২০ আগস্ট ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে দূরত্ব বাড়ছে বাকি বিশ্বের

যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে দূরত্ব বাড়ছে বাকি বিশ্বের

অনলাইন ডেস্ক ॥ গাজা ইস্যুতে যুক্তরাষ্ট্র ও বাকি বিশ্বের মধ্যে দূরত্ব বাড়ছে। জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদে গত মঙ্গলবার বিশেষ অধিবেশনে দুই পক্ষের এই বিভেদ আরো স্পষ্ট হয়ে যায়। অধিবেশনে ইউরোপসহ বাকি সদস্যরা যখন ইসরায়েলের গত সোমবারের ভূমিকার একটি নিরপেক্ষ ও স্বচ্ছ তদন্তের দাবি তোলে তখন মার্কিন রাষ্ট্রদূত নিকি হ্যালি পুরো ঘটনার জন্য হামাসকে দায়ী করে ইসরায়েলের পক্ষে ঢাল হয়ে দাঁড়ান এবং শেষ পর্যন্ত যুক্তরাষ্ট্রের বিরোধিতার মুখেই বাতিল হয়ে যায় ইসরায়েলি হামলা তদন্তের প্রস্তাব।

পোপ ফ্রান্সিস গাজা হত্যাকাণ্ডের নিন্দা জানিয়ে বলেছেন, মধ্যপ্রাচ্যে ন্যায়বিচার ও শান্তির প্রয়োজন।

গত সোমবার ছিল ইসরায়েলের ৭০তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী। ওই দিনই জেরুজালেমে মার্কিন দূতাবাসের উদ্বোধন করা হয়। গাজাবাসী এর প্রতিবাদ জানাতে সীমান্তে জড়ো হলে ইসরায়েলি সেনাদের গুলিতে নিহত হয় আট শিশুসহ ৬২ জন। গতকাল বুধবারও সহিংসতায়। ইসরায়েলি সেনাদের গুলিতে নিহত হয়েছে দুজন।

এদিকে গতকাল জেরুজালেমে গুয়াতেমালাও তাদের দূতাবাস উদ্বোধন করেছে। এ উপলক্ষে সেখানে হাজির ছিলেন গুয়াতেমালার প্রেসিডেন্ট জিমি মোরালেস।

গাজায় সোমবার ইসরায়েলি বাহিনী নির্বিচারে গুলি চালানোর পর মঙ্গলবার জরুরি অধিবেশনে বসে জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদ। ইসরায়েলের ভূমিকার নিরপেক্ষ তদন্তের দাবি তুলে একটি প্রস্তাব আনে কুয়েত। এর আগেই অবশ্য ফ্রান্স, জার্মানি, ব্রিটেনসহ বেশির ভাগ দেশই ইসরায়েলের নিরাপত্তার বিষয়টি স্বীকার করে নিয়েই বলে, এ ঘটনার তদন্ত প্রয়োজন। একই সঙ্গে তারা এও বলে, ইসরায়েলকেও ফিলিস্তিনিদের সমাবেশ এবং শান্তিপূর্ণভাবে বিক্ষোভ করার সুযোগ দিতে হবে।

তবে এই পরিস্থিতির একেবারে বিপরীতে দাঁড়িয়ে নিকি হ্যালি বলেন, ‘ওখানে সংঘর্ষ তারাই করেছে যারা ইসরায়েলের অস্তিত্ব অস্বীকার করে। তারা জাতিসংঘের একটি সদস্য রাষ্ট্রকে ধ্বংস করে দেওয়ার অভিসন্ধি থেকে এ হামলা চালিয়েছে।’ জাতিসংঘের ফিলিস্তিনের রাষ্ট্রদূত রিয়াদ মানসুর বক্তব্য শুরু করলে হ্যালি অধিবেশন থেকে উঠে যান। মানসুর ইসরায়েলের সহিংসতাকে মানবতাবিরোধী অপরাধ ও যুদ্ধাপরাধ হিসেবে অভিহিত করেন। সূত্র : এএফপি, বিবিসি, সিএনএন।