ত ছবিটি পরিচালনা করছেন অভিনেতা শাহরিয়ার নাজিম জয়। সিনেমার ভেতরেই আরেক সিনেমা! নায়ক, নায়িকা, ভিলেন, প্রডিউসার, জনপ্রিয় শো’য়ের উপস্থাপক সবাই থাকবেন। অনেক চমৎকার একটি গল্পের ওপর ছবিটি নির্মাণ করা হচ্ছে। ফিল্ম রিলেটেড গল্প নিয়ে এ ছবিটি। এতে আমার চরিত্র নিয়ে আমি দারুণ সন্তুষ্ট। আশা করা যায় এই কাজটি দর্শকনন্দিত হবে।

আনন্দকণ্ঠ : ছোট পর্দার ঈদের ব্যস্ততা কেমন?

ইমন : ঈদে বেছে বেছে কিছু কাজ করব। এরই মধ্যে আমি ও মোনালিসা একটা কাজ করলাম। নাদিয়ার সঙ্গে করলাম ‘তুমি যে আমার’ নামের একটি নাটক। পূর্ণিমার সঙ্গে একটা কাজ করব। এরপর যদি ভাল কোন গল্প, চরিত্র পাই তাহলে কাজ করব।

আনন্দকণ্ঠ : ওপার বাংলায় ফিচারধর্মী একটি চলচ্চিত্রে কাজ করেছেন?

ইমন : হ্যাঁ। চলচ্চিত্রটির নাম ‘সিনেমার পর্দার সব চরিত্র কাল্পনিক’। একটি পোষ্টারও বের হয়েছে। ‘আমার কয়েকটি ছবি দেখে সেখানকার প্রযোজক আমার সঙ্গে যোগাযোগ করেন। সব মিলিয়ে কাজটি পছন্দ হয়েছে। এবং ভাল একটি কাজ হয়েছে।

আনন্দকণ্ঠ : ‘সাহসী যোদ্ধা’ চলচ্চিত্রটি প্রসঙ্গে বলুন-

ইমন : আয়কর বিভাগে যোগ দিয়েছে একটি সাহসী ছেলে। অন্যায়ের সঙ্গে কখনও আপস করে না সে। কর ফাঁকি যারা দেয়, তাদের কাছে ত্রাস হয়ে ওঠে সে। এমনই এক চরিত্রে দেখা যাবে আমাকে। ‘এমন একটি চরিত্রে কাজ করে আমার ভাল লাগছে। মৌলিক গল্প নিয়ে নির্মাণ হচ্ছে ছবিটি। আমাদের সমাজের প্রেক্ষাপট উঠে আসবে গল্পে। আশা করি, আমাদের এই ছবি দেখে বাংলাদেশের সৎ সরকারী অফিসাররা উৎসাহ পাবেন। সময় উপযোগী মেকিং হচ্ছে, সব মিলিয়ে ভাল একটা ছবি হচ্ছে সাহসী যোদ্ধা।’

আনন্দকণ্ঠ : সাত বছর পর নিপুণের সঙ্গে একটি বিজ্ঞাপনে কাজ করলেন?

ইমন : হ্যাঁ! অনেকদিন পর আমরা একসঙ্গে কাজ করেছি। ব্যস্ততার কারণে কাজ করা হয়নি। সাত বছর পর আবারও বিজ্ঞাপনে কাজ করলাম। বিজ্ঞাপনের গল্পে দেখা যাবে আমি সিনেমার একজন ব্যস্ত অভিনেতা। কাজের চাপে পরিবারকে ঠিকমতো সময় দিতে পারি না। শপিং বা ঘুরতে যাওয়া কিছুই হয়ে উঠে না।’ ভাল একটি কাজ হয়েছে। বিজ্ঞাপনটি খুব শীঘ্রই প্রচারিত হবে।

আনন্দকণ্ঠ : ছোটপর্দা না বড়পর্দায় কাজ করতে স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করেন?

ইমন : চলচ্চিত্রের মানুষ আমি। ফিল্ম আমার রক্তের সঙ্গে মিশে গেছে। আমি অভিনয় করতে খুব ভালোবাসী। ছোটপর্দায় ভাল কোন গল্প হলে কাজ করি। ভাল গল্প অনেক চ্যালেঞ্জ হিসেবে নেই এবং ভিন্ন ভিন্ন মাত্রা পায়। যেহেতু অভিনয়ের খুদা তাই বড় পর্দার পাশাপাশি মাঝে মধ্যে ছোটপর্দার জন্য ভাল কিছুর গল্পের কাজ করি। সব জায়গায় কাজ করতে ভাল লাগে। তবে চলচ্চিত্র আমার ধ্যানজ্ঞান। ফিল্ম নিয়েই বেঁচে আছি। ছোট পর্দায় মাঝে মধ্যে কাজ করলেও নিজেকে চলচ্চিত্রের নায়ক হিসেবে ভাবতেই পছন্দ করি। আমরা বড়পর্দার মানুষরা দর্শকের কাছে কৃতজ্ঞ। কারণ এখনও তারা প্রেক্ষাগৃহে গিয়ে নিয়মিত ভাল ছবি দেখছেন।

আনন্দকণ্ঠ : মুক্তি প্রতীক্ষিত কী কী ছবি রয়েছে?

ইমন : ‘পাপ কাহিনী‘ ‘কিলার’, ‘সাহসী যোদ্ধা’, ‘সমাধান’ এবং ‘আমার সিদ্ধান্ত’ নামের ছবিগুলো এ বছরই মুক্তি পাবে আশা করি।

আনন্দকণ্ঠ : চলচ্চিত্রের মান নিয়ে কি বলবেন?

ইমন : চলচ্চিত্রের মান আগের চেয়ে অনেক ভাল হয়েছে। এখন ভাল ভাল কাজ হচ্ছে। খুব শীঘ্রই আমাদের দেশে অনেক ভাল ভাল ছবি দেখতে পারব। ভাল ছবি দেখতে দর্শক সিনেমা হলে ঠিকই ভিড় করে।

আনন্দকণ্ঠ : যৌথ প্রযোজনার ছবি সম্পর্কে মতামত কী?

ইমন : যৌথ প্রযোজনার ছবি ভাল। তবে যদি নিয়মনীতি মেনে করা হয় সেটা ভাল। নিয়মনীতি যদি না মেনে কাজ করে তাহলে আমি অবশ্যই সাধুবাদ জানাব না। সব কিছুর একটা নিয়ম শৃঙ্খলা আছে সেগুলো মেনে কাজ করতে হবে। নিয়ম অনুযায়ী যদি কোন কাজ হয় সেটা ভাল। নিয়মনীতি যদি না মানা হয় তাহলে অবশ্যই সেটা ভাল না।