২০ আগস্ট ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

শিরোপা উদযাপনের সময় প্যারিসে সহিংসতা, নিহত ২

জনকণ্ঠ ডেস্ক ॥ ফ্রান্সের বিশ্বকাপ শিরোপা জয় উদযাপন করতে গিয়ে প্যারিসে ছড়িয়ে পড়ল সহিংসতা। বাঁধভাঙ্গা উদযাপন করতে গিয়ে দুজন নিহত হওয়ার ঘটনাও ঘটেছে। এতে মাটি হয়ে গেছে দেশটির আনন্দঘন এই উপলক্ষ। রবিবার ফ্রান্স ৪-২ গোলে ক্রোয়েশিয়াকে হারিয়ে বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন হওয়ার পরপর প্যারিসে আনন্দের ঢল নামে। বাঁধভাঙ্গা সেই উদযাপন হঠাৎ করে রূপ নেয় সহিংসতায়। সেটা ঠেকাতে পুলিশ ছুড়েছে কাঁদানে গ্যাস, তাদের সঙ্গে সংঘর্ষে জড়ায় বিক্ষুব্ধ ভক্তের কিছু অংশ। খবর ইন্ডিপেন্ডেন্ট ও এক্সপ্রেস ডটকম ইউকের।

বিশ্বকাপ ফাইনালের শেষ বাঁশি বাজার পরপরই চ্যাম্পস এলিসিসে আনন্দের জোয়ার নামে। লাখ লাখ ফরাসী রাস্তায় নেমে পড়ে শিরোপা উদযাপন করতে। প্যারিসের এই আইকনিক ভেন্যুতে হাজার হাজার ভক্ত একত্র হতে থাকে। কিন্তু সন্ধ্যা গড়িয়ে যেতেই ভক্তরা বুনো উল্লাসে মেতে ওঠে। বেশ কয়েকটি জায়গায় লুটপাটের ঘটনাও ঘটেছে। তাদের থামাতে ১ লাখ পুলিশ মাঠে নামে। ৪৪ হাজার অগ্নিনির্বাপণ কর্মী যোগ দেন এই বিশৃঙ্খলা ঠেকানোর কাজে। শিরোপা জয়ের উল্লাস করতে গিয়ে দুর্ঘটনায় মারা গেছেন দুই জন। পুলিশ জানায়, ফ্রান্সের জয় উদযাপন করতে গিয়ে খালে লাফ দিয়ে ৫০ বছর বয়সী একজন নিহত হয়েছেন। ফ্রান্সের সেন্ট ফেলিক্স শহরে গাছের সঙ্গে গাড়ি ধাক্কা লাগায় ত্রিশোর্ধ্ব এক ব্যক্তি মারা যান। উদযাপন থেকে রূপ নেয়া সহিংসতায় ৮৪৫টি গাড়ি ভাংচুরের শিকার হয়েছে। গ্রেফতার করা হয়েছে প্রায় ৫০০ জনকে। সহিংসতার ভিডিও মুছে না ফেলায় কয়েকজন সাংবাদিক হেনস্থার শিকার হয়েছেন। প্যারিসের একটি পানশালায় ভাংচুর করা হয়েছে। ফোনে ছবি তোলা শেষে চ্যাম্পস এলিসিসের একটি দোকানে লুটপাট করেছে মুখোশধারী প্রায় ৩০ জন তরুণ। পুরো প্যারিস শহরে ছড়িয়ে পড়ে এই দাঙ্গা। রাত সাড়ে ১১টার দিকে পুলিশ এই বিশৃঙ্খলা ঠেকাতে জলকামান ব্যবহার করে। প্যারিসে একজন মেয়র জ্যা ডি’আউতেসের বলেন, ‘উদযাপন মাটি হয়ে গেছে সহিংসতার কারণে।’ লিওঁতে পুলিশ ও শতাধিক তরুণের সঙ্গে সংঘর্ষ বাঁধে। তারা সবাই পুলিশের গাড়িতে উঠে উল্লাস করছিলেন। ন্যান্সিতে ৩ বছরের এক ছেলে ও দুজন ছয় বছরের মেয়ে উদযাপন করতে গিয়ে মোটরবাইকের ধাক্কায় গুরুতর আহত হন। মার্শেইতে অন্তত ১০ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। সেখানে সংঘর্ষে নিরাপত্তাবাহিনীর দুজন আহত হয়েছেন বলে জানায় পুলিশের একজন মুখপাত্র। সেখানে উদযাপনকে প্রশমিত রাখতে ৪ হাজার পুলিশকে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে।