১৭ জুলাই ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

স্থপতি মাহফুজকে খুলনায় পাওয়া গেছে

স্থপতি  মাহফুজকে খুলনায় পাওয়া গেছে

স্টাফ রিপোর্টার ॥ আবাসন কোম্পানি শেলটেকের স্থপতি মোঃ বিএমএম মাহফুজ নবীনকে (৩৭) খুলনায় পাওয়া গেছে। চারদিন আগে তিনি ঢাকা থেকে নিখোঁজ হয়েছিলেন। নবীনের স্ত্রী জান্নাতুল এশা বলেছেন, বুধবার রাত ৩টার দিকে তার স্বামীকে একটি মাইক্রোবাস থেকে খুলনার খালিশপুর এলাকায় ফেলে রেখে যাওয়া হয়। তখন ওর চোখ বাঁধা ছিল। পরে নিজেই চোখ খুলে বুঝতে পারে কোথায় আছেন। খুলনায় ওর এক বোনের বাসা আছেন।

আপাতত সেখানে গেছে। কারা তাকে মাইক্রোবাসে খুলনা নিয়ে গেছে, চারদিন তিনি কোথায় ছিলেন। তা জানাতে পারেননি তার স্ত্রী এশা। তবে এশা জানান, ও ঠিকমত হাঁটতে পারছে না। পা আর শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। আমার সাথে খুব অল্প সময় কথা হয়েছে। শরীর এতোটাই খারাপ যে কথা বলতে পারছে না ঠিকমত। আবাসন নির্মাতা কোম্পানি শেলটেকের স্থপতি নবীন পরিবার নিয়ে থাকতেন রাজধানীর ভাষানটেকের ধামাল কোটে। তিনি জানান, গত রবিবার সকালে কলাবাগানে অফিসে যাওয়ার জন্য ভাষানটেকের ধামাল কোটের বাসা থেকে বের হন। এরপর তিনি আর ফেরেননি।

নবীন বাসায় না ফেরায় পরদিন সোমবার পরিবারের পক্ষ থেকে ভাষানটেক থানায় সাধারণ ডায়েরি করা হয়। বৃহস্পতিবার ভাষানটেক থানার ওসি সাব্বির জানান, মাহফুজের পরিবারের পক্ষ থেকে আমরা জানতে পেরেছি তাকে খুলনায় পাওয়া গেছে। তিনি এখন খুলনায় বোনের বাসায় আছেন।

বিষয়টি তদন্ত করে দেখা হবে বলে জানান। এর আগে ওসি সাব্বির জানিয়েছিলেন, মোবাইল ফোন বন্ধের আগে মাহফুজের সর্বশেষ অবস্থান ছিল দারুস সালাম থানার পাশে। এর আগে মঙ্গলবার জিডির তদন্তকারী কর্মকর্তা ভাষানটেক থানার এসআই রুহুল আমিন বলেছিলেন, নবীনের মোবাইলের সর্বশেষ অবস্থান তারা শনাক্ত করতে পেরেছেন দারুস সালাম এলাকায়।

সেখানে তিনি কেন গিয়েছিলেন। না কি অন্য কেউ তার মোবাইল ব্যবহার করছিল। তা পুলিশ তদন্ত করে দেখছে। আবার নবীন বাসা থেকে বের হওয়ার পর কচুক্ষেত এলাকায় একটি ব্যাংকের বুথ থেকে তার কার্ড ব্যবহার করে ২০ হাজার টাকা তোলা হয়। নবীন নিজেই টাকা তুলেছিলেন কিনা? তা জানতে বুথের সিসি ক্যামেরার ভিডিও সংগ্রহ করা হবে।