১৫ নভেম্বর ২০১৮  ঢাকা, বাংলাদেশ  
শেষ আপডেট এই মাত্র    
ADS

মালিকরা দিতে চায় ৬ হাজার ৩৬০ টাকা

  • শ্রমিকদের ন্যূনতম মজুরি

স্টাফ রিপোর্টার ॥ পোশাক শিল্পের শ্রমিকদের ন্যূনতম মজুরি মাসিক ১৬ হাজার টাকার পরিবর্তে ৬ হাজার ৩৬০ টাকা দিতে চায় মালিকরা। সোমবার গার্মেন্টস মালিকদের প্রতিনিধি হিসেবে বিজিএমইএ-এর সভাপতি সিদ্দিকুর রহমান এমন প্রস্তাব তুলে ধরেন। পোশাক শিল্পের শ্রমিকদের জন্য নতুন মজুরি কাঠামো নির্ধারণে গঠিত মজুরি বোর্ডের তৃতীয় সভায় এমন প্রস্তাব তুলে ধরা হয়। বোর্ডে শ্রমিক প্রতিনিধি হিসেবে উপস্থিত থাকা জাতীয় শ্রমিক লীগের মহিলাবিষয়ক সম্পাদক শামসুন্নাহার ভূঁইয়া ন্যূনতম মজুরি ১২ হাজার ২০ টাকা করার প্রস্তাব দেন। এমন প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করেছে আন্দোলনে থাকা শ্রমিক সংগঠনগুলো। ঢাকার সেগুনবাগিচায় মজুরি বোর্ডের কার্যালয়ে সভা চলাকালে পোশাক শ্রমিকদের কয়েকটি সংগঠনের কর্মীরা বাইরে অবস্থান কর্মসূচী পালন করছিলেন। প্রসঙ্গত, ২০১৩ সালের ১ ডিসেম্বর তিন হাজার টাকা মূল বেতন ধরে পোশাক শ্রমিকদের সর্বশেষ ৫ হাজার ৩০০ টাকা ন্যূনতম মজুরি নির্ধারণ করে সরকার। ২০১৪ সালের জানুয়ারি থেকে ওই বেতন পেতে শুরু করেন শ্রমিকরা। এরপর গত ১৪ জানুয়ারি শ্রম মন্ত্রণালয় স্থায়ী মজুরি বোর্ড পুনর্গঠন করে দেয়। বিভিন্ন শ্রমিক সংগঠন বোর্ড গঠনের আগ থেকেই ১০ হাজার টাকা মূল বেতন ধরে মোট ১৬ হাজার টাকা ন্যূনতম মজুরির দাবিতে আন্দোলন করে আসছে। মজুরি বোর্ডের চেয়ারম্যান সৈয়দ আমিনুল ইসলাম বোর্ড সভায় জানান, দুই পক্ষের প্রস্তাব যাচাই-বাছাই করে অতি দ্রুত সিদ্ধান্ত নেয়া হবে। এ নিয়ে কিছু গবেষণার প্রয়োজন। আগামী তিন মাসের মধ্যে মজুরির বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেয়া সম্ভব হবে। মজুরি ঘোষণার আগে নিয়ম অনুযায়ী কিছু কারখানা সরেজমিন ঘুরে দেখবেন মজুরি বোর্ডের সদস্যরা। যদিও নতুন মজুরি কাঠামো ঘোষণার জন্য সরকারের বেঁধে দেয়া ছয় মাস সময় এ মাসেই শেষ হচ্ছে। বাকি কাজ শেষ করার জন্য মজুরি বোর্ড শ্রম মন্ত্রণালয়ের কাছে তিন মাস সময় বাড়ানোর আবেদন করবে বলে জানান আমিনুল ইসলাম।