১৯ অক্টোবর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

প্রযুক্তি বাজারে ঈদের আনন্দ

  • রেজা নওফল হায়দার

আর কয়েক দিন পরেই মুসলমানদের পবিত্র ধর্মীয় উৎসব ঈদ। এই ঈদকে উদ্দেশ্য করেই প্রিয়জনকে উপহার দেয়ার রেওয়াজ চালু রয়েছে বহু বছর আগে থেকে। এ সময় নতুন জামা-কাপড় উপহার দেয়ার প্রবণতা বেশি থাকলেও হালে উপহার দেয়ার প্রধান বস্তুতে পরিণত হয়েছে প্রযুক্তি ডিভাইস। রমজানের আসন্ন এই ঈদে তাই প্রিয়জনকে নতুন বিশেষ কিছু উপহার দিয়ে চমকে দিতে প্রযুক্তি নির্ভর দোকান ও মার্কেটেও দেখা যাচ্ছে ক্রেতাদের ভিড়। স্মার্ট ফোন, কম্পিউটারসহ নতুন নতুন সব ডিজিটাল ডিভাইস ঈদ বাজারে বিশেষ প্রভাব ফেলেছে। অন্যদিকে ব্যবসায়ীরাও ঈদকে সামনে রেখে আধুনিক সব ডিভাইসের পসরা সাজিয়েছেন। নতুন পণ্যের পাশাপাশি থাকছে অর্থ ছাড় ও বিশেষ কিছু পুরস্কার। এবার ঈদে ল্যাপটপ, নেটবুক ও ট্যাবলেট পিসি বেশি বিক্রি হচ্ছে বলে জানালেন ব্যবসায়ীরা। ঈদ আসন্ন তাই প্রযুক্তিনির্ভর মার্কেট ও দোকানগুলোতে ক্রেতাদের ভিড় একটু বেশিই দেখা যাচ্ছে। এ ছাড়া ব্যস্ততা আর যানজটে নাকাল না হয়ে ঘরে বসেই আগে ভাগে ঈদের কেনাকাটায় ব্যস্ত হয়ে ওঠেন নগরবাসী। ইন্টারনেট প্রযুক্তির ছোঁয়ায় ঈদের বাজার তাই এখন পৌঁছে গেছে ঘরে ঘরে। ক্রেতা টানতে সেখানেও চলেছে নানা অফার। একচুয়াল আর ভার্চুয়াল জগতে প্রযুক্তি কেনাকাটার বিস্তারিত জানাতেই আজকের প্রতিবেদন।

ঈদের উপহার প্রযুক্তি পণ্য ঈদে উপহার হিসেবে এখন প্রযুক্তি পণ্যকেই বেশি প্রাধান্য দেয়া হচ্ছে। এর মধ্যে সেলফোন, ল্যাপটপ যেমন আছে তেমনি আছে বাহারি আইটি গেজেটস। বাসাবো থেকে ছেলে নাজিবকে নিয়ে একটি স্মার্ট ফোন কিনতে এসেছিলেন শাহীন হাসনাত। তিনি জানান, ‘আগেই সিদ্ধান্ত নিয়েছিলাম এবার ঈদে ছেলেকে একটি ডিজিটাল ডিভাইস গিফট করব। সময়ের সঙ্গে ওকে আপ টু ডেট রাখতেই শিক্ষাভিত্তিক এ্যাপস ব্যবহার উপযোগী ফোন কিনে দিতে চাই।’ ছেলেকে নিয়ে বসুন্ধরা সিটি শপিং মলে এসেছিলেন খিলগাঁওয়ের ফাহমিদা নবী। ‘ঈদ এলেই প্রথম দশ রোজার মধ্যেই প্রতিবছর ছেলেকে কিছু না কিছু কিনে দিই, এবার ল্যাপটপ দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছি’ জানালেন তিনি। তার পাশেই মেয়েকে নিয়ে শপিংয়ে আসা লালবাগের ঈশিতা তাবাসসুম। তিনি জানালেন, ঈদে মেয়েকে এবার একটা হোম থিয়েটার কিনে দিতেই মার্কেটে আসা। অন্যদিকে ঈদের দিন যতই এগিয়ে আসে রাজধানীর আগারগাঁওয়ের বিসিএস কম্পিউটার সিটিতেও বাড়ে প্রযুক্তিপ্রেমীদের ভিড়। এখানকার ব্যবসায়ীরা জানান, ঈদের মধ্যে দেশের মানুষের কেনাকাটা এখন আর জুতা-কাপড়ের মধ্যেই সীমাবদ্ধ নেই। মানুষের ঈদ কেনাকাটায় এখন জায়গা করে নিয়েছে বিভিন্ন প্রযুক্তি পণ্য। তাই রোজা যতই শেষ হয়ে আসে ততই প্রযুক্তি পণ্যের ক্রেতা সমাগম বাড়ে। প্রথমদিকে ক্রেতারা শুধু দেখতে এলেও শেষ দিকে বিক্রির হার বাড়ে।

সোশ্যাল মিডিয়াতেও বেচাকেনা : আগের দিনে সোশ্যাল মিডিয়া নিতান্তই বিনোদনের জায়গা ছিল। দিন বদলেছে। আর তাই এখন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকেও ঈদের কেনাকাটার ধুম লেগেছে। ফেসবুকে বেশ কিছু গ্রুপের মাধ্যমে চলছে জমজমাট বিকিকিনি। পাওয়া যাচ্ছে রুনালস ফ্যাসিনেটিং ফ্যাশন জোনের নানা ফ্যাশন পণ্য। ক্লোভার ফ্যাশন ইরার পণ্য পাওয়া যাচ্ছে, রায়োগ্রাফির পণ্য আর প্যান্ডোরা ওয়ারড্রবের পণ্য মিলেছে ক্ষুদ্র ও মাঝারি উদ্যোক্তারা নিজেদের পণ্য সরাসরি ক্রেতাদের কাছে পৌঁছে দেয়ার জন্য এখন সামাজিক যোগাযোগের সবচেয়ে বড় এ প্লাটফর্মটি ব্যবহার করছেন। এদের মধ্যে বাংলাদেশী গহনার ফ্যানপেজে বাংলাদেশী ডিজাইনার্স কালেকশন, ডায়মন্ড কাট জুয়েলারি, গোল্ড প্লেটেড ইন্ডিয়ান জুয়েলারি, ব্রাইডাল সেট জুয়েলারি, পিওর সিলভার জুয়েলারি, অরিজিনাল কুন্দন জুয়েলারি, কিউবিক জারকান সেট, লকেট ও নেকলেসসহ হাজারো ডিজাইন ও আইটেমের জুয়েলারির প্রদর্শনী ও বিক্রি হচ্ছে। ঈদ উপলক্ষে এখানে ডিজাইনার সাবরিনা আক্তার টিনার নকশায় বাহারি নকশার জমকালো সব সেট পাওয়া যাচ্ছে। অনলাইনের পাশাপাশি ফোনের মাধ্যমে অর্ডার দিতে পারছেন ক্রেতারা। ৩ হাজার টাকার বেশি পণ্য ক্রয় করলে রয়েছে ফ্রি হোম ডেলিভারির ব্যবস্থা। বর্তমানে উত্তর আমেরিকা, সুইজারল্যান্ড, অস্ট্রেলিয়া, মালয়েশিয়া, ইতালি, জার্মানি, সিঙ্গাপুর, জাপানসহ পৃথিবীর বিভিন্ন দেশ থেকে বাংলাদেশী গহনার অর্ডার আসছে অনলাইনের মাধ্যমে। প্রতিষ্ঠানটি জানিয়েছে নিরাপত্তা ও সঠিক ডেলিভারির জন্য দেশের বাইরে জুয়েলারি পণ্য পাঠানো হচ্ছে ফেডএক্স কুরিয়ারের মাধ্যমে।

অনলাইনে বিদেশ থেকে দেশে কেনাকাটা বিদেশ থেকে প্রিয় মানুষের জন্য বা নিজের জন্য কেনাকাটার সুযোগ রয়েছে। দেশের বাইরে থেকে অনলাইনে দেশেই ঈদের কেনাকাটার জন্য গিফটমেলা.কম ও বাংলাদেশগিফটশপ.কম নতুন নতুন শতেক আইটেমের পণ্য প্রদর্শন করছে। এর মধ্যে রয়েছে ঈদের পোশাক (বিভিন্ন ফ্যাশন হাউসের যেমন জামদানি শাড়ি, শালোয়ার কামিজ), খাবার দাবার, গ্রিটিংস কার্ড, ফুল, মহিলাদের ব্যাগ, বিভিন্ন ধরনের কেক, পেস্ট্রি, ইফতার আইটেম অনলাইনে অর্ডার দিয়ে দেশে পরিবারের সদস্য, আত্মীয়স্বজনদের পাঠানো যাবে। বিভিন্ন পণ্যে রয়েছে ঈদ উপলক্ষে বিশেষ ছাড়। ঢাকা শহরে সাইটে উল্লিখিত যে কোন ধরনের পণ্য দিনে দিনে পৌঁছানোর ব্যবস্থা রয়েছে। সাইটে রয়েছে বিভিন্ন দিবসের উল্লেখ। সংশ্লিষ্ট দিবসে দূর দেশে বসে উপহার পাঠিয়ে চমকে দিতে পারেন প্রিয়জনকে। এমনকি পছন্দের মাছ-মাংস থেকে ফ্লেক্সিলোড পর্যন্ত করার সুযোগ রয়েছে।

ইন্টারনেটেই ঈদের কেনাকাটা ঈদের আগে ঢাকায় ব্যস্ততা আর যানজটে নাকাল হয়ে ওঠে সর্ব সাধারণ মানুষ। এই যন্ত্রণা থেকে মুক্তি পেতে প্রযুক্তি এখন চলে এসেছে আমাদের হাতের মুঠোয়। প্রযুক্তির সাহায্যে এখন মানুষ অনলাইনে ঘরে বসেই করতে পারছে ঈদের কেনাকাটা। শপিং মলের পাশাপাশি দেশি ই-কমার্স সাইটগুলোও নতুন সাজে সেজেছে। দেশের পাশাপাশি প্রবাসীরাও ভিড় জমান এসব অনলাইন বাজারে। অনলাইনই হয়ে উঠেছে এখন নাগরিক জীবনের সবচেয়ে বড় মার্কেট। নিম্নে আলোচ্য ই-শপের বাইরেও ঈদের কেনাকাটার জন্য রয়েছে আমাদের ই-শপ, সূর্যমুখী, একুশে, কেনাকাটা, সিটিশপ, বেস্টওয়ে বাজারসহ বিভিন্ন সাইট। এখানে পাওয়া যাচ্ছে ঈদের সব উপকরণসহ আধুনিক জীবনধারা থেকে শুরু করে কাঁচাবাজার ও ঘর-গৃহস্থালির সব সামগ্রী। আপনি শুধু অর্ডার করবেন বাকিটা দায়িত্ব নেবে বিক্রেতা প্রতিষ্ঠানগুলো। নিশ্চিন্তেই হাতের কাছে পেয়ে যাবেন আপনার পছন্দের পণ্য।

এখনই ডটকম : এবার ঈদ উপলক্ষে এখনই.কমে বিভিন্ন পণ্যে দেয়া হচ্ছে আগের চেয়ে ৩০ শতাংশ নগদ মূল্য ছাড়ে। এ ছাড়া দেশজুড়ে বেশিরভাগ পণ্য ক্রেতার কাছে পৌঁছে দিতে হোম ডেলিভারি ফ্রি করা হয়েছে। এ ছাড়াও ৫০০ টাকার পণ্য কিনলে পরবর্তী ক্রয়ে নগদ ৫০ টাকা মূল্য ছাড় দেয়া হচ্ছে। অনলাইনে বেচাকেনার এই সাইটটির মাধ্যমে ৩০০ ব্র্যান্ডের ১০ হাজার পণ্যের ছবি দেখে অর্ডার দেয়ার দিনেই বাসায় পৌঁছে যাচ্ছে কাক্সিক্ষত ঈদ শপিং। এখানে পাওয়া যাচ্ছে শাড়ি, সালোয়ার-কামিজ, শার্ট-প্যান্ট, ফতুয়া, পাঞ্জাবিসহ সব ধরনের পোশাক। তবে এ বছর এই কাতারে যুক্ত হয়েছে বেশ কিছু আইটি গেজেটস। এর মধ্যে ঈদ উপহার হিসেবে ক্রেতারা পেনড্রাইভ, সেলফোন ও ট্যাব, হেডফোনের অর্ডার দিচ্ছেন বলে জানিয়েছেন এখনই ডটকম সিইও শামীম আহসান। তিনি জানান, গত কয়েকদিন ধরে তীব্র যানজটে নাকাল নগরবাসীর মধ্যে অনলাইনে কেনা-কাটার প্রবণতা বেড়েছে। গত বছরের তুলনায় অনলাইনে দ্বিগুণ কেনাকাটা হচ্ছে। তিনি আরও বলেন, এখনই ডটকম থেকে এবার আমরা প্রবাসীদের জন্য জাকাতের শাড়ি দুস্থদের মধ্যে পৌঁছে দেয়ার জন্য একটি স্বতন্ত্র সেবা চালু করেছি।

বাংলাদেশ ব্র্যান্ডস : দেশের ৩৯টি ব্র্যান্ডের ২১ হাজারেরও বেশি পোশাক নিয়ে সাজিয়েছে বাংলাদেশের প্রথম ব্যান্ড ভার্চুয়াল মল বাংলাদেশব্র্যান্ডস.কম। এই সাইটে আরও পাওয়া যাবে ১০ হাজারেরও বেশি ইলেকট্রনিকস পণ্য। বাংলাদেশ ব্র্যান্ড ডটকমের সম্পর্কে ফিউচার সলিউশন ফর বিজনেসের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সাদেকা হাসান সেঁজুতি জানান, ঈদ উপলক্ষে এখানে কিছু ব্র্যান্ডের পণ্যে ১০ শতাংশ ছাড় দেয়া হচ্ছে। তিনি জানান, আমাদের এই ভার্চুয়াল মলে অফলাইন দামেই পণ্য বিক্রি হচ্ছে। কেবল গত ২০ জুলাই আমরা এখান থেকে দুই ঘণ্টায় দুই লাখ টাকার পণ্য বিক্রি করেছি। আর ক্রেতারা এখন বিকাশ এবং ব্যাংক ক্রেডিট কার্ডের মাধ্যমে মূল্য পরিশোধ করছেন। এখানে এখন বিদেশি ক্রেতারাই বেশি। এদের মধ্যে অস্ট্রেলিয়া, আমেরিকা ও মালয়েশিয়া থেকেই ঈদ উপলক্ষে পাঞ্জাবি ও শাড়ি বিক্রি হচ্ছে উল্লেখযোগ্য হারে।

ই-সুফিয়ানা : অনলাইন সুপার শপই সুফিয়ানা.কম ঈদ উপলক্ষে ঘোষণা করেছে এক্সক্লুসিভ সব ঈদ উপহার। ই-সুফিয়ানার প্রতি ৫০০ টাকার পণ্যে আপনি পাচ্ছেন একটি করে গিফট কুপন। এই অফার ২৪ রমজান পর্যন্ত কার্যকর থাকবে। ২৫ রমজান কুপনগুলোর মধ্যে লটারির মাধ্যমে বিজয়ী নির্বাচন করা হবে। এতে উপহার হিসেবে রয়েছে আইফোন, ডেল ল্যাপটপ, স্যামসাং ট্যাব, স্যামসাং মোবাইল এক্স ডুয়োস, আইপড, ই-সুফিয়ানা গিফট হ্যাম্পার প্রভৃতি। সবচেয়ে বেশি টাকার পণ্য ক্রেতার জন্য উপহার হিসেবে থাকছে ডায়মন্ড জুয়েলারি যা ঈদের আগের দিন প্রদান করা হবে। সুফিয়ানার আউটলেটেও এই অফার চালু থাকবে।

বিউটিশপবিড : ঈদ উপলক্ষে অর্ডারকৃত পছন্দের পণ্য বিনামূল্যে বাসায় পৌঁছে দিচ্ছে ই-কমার্সভিত্তিক ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বিউটিশপবিডি.কম। এই সাইটে নারীদের সব ধরনের পণ্য ওয়েবে ফরমাশ দিয়ে ঘরে বসে পাওয়া যাবে। তবে এর জন্য বাড়তি কোন খরচ বহন করতে হবে না। ঈদের কেনাকাটায় বিউটিশপবিডি দিয়েছে নির্দিষ্ট পাঁচটি পণ্যের ওপর বিশেষ ছাড়। বিউটিশপবিডির ব্যবস্থাপনা পরিচালক রাহিতুল ইসলাম রুয়েল জানান, এই অনলাইন দোকান থেকে যে কোন পণ্য একজন ক্রেতা খুব সহজেই কিনতে পারবেন। বিকাশের ম্যধ্যমেও লেনদেন করা সম্ভব।

তিনি আরও জানান, আমরা এই সেবা তাদের কাছেই পৌঁছতে পারব, যেখানে এসএ পরিবহন, ফেডেক্স কিংবা ডিএইচএল কুরিয়ারের সুবিধা আছে। আমরা প্রত্যাশা করছি এবার দেশের বাইরে থেকেও অনেকে ঈদের কেনাকাটা করবেন। এদিকে ঈদে নারীদের জন্য শুধু বাহারি সব জামদানি শাড়ির সমাহার নিয়ে রয়েছে রূপকথা জামদানি। অনলাইন শপটির প্রতিষ্ঠাতা তরুণ উদ্যোক্তা শারমিন রাবেয়া জানান, ঈদ উপলক্ষে সব ধরনের জামদানিতে থাকছে ছাড়। শেষ ১০ রোজা পর্যন্ত থাকবে ২০ শতাংশ ছাড়।

নির্বাচিত সংবাদ